০৪ আগস্ট ২০২১
`

মান ক্ষুণœ

-

মানুষকে নিয়ে ঠাট্টা বিদ্রƒপ করা এ যেন আমাদের সমাজে এক প্রচলিত প্রথা। অন্যকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করা মানে নিজেকে একটু উঁচু মানের হিসেবে উপস্থাপন করার একটা সামান্য অপচেষ্টা। এর মাধ্যমে নিজেকে একটু বড় প্রমাণিত করার চেষ্টা ছাড়া আর কিছুই নয়। কিন্তু আপনি কি কখনো ভেবেছেন যে, আপনি নিজে পুরোপুরি নিখুঁত কি না। অবশ্যই না। কারণ, আমরা জানি মানুষ মাত্রই ভুল। যদি আপনি নিজেই পুরোপুরি নিখুঁত না হয়ে থাকেন তাহলে অন্যকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করে নিজেকে অজ্ঞাত পরিচয় দেয়ার সমান বা নির্দিষ্ট জ্ঞানের অভাব। ইতোমধ্যেই আমরা জানলাম যে, আপনি পুরোপুরি নিখুঁত না। তাহলে ধরুন আপনাকে নিয়ে কেউ ঠাট্টা-বিদ্রƒপ করল বা আপনাকে ছোট করল, হোক তা আপনার সামনে অথবা পেছনে, আপনি তা জানতে পারলেন তখন আপনার অনুভূতিটা কেমন হবে। অবশ্যই মনটা খারাপ হয়ে যাবে, খুব কষ্ট লাগবে এবং নিজেকে পৃথিবীর একজন খারাপ মানুষের মধ্যে একজন মনে হবে যদি আপনার মধ্যে বিন্দু পরিমাণ আত্মসম্মান থাকে। তাহলে অন্যের বেলায় কেন নয়। আপনি এটা কেন ভাবেন না আমি যাকে নিয়ে ঠাট্টা করছি সেও আমার মতোই একজন মানুষ। তারও আত্মসম্মান বলতে কিছু একটা আছে। আমার মতোই কষ্ট লাগে, মন খারাপ হয়ে যায়। আপনি যদি সুস্থ মস্তিষ্কের মানুষ হয়ে থাকেন তাহলে এ বিষয়টি একটু হলেও আপনাকে ভাবাবে। আচ্ছা, আরেকটা বিষয় লক্ষ করুন! মানুষ কি আল্লাহ তায়ালা বা সৃষ্টিকর্তার সেরা জীব নয়? মানুষ যদি সৃষ্টির সেরা জীব হয়েই থাকে তাহলে মানুষকে নিয়ে হাসি ঠাট্টা করার অধিকার আপনাকে কে দিয়েছে। কে দিয়েছে এই অধিকার যে আপনি তাকে ছোট করে কথা বলবেন। আপনার নিজের আত্মসম্মান আছে তার কি মোটেও আত্মসম্মান নেই? আজব তো! তাহলে এই প্রশ্নের জবাবে আপনি কী উত্তর দেবেন। অবশ্যই তারও আত্মসম্মান বলতে কিছু একটা আছে। মানুষকে নিয়ে এত ঠাট্টা বিদ্রƒপ কেন করবেন, বলুন। এটা কি জ্ঞানের অভাব নয়? যেখানে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, আমি মানুষ কে আমার সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে পাঠিয়েছি। সেই মানুষকে নিয়ে আপনি ঠাট্টা বিদ্রƒপ করবেন, ছোট করে কথা বলবেন এটা তো এক প্রকার সীমালঙ্ঘনের পর্যায়ে পৌঁছে যায়। নিশ্চয়ই, এটা কারো অজানা নয় যে, আল্লাহ সীমালঙ্ঘনকারীদেরকে পছন্দ করেন না। আপনি কি চান আপনি সীমালঙ্ঘনকারীদের কাতারে শামিল হন। আপনি কি চান আপনার অল্প একটু কথার দ্বারা আল্লøাহ তায়ালার অপছন্দের কেউ হয়ে যান। অবশ্যই চান না। যদি না-ই চেয়ে থাকেন তাহলে হাত জোড় করে বলব এই নিন্দনীয় অভ্যাসটা পরিহার করুন। হ্যাঁ, যদি কেউ আপনার দেখা চোখে কোনো অপরাধ করে থাকে বা কোনো ভুল করে থাকে তাহলে আপনি তাকে বুঝান। বুঝিয়ে বলুন তাকে, আপনি যে মহান সৎভাবে তার কাছে তার কাছে পরিচয় দিন। অসৎভাবে মহত্ত্ব প্রকাশ করতে গিয়ে নিজের ক্ষতি করবেন না বা কারো মনে কষ্ট দেবেন না। যদি আপনাকে কেউ কটু কথা বলে তাহলে চুপ করে থাকুন (যে চুপ থাকে সে নাজাত পায়Ñ আল হাদিস) অযথা তার সাথে তর্কে লিপ্ত হবেন না। তাকে সময় দিন বুঝার। আজ না হোক কাল একদিন বুঝবে যে আমি কাজটা ঠিক করিনি। নিজে ভালো থাকুন কাছের মানুষগুলোকেও ভালো রাখুন।



আরো সংবাদ