১৪ আগস্ট ২০২২
`

রাস্তা পারাপারে সতর্ক হই

-

প্রতিদিন সকালে কাজের জন্য ঘর থেকে বের হতেই হয়। কর্মজীবী মানুষের ব্যস্ততা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। ব্যস্ততা সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে যানজট ও সড়ক দুর্ঘটনা। প্রায় দিনই সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাচ্ছেন বহু মানুষ। সড়ক দুর্ঘটনার বিভিন্ন কারণের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে রাস্তা পারাপারে অসতর্কতা। রাস্তা পার হওয়ার সময় অনেকে গাড়িচাপা পড়ে মারা যাচ্ছেন। কারণ অনেকেই রাস্তা পারাপারের সময় কোনো নিয়ম মানতে চান না। এ ছাড়া ওভার ব্রিজে উঠতে মানুষ খুব একটা স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন না। ফলে রাস্তা পার হতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হন বহু পথচারী। অনেকে মানছেন না ট্রাফিক আইন। শুধু সচেতনতাই পারে দুর্ঘটনা এবং আইনি ঝামেলা থেকে মুক্ত রাখাতে। দেখা যায়, অনেকে ফাঁকা রাস্তা পেয়ে বেপরোয়া গাড়ি চালাতে চেষ্টা করেন। ফল হয় ভয়াবহ। প্রাণহানি ঠেকাতে সাবধানে গাড়ি চালাতে হবে। মনে রাখবেন একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না। বিশ্লেষকরা বলছেন, অল্প দক্ষ বা অদক্ষ চালক দিয়ে গাড়ি চালানোই সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম প্রধান কারণ। বেপরোয়া গাড়ি চালাতে গিয়ে যাতে জীবনহানি না হয়, সে দিকে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। পরিবার সবসময়ই চায় আপনি এবং আপনার প্রিয় গাড়ি দুটোই থাকুক নিরাপদ।
সড়ক দুর্ঘটনা আমাদের জীবনের আলো নিভিয়ে দিতে পারে যেকোনো সময়। অন্য কেউ খেয়াল রাখবে, আমাকে নিরাপদ রাখতে, এটা না ভেবে আসুন নিজেই সতর্ক হই। নিরাপদে থাকি। আসুন জেনে নেই রাস্তা পারাপারে সময় যেসব নিয়ম মেনে চলা অবশ্যক। ১. রাস্তার পর হওয়ার সময় ফোনে কথা বলবেন না। ২. রাস্তার পর হওয়ার সময় জেব্রা ক্রসিং করুন। ৩. জেব্রা ক্রসিং না থাকলে ফুটওভারব্রিজ ব্যবহার করুন। ৪. রাস্তায় পার হওয়ার সময় গাড়ি নিয়ন্ত্রণের লাইটের সঙ্কেত দেখে নিন। ৫. লাল, হলুদ ও সবুজ বাতির সঙ্কেত মেনে পরিবহনে ওঠা ও নামার সময় সতর্ক থাকুন। ৭. রাস্তার দিয়ে হাঁটার সময় বাম ও ডান পাশ দিয়ে নিয়ম অনুযায়ী হাঁটুন। ৮. ফুটপাথ দিয়ে বাইক চালাবেন না। ৯. গাড়ি চালানোর সতর্ক থাকুন। ১০. ট্রাফিক আইন মেনে চলুন। সময়ের চেয়ে জীবনের মূল্য বেশি। তাই ওভারব্রিজ ব্যবহার করি। ধীরে-সুস্থে গাড়ি ড্রাইভ করি।
লেখক : শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম কলেজ
ঃধংহরসযধংধহ০৬৭@মসধরষ.পড়স


আরো সংবাদ


premium cement