০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৯ মাঘ ১৪২৯, ১০ রজব ১৪৪৪
ads
`

বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন হত্যায় মাদক সংশ্লিষ্টতা পায়নি ডিবি

হত্যা করা হতে পারে ঢাকার কোথাও
বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন হত্যায় মাদক সংশ্লিষ্টতা পায়নি ডিবি - ছবি : সংগৃহীত

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশ হত্যায় মাদক সংশ্লিষ্টতার বিষয়ে এখনো কোনো তথ্য পায়নি ডিবি। এমনকি ডিবির ধারণা- ফারদিনকে নারায়নগঞ্জে নয়; বরং রাজধানী ঢাকার কোনো এলাকায় তাকে হত্যা করা হয়েছে।

শনিবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে এমন তথ্য দেন গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ।

ডিবি প্রধান বলেন, ফারদিনের মোবাইলের ডাটা এনালাইসিস করা হয়েছে। তিনি যার সাথে কথা বলেছেন সবকিছু মিলিয়ে ধারণা করা হচ্ছে- ঢাকা শহরের কোনো এক জায়াগায় তাকে খুন করা হতে পারে। তবে তার সব শেষ লোকেশন ছিলো নারায়লগঞ্জ। সবকিছু মিলিয়ে তদন্তের স্বার্থে কংক্রিট কিছু বলা যাচ্ছে না।

হারুন অর রশীদ বলেন, আপনারা জানেন ঢাকা কিংবা ঢাকার বাইরে কোনো ঘটনা ঘটলে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক দক্ষ টিম কাজ করে। এক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম হচ্ছে না। গুরুত্বসহকারে কাজ করছে ডিবি। মামলার এক নম্বর আসামি বুশরাকে গ্রেফতার করে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে তিনি এক নম্বর আসামি হলেও এখনই তাকে হত্যার জন্য দায়ী মনে করছি না।

তিনি আরো বলেন, ঢাকা শহরে ফারদিন যেখানে যেখানে গিয়েছিলেন আমরা বিভিন্ন টেকনিক্যাল মাধ্যম ব্যবহার করে সেসব স্থান খুঁজে বের করেছি। কংক্রিট কোনো তথ্য বের করতে পারিনি বলে এখনই কিছু বলছি না। তবে আমাদের কাজ চলছে।

বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ ফারদিন মাদকাসক্ত ছিলেন। এমন কোনো তথ্য পুলিশের কাছে আছে কিনা- জানতে চাইলে ডিবিপ্রধান বলেন, ডিবির পক্ষ থেকে আমরা কখনো এ ধরনের কোনো তথ্য পাইনি। প্রকৃতপক্ষে ঘটনার মূল রহস্য আমরা এখনো উদঘাটন করতে পারিনি। আমরা পারিপার্শ্বিক বিভিন্ন বিষয় বিচার-বিশ্লেষণ করছি।

বুয়েট শিক্ষার্থী ফারদিন নূর পরশ গত ৫ নভেম্বর থেকে নিখোঁজ ছিলেন। ওই দিনই রাজধানীর রামপুরা থানায় এ বিষয়ে সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তার বাবা কাজী নূর উদ্দিন। নিখোঁজের দু’দিন পর গত ৭ নভেম্বর সন্ধ্যা ৬টার দিকে নারায়ণগঞ্জের শীতলক্ষ্যা নদী থেকে ফারদিনের লাশ উদ্ধার করে নৌ-পুলিশ। তার শরীরে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়। এরপরই তার দুই বন্ধু বুশরা ও শীর্ষ সংশপ্তকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। এরপর বুধবার রাতে একটি হত্যা মামলা দায়েরের পর বৃহস্পতিবার সকালে রামপুরার বাসা থেকে বুশরাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ওইদিনই ফারদিন হত্যা মামলায় তাকে পাঁচ দিনের রিমান্ডে পাঠায় আদালত।

ফারদিনের গ্রামের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা উপজেলার নয়ামাটিতে হলেও তারা রাজধানীর ডেমরা এলাকার ভাড়া বাসায় থাকতেন। তিন ভাইয়ের মধ্যে ফারদিন ছিলেন সবার বড়। তার মেজ ভাই আবদুল্লাহ নূর একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছেন। ছোট ভাই তামিম নূর এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছেন।


আরো সংবাদ


premium cement