১৫ জুলাই ২০২০

লাশ নিলো না স্বজনরা, দাফন করলো পুলিশ

ফেরদৌসি বেগম (২৭)। গতকাল বৃহস্পতিবার (২৮ মে) দুপুরে তিনি হঠাৎ করে মাথা ব্যাথা ও শ্বাস কষ্টজনিত সমস্যা অনুভব করেন। ভর্তি হন নরসিংদী সদর হাসপাতালে। সন্ধ্যা ৭টায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

ফেরদৌসি বেগমের স্বামী আল আমিন মালদ্বীপ প্রবাসী। তার শ্বশুর বাড়ি ব্রাহ্মনবাড়ীয়া জেলার বাঞ্ছারামপুর থানার খাল্লা গ্রামে এবং বাবার বাড়ি একই থানার সলিমগঞ্জ গ্রামে। তার স্বামী ১০ বছর ধরে প্রবাসে আছেন। নরসিংদী পৌরসভার সালিধা এলাকায় ৫ম শ্রেণীতে পড়া ছেলেকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন তিনি।

মৃত্যুর পর ফেরদৌসি বেগম লাশ গ্রহণে বেঁকে বসেন তার শ্বশুর বাড়ি ও বাবার বাড়ির স্বজনরা। কারণ, তাদের ভয় ফেরদৌসি বেগম করোনায় মারা গেছেন। কিন্তু করোনা হয়েছে কি-না সেটি নিশ্চিত না হওয়ার পরও লাশ বুঝে নিয়ে দাফন না করার সিদ্ধান্তে অনড় থাকেন স্বজনরা।

স্বজনদের এমন অবস্থানের কথা জানতে পেরে এগিয়ে আসে পুলিশ। নরসিংদী মডেল থানা হাসপাতাল থেকে ফেরদৌসি বেগমের লাশ বুঝে নেয়। আজ শুক্রবার ওই নারীর কবর খোঁড়া থেকে শুরু করে দাফনের জন্য প্রয়োজনীয় সকল কাজ সম্পন্ন করে। বাদ জুম্মা ওই নারীর জানাজা সম্পন্ন হয়। এরপর শহরের পৌর কবরস্থানে ফেরদৌসি বেগমকে অন্তিম শয়নে শায়িত করে পুলিশ।


আরো সংবাদ