২৬ নভেম্বর ২০২০

‘ধর্মীয় জমায়েত করোনার সংক্রমণ বাড়াচ্ছে’

‘ধর্মীয় জমায়েত করোনার সংক্রমণ বাড়াচ্ছে’
‘ধর্মীয় জমায়েত করোনার সংক্রমণ বাড়াচ্ছে’ - সংগৃহীত

করোনা ভাইরাস সংক্রমণে ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলোতে জনসমাগমের ইঙ্গিত করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। মারিয়া ভ্যান কেরখোভ জানিয়েছেন, বিশ্বের বেশকিছু দেশ করোনাভাইরাস মোকাবিলার ক্ষেত্রে সফল হওয়ার পরেও দেখা গেছে, ধর্মীয় ঘটনাবলী ও অন্য সমাবেশের কারণে করোনার সংক্রমণ ঘটছে।

তিনি এক অনলাইন বিবৃতিতে বলেন, ভাইরাসটির ছড়িয়ে পড়তে কোনও সুযোগ পেলেই তা ছড়িয়ে পড়বে। পাশাপাশি তিনি জানিয়েছেন, বিভিন্ন দেশের এই মুহূর্তে দ্রুত করোনা শনাক্তকরণের অবস্থায় থাকা অত্যন্ত জরুরি।

ভারতে প্রথমে সুপ্রিম কোর্টের তরফে পুরীর রথযাত্রায় স্থগিতাদেশ দেয়া হলেও পরে রথযাত্রার অনুমতি দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। দেশের শীর্ষ আদালত শর্তসাপেক্ষে ঐতিহাসিক রথযাত্রার অনুমতি দিয়েছে। এ বার আর রাজপথে বেরোবে না মায়াপুর ইসকনের জগন্নাথের রথ। চন্দ্রোদয় মন্দিরের উঁচু পাঁচিল ঘেরা চত্বরের ভিতরেই রথ টানা হবে।

জানা গেছে, মায়াপুরে থাকা ভক্তদেরও থাকার অনুমতি নেই সেখানে। শুধু সেচ্ছাসেবীরা এসে যাবতীয় নিয়ম পালন করবেন।

অন্যদিকে এবছর হজ হবে কিনা, তা নিয়ে জোর জল্পনার পরে সৌদি আরবের তরফে জানানো হয়েছে হজ হবে, তবে নিয়ম মেনে এবং নির্দিষ্ট পরিমাণ লোক নিয়ে।

জুলাই মাসের শেষের দিকে হজের সময়। সোমবার সৌদি প্রেস এজেন্সির তরফে জানানো হয়েছে, খুবই কমসংখ্যক হজযাত্রীকে নিয়ে হজ হবে এবার। যারা আগে থেকেই সৌদিতে রয়েছেন, তাঁরাই কেবল অংশ নিতে পারবেন হজে। হজ মন্ত্রণালয়ের তরফ থেকে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, তাবলিগ জামায়াত থেকে করোনা ছড়িয়ে পড়েছিল বলে মনে করেন অনেক ভারতীয়। করোনার সংক্রমণ রুখতে লকডাউনের শুরু থেকেই সমস্ত ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল দর্শনার্থীদের জন্য। জুন মাসের ৮ তারিখ থেকে ধিরে ধিরে সব খুলেছে।

সূত্র: কলকাতা২৪x৭


আরো সংবাদ