১২ আগস্ট ২০২২
`

মদিনায় ভিক্ষা করতে গিয়ে ধরা বাংলাদেশী ‘হজযাত্রী’

মদিনায় ভিক্ষা করতে গিয়ে ধরা বাংলাদেশী ‘হজযাত্রী’। - ছবি : সংগৃহীত

 

সৌদি আরবের মদিনায় ভিক্ষা করতে গিয়ে স্থানীয় পুলিশের হাতে ধরা পড়লেন এক বাংলাদেশী ‘হজযাত্রী’। পরে তাকে বাংলাদেশ হজ মিশনের লোকজন মুচলেকা দিয়ে ছাড়িয়ে আনেন।

অভিযুক্ত ‘হজযাত্রী’র নাম মতিয়ার রহমান, তার বাড়ি মেহেরপুরে। তিনি ধানসিড়ি ট্রাভেল এয়ার সার্ভিস (হজ লাইসেন্স নং-৭৩৭) নামের একটি এজেন্সির মাধ্যমে হজে গিয়েছিলেন।

এর পরিপ্রেক্ষিতে ধানসিড়ি ট্রাভেল এয়ার সার্ভিসের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। এই হজ এজেন্সির বিরুদ্ধে ‘কেন প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না’ তার জবাব দিতে নোটিস দিয়েছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

জানা যায়, ২২ জুন সৌদির স্থানীয় সময় আনুমানিক বিকেল ৫টার দিকে মদিনায় ভিক্ষা করতে গিয়ে সৌদি পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন মেহেরপুরের মতিয়ার রহমান। এ ঘটনা জানার পর সৌদিতে বাংলাদেশ হজ মিশনের একজন কর্মী থানায় গিয়ে মুচলেকা দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে আনেন। মতিয়ার রহমান নিজের টাকার ব্যাগ ছিনতাই হওয়ার নাটক সাজিয়ে সেখানে ভিক্ষা করছিলেন। এই হজযাত্রীর বসবাসের জন্য বাড়ি-হোটেলের ব্যবস্থাও করেনি ধানসিড়ি ট্রাভেল এয়ার সার্ভিস। একইসাথে এই হজযাত্রীকে গাইড করার মতো কোনও মোনাজ্জেমও ছিল না ।

এ ঘটনায় ধানসিড়ি ট্রাভেল এয়ার সার্ভিসের (হজ লাইসেন্স নং-৭৩৭) স্বত্বাধিকারী আল মামুনকে পাঠানো নোটিসে বলা হয়েছে, আপনার এজেন্সির একজন হজযাত্রী (মো: মতিয়ার রহমান) গত ২২ জুন আনুমানিক ৫টায় মদিনা শরিফে ভিক্ষা করতে গিয়ে সৌদি পুলিশের হাতে গ্রেফতার হন। এ ঘটনা জানার পর বাংলাদেশ হজ মিশনের একজন কর্মী থানায় মুচলেকা দিয়ে তাকে ছাড়িয়ে আনেন।

‘আপনার এজেন্সির মাধ্যমে পাঠানো ওই হাজযাত্রী ব্যাগ ছিনতাই হওয়ার নাটক করে ভিক্ষাবৃত্তির কারণে গ্রেফতার হওয়ায় মদিনা তথা সৌদিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি দারুণভাবে ক্ষুণ্ণ হয়েছে। আপনার এজেন্সির এরূপ কার্যক্রমের কারণে সুষ্ঠু হজ ব্যবস্থাপনা ব্যাহত হয়েছে এবং সরকারের হজ ব্যবস্থাপনা সংশ্লিষ্ট নির্দেশনা উপেক্ষিত হয়েছে যা ‘হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা আইন-২০২১’-এর পরিপন্থী।’


নোটিশে আরো বলা হয়, আপনার পাঠানো হজযাত্রীকে গাইড করার মতো কোনো মোনাজ্জেম ছিল না এবং হজযাত্রীর বসবাসের বাড়ি/হোটেলও ছিল না বলে জানা যায়। এটি হজযাত্রী প্রেরণের শর্তের সম্পূর্ণ পরিপন্থী।

তাই হজ ও ওমরাহ ব্যবস্থাপনা আইন অনুযায়ী এজেন্সির বিরুদ্ধে কেন প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, সেই জবাব তিনদিনের মধ্যে ধর্ম মন্ত্রণালয়ে দাখিল করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

এ বিষয়ে হজ এজেন্সিজ অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (হাব) সভাপতি শাহাদাত হোসেন তসলিম বলেন, এ বিষয়ে আমরা অবগত হয়েছি। এজেন্সির বিষয়টি নিয়ে আমরা তদন্ত করছি, সাংগঠনিকভাবে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সৌদি আরবে চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৮ জুলাই হজ অনুষ্ঠিত হবে। এবার সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীর কোটা ৪ হাজার ১১৫ জন। অন্যদিকে বেসরকারি ব্যবস্থাপনার কোটা ৫৫ হাজার ৮৮৫ জন। সর্বশেষ শনিবার পর্যন্ত ১০৮টি ফ্লাইটে সৌদি আরবে গেছেন ৩৮ হাজার ৮৮৯ জন হজযাত্রী।


আরো সংবাদ


premium cement
বিএনপি দেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায় : ওবায়দুল কাদের বরগুনায় পুলিশি বাধায় বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল পণ্ড নবাবগঞ্জে পুকুর থেকে ইজিবাইক চালকের লাশ উদ্ধার আড়াই মাসের মিষ্টি কুমড় চাষে লাভ হলো ৩৫ লাখ টাকা জাবির ভিসি প্যানেল নির্বাচন আজ, অংশ নিচ্ছে আ’লীগের ৩ গ্রুপ ড্রোন উড়ানো কেন নিষিদ্ধ করতে বাধ্য হলো সংযুক্ত আরব আমিরাত পারমাণবিক কেন্দ্র রুশ বাহিনীর দখলমুক্ত করতে বিশ্বের প্রতি জেলেনস্কির আহ্বান ফতুল্লায় চালককে ছুরিকাঘাতে খুন করে মিশুক ছিনতাই ফতুল্লায় বাল্কহেডের ধাক্কায় যাত্রীবাহী ট্রলারডুবি ইউক্রেন নয় ন্যাটোর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে রাশিয়া : মস্কো ইউক্রেনের পরমাণু কেন্দ্রে ফের বিস্ফোরণ

সকল