১৭ অক্টোবর ২০১৯

বন্ধ হোক সহিংসতা

-

নারী আজ ঘর-বাহির সামলাচ্ছে সমান দক্ষতায়। সব পেশাতেই নারী রাখছে প্রতিভার স্বাক্ষর। তারপরও নারীর প্রতি সহিংসতা কমছে না। নানাভাবে নির্যাতিত হচ্ছে নারী। এসব নিয়ে লিখেছেন
শারমিন সেলিম তুলি
একবিংশ শতাব্দীতে এসে নারীর জীবনযাত্রা আজ অনেকটাই বদলে গেছে। নারী এখন আধুনিক। কর্মজীবনে, সংসারে, রাজনীতিতে, সামাজিকতায়Ñ সব ক্ষেত্রে নারী জীবনে এনেছে নতুন পরিভাষা। পরিবার থেকে মেয়েদের শিক্ষার বিষয়টি গুরুত্ব পাচ্ছে। রাষ্ট্রর পক্ষ থেকে মেয়েদের শিক্ষার জন্য রাখা হচ্ছে বিভিন্ন কর্মসূচি। নারীকে কর্মসংস্থান ও উদ্যোক্তা হিসেবে স্বাবলম্বী হতে রাষ্ট্র থেকে দেয়া হচ্ছে নানারকম সুযোগ-সুবিধা। শিক্ষায়, সংস্কৃতিতে, খেলাধুলায়, প্রশাসনিক কাজে, রাজনৈতিক ও সামাজিক কর্মকাণ্ডে, বিজ্ঞানী, চিকিৎসক, বৈমানিক, প্রকৌশলী, আইনজীবী, পর্বত বিজয়ী এমনকি প্রতিরক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত আছে নারীরা। সফলতার শিখর ছুঁয়েছে আজকের নারীরা। পোশাক শিল্প, চামড়া ও পাটজাত শিল্প, কৃষি, কলকারখানা, মৎস্য, চা শিল্প, মৃৎশিল্প ও কুটির শিল্পে নারীদের অংশগ্রহণ ও সফলতা প্রশংসিত। কিন্তু এর বাইরের চিত্রটাও ভয়াবহ। নারীর প্রতি সহিংসতার মাত্রায় এসেছে কি কোনো পরিবর্তন? বরং এই সহিংসতা দিন দিন বেড়েই চলেছে। চলন্ত বাসে ধর্ষণ, গণধর্ষণ, যৌন নিপীড়ন, কন্যাশিশু ধর্ষণ, হত্যা, নারীকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যা, কন্যাশিশু ও নারীকে নৃশংসভাবে হত্যা, নানা ভাবে চলছে নারীর প্রতি অত্যাচার, যৌতুকের জন্য নির্যাতন, ব্ল্যাকমেইল, অপহরণ, হয়রানি, সম্পত্তির জন্য খুন হতে হয় নারীকে। শিশু থেকে বৃদ্ধ সব বয়সী নারীই এই সহিংসতার শিকার হচ্ছে। সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের বিস্ময়কর সাফল্যের পেছনে নারীর অগ্রগতি বড় ভূমিকা রাখলেও নির্যাতনের পরিসংখ্যানে নারীর অবস্থা তেমন বদলায়নি। সবচেয়ে বেশি নির্যাতিত হচ্ছে নারী তার আত্মীয় স্বজন, স্বামী-সন্তান, শিক্ষক, বন্ধু, প্রতিবেশী ও সহকর্মীর মাধ্যমে। নারীকে মানুষ হিসেবে মাথা তুলে দাঁড়াতে হলে বাইরে বেরুতে হবে। আর বাইরে যদি প্রতি মুহূর্ত তার অন্তরে নিগৃহীত, লাঞ্ছিত, ধর্ষিত, নিহত হওয়ার ভয় নিয়ে পথ চলতে হয়, তখন সে কিভাবে সামনে এগিয়ে যাবে। এসব সহিংসতা নারীর জীবনকে দুর্বিষহ করে তোলে। হরহামেশাই নারী শারীরিক, মানসিক ও অর্থনৈতিক ক্ষতির শিকার হয়। শুধু আইন দিয়ে নারীকে সুরক্ষা দেয়া যাবে না। নারীর সুরক্ষার ও নারীর প্রতি সহিংসা প্রতিরোধে ব্যক্তি থেকে সমাজ, প্রাতিষ্ঠানিক ও রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে নিজে নির্যাতন থেকে দূরে থাকলেই চলবে না, সেই সাথে আমাদের আশপাশে ঘটে যাওয়া যেকোনো নির্যাতনেরই প্রতিবাদ করতে হবে। সম্মিলিতভাবে রুখে দাঁড়াতে হবে। পারিবারিক, প্রাতিষ্ঠানিক, ধর্মীয় শিক্ষা ও সামাজিক শিক্ষার প্রয়োজন আছে। প্রয়োজন আইনের যথাযথ প্রয়োগও দোষীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা। নাগরিকদের আইন সম্পর্কে অবগত করতে হবে। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে আমাদের শিক্ষা ক্যারিকুলামের পাশাপাশি অতিরিক্ত ইস্যুগুলো যুক্ত করতে হবে। বিচারব্যবস্থায় দীর্ঘ সময় লেগে যাওয়া এবং হঠাৎ করে বিচার বন্ধ হয়ে যাওয়া নির্যাতনের শিকার কত নারীর জীবন ধ্বংস করে দিচ্ছে, আর নারীকে অধস্তন হিসেবে দেখা, ইভটিজিং, নারীবিদ্বেষী কৌতুক, পর্নোগ্রাফিতে নারীকে অশ্লীলভাবে উপস্থাপন করা, নারীকে তাচ্ছিল্য করে কথা বলা, এ ধরনের কম গুরুত্বের বলে বিবেচিত উপাদানগুলো শেষতক গুরুতর অপরাধে গিয়ে পৌঁছায়। যা নারীর জীবনে ভয়াবহ পরিণতি ডেকে নিয়ে আসে। নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে ব্যক্তি, পরিবার থেকে কাজ শুরু করতে হবে। ব্যক্তি, পরিবার তারপর সমাজ। সহিংসতাবিরোধী সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নেই। তার এ কাজ কেবল নারী নেতৃত্বের নয়। যেহেতু এটি একটি সামাজিক আন্দোলন, সেহেতু সব মানুষের এগিয়ে আসা ছাড়া সফল হওয়ার সম্ভাবনা নেই। নারী নির্যাতন প্রতিরোধে এভাবেই এগোতে হবে। তা না হলে দেশের অগ্রগতি ও উন্নয়ন স্থবির হয়ে পড়বে। কারণ বাংলাদেশের নারীসমাজ দেশের অর্থনীতির উন্নয়নে বড় ভূমিকা পালন করে আসছে। দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে নারীদের অবদান অনেক। সেই দেশে নারী তার প্রাপ্য সম্মান, মর্যাদা, অধিকার ও সুরক্ষা থেকে কেন বঞ্চিত হবে? কবে নারী তার প্রাপ্য অধিকার পাবে সেদিনের অপেক্ষায় আছে নারীসমাজ।

 


আরো সংবাদ

ট্রাম্পের 'অতুলনীয় জ্ঞানের' সিদ্ধান্তে বদলে গেল সিরিয়া যুদ্ধের চিত্র (৩২১৮৮)ভারতের সাথে তোষামোদির সম্পর্ক চাচ্ছে না বিএনপি (১৮৪৫৫)মেডিকেলে চান্স পেলো রাজমিস্ত্রির মেয়ে জাকিয়া সুলতানা (১৪৯৪৬)তুরস্ককে নিজ ভূখণ্ডের জন্য লড়াই করতে দিন : ট্রাম্প (১৪৭০৩)আবরারকে টর্চার সেলে ডেকে নিয়েছিল নাজমুস সাদাত : নির্যাতনের ভয়ঙ্কর বর্ণনা (১৩৮১৫)পাকিস্তানকে পানি দেব না : মোদি (১১২৭৪)১১৭ দেশের মধ্যে ১০২ : ক্ষুধা সূচকে বাংলাদেশ-পাকিস্তানের চেয়ে পিছিয়ে ভারত (৮৯৭০)তুহিনকে বাবার কোলে পরিবারের সদস্যরা হত্যা করেছে : পুলিশ (৮৮৮৫)বাঁচার লড়াই করছে ভারতে জীবন্ত কবর দেয়া মেয়ে শিশুটি (৮৬৮৭)এক ভাই মেডিকেলে আরেক ভাই ঢাবিতে (৮৫২৩)



astropay bozdurmak istiyorum
portugal golden visa