২২ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৪, ১ সফর ১৪৩৯
আমিও বলতে চাই

নারীর কাব্য

-

সে দিন দুপুরবেলায় যখন ফার্মেসি বন্ধ করছি, ঠিক ওই সময়ে দুই আগন্তুক এলেন কাস্টমার হয়ে। দু’জনেই মধ্যবয়সের। দু’জনেই নারী। জানলাম তারা জন্মসূত্রে বোন। একজন সুস্থ হাতে প্রেসক্রিপশন নিয়ে দাঁড়িয়ে থাকলেও অন্যজন অসুস্থ। ভীষণ অসুস্থ। প্রেসক্রিপশন পর্যবেক্ষণ করে দেখলাম সবই ব্যথানাশক মেডিসিন লিখেছেন ডাক্তার সোহরাব। সাথে ক্ষতস্থান ওয়াশ করার লিকুইড সামগ্রী।
জানতে চাইলাম কিসের এত ব্যথা! কিন্তু আমাকে যা শোনানো হলো, আমি আহত হলাম। সাংসারিক ঝুটঝামেলায় ভদ্রমহিলাকে তার মেজো ছেলে বাঁশ না কী দিয়ে যেনো বেদম পিটিয়ে বাড়িতে বিশৃঙ্খল পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। বলতে বলতে ভদ্রমহিলা কেঁদে ফেললেন।
ঘড়ির কাঁটায় সোয়া ৩টা। লাঞ্চ শেষে বিছানায় এসেছি। মনে পড়ল সেই ভদ্রমহিলাকে। বাড়িতে তাদের এখন কী পরিবেশ কে জানে! মাকে পিটিয়ে সেই বেয়াদবের এখন মানসিক প্রতিক্রিয়া কী, জানি না। হয়তো সে মায়ের কাছে এসে নত কণ্ঠে ক্ষমা চেয়েছে, হয়তো চায়নি।
পরিবারের মেজো ছেলেরা সব সময় ত্যাড়া হয়, আমি এই ধারণায় বিশ্বাসী নই। বেয়াদব চিরকালই বেয়াদব। তার জন্ম সিরিয়ালে বড়, মেজো, সেজো হওয়া লাগে না।
গ্রাম বাংলার প্রতিটি ঘরে বিবাদ আছেই। কিন্তু বিবাদের রেশ ধরে মায়ের গায়ে হাত তোলা, চিন্তাই করা যায় না। আমি একবার আমার দূরাত্মীয় এক চাচীর প্রসব বেদনার চিৎকার শুনেছি ঘরের কোণ থেকে। আমার বিশ্বাস ওই চিৎকার প্রতিটি সন্তান শুনতে পেলে তারা কখনো মায়ের গায়ে হাত তোলার কথা ভাবতেই পারত না।
পেশাগত দিক থেকে আমি একজন কেমিস্ট। অনেক গর্ভবতী মা আমার কাছে আসেন প্রেসক্রিপশন হাতে নিয়ে। চিকিৎসকেরা ওই সব প্রেসক্রিপশনে ওই সময়ে কী কী সাবধানতার থেরাপি লিখেন, তা আমি জানি। প্রতিটি মায়ের ওই সাবধানতা অক্ষরে অক্ষরে পালন করে একটি সন্তানকে ১০ মাস পর পৃথিবীতে আনেন। যেনো মা হতে গিয়ে পৃথিবীর এসব নিয়মের কাছে তার দায় ঠেকে গেছে। আবার মাসিক (পিরিয়ড) চলাকালীন ওসব নারীকে কী পরিমাণ যন্ত্রণায় ভুগতে হয়, তা-ও আমি জানি। ফার্মাসিস্ট হতে গিয়ে আমাকে সেসব শেখতে হয়েছে।
আম্মার সাথে আমারও রাগ হয়। অভিমান হয়। ক্রোধ জমে মনে। কিন্তু তার গায়ে হাত তোলার নির্লজ্জ সাহস হয় না। দু’জন নারীকে আমি কোনো দিনও অবহেলা করব না। একজন আমার মা, অন্যজন আমার স্ত্রী। কারণ একজন মা তার জীবনের সব আলোর সাথে কঠিন যুদ্ধ করে আমাকে পৃথিবীর আলো দেখিয়েছেন, আর অন্যজন তার জীবনের সব আলো ফেলে দিয়ে আমার ভুবনে চিরদিনের জন্য চলে এসেছে শান্তির আলো জ্বালাতে।
প্রতিটি সন্তানের কাছে তার মাকে আর প্রতিটি স্বামীর কাছে যদি তার স্ত্রীকে একজন আলোকিত নারী মনে হতো, তাহলে আমাদের এই দেশে ‘নারী নির্যাতন’ বলে কোনো কলঙ্কই থাকত না।
জোবায়ের রাজু
আমিশাপাড়া, নোয়াখালী


আরো সংবাদ

আমদানি করা ফলে কেমিক্যাল টেস্টের অগ্রগতি জানাতে সময় বেঁধে দিলেন হাইকোর্ট ভয়ঙ্কর সুন্দর! কিশোরীকে উত্যক্ত করায় যুবককে হত্যার অভিযোগ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের হামলার পর ২য় দিনও মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রদল ফুলবাড়ী সীমান্তের জিরো পয়েন্টে বিএসএফের কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ বরিশালে ২ ট্রলারের সংঘর্ষে ছেলের মৃত্যু, বাবা নিখোঁজ মাগুরায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু, আটক ২ ফরিদপুরে ইজিবাইক নিয়ন্ত্রণে অভিযান : অটোরিকশারও ছাড় নেই ভালুকায় পেপার মিলের রুলারে পিষ্ট হয়ে শ্রমিক নিহত রবির কাছে বিটিআরসির পাওনা : হাইকোর্টের আদেশ বৃহস্পতিবার ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের পর কালো ধোঁয়ায় ছেয়ে গেছে অকল্যান্ড নগরী

সকল




portugal golden visa
paykwik