০৯ ডিসেম্বর ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্র-চীন বাণিজ্যযুদ্ধের সমাধান না হলে সশস্ত্রযুদ্ধ হতে পারে : কিসিঞ্জার

হেনরি কিসিঞ্জার - ছবি : সংগৃহীত

যুক্তরাষ্ট্র ও চীন যদি তাদের মধ্যকার বাণিজ্যযুদ্ধ সমাধানে ব্যর্থ হয় তাহলে তা এক সশস্ত্র যুদ্ধে রূপ নিতে পারে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী, বহুল আলোচিত কূটনীতিক হেনরি কিসিঞ্জার। গতকাল বৃহস্পতিবার অর্থনীতির এই দুই জায়ান্ট দেশের ভবিষ্যত নিয়ে ব্লুমবার্গ নিউ ইকোনমি ফোরামের সম্মেলনে যোগ দিয়েছেন বেইজিংয়ে। সেখানেই গতকাল বৃহস্পতিবার এমন গুরুগম্ভীর মন্তব্য করেন কিসিঞ্জার।

ওয়াশিংটন ও বেইজিংয়ের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ককে স্বাভাবিক করার মিশনে রয়েছেন তিনি। কিসিঞ্জার বলেছেন, বাধাহীনভাবে যদি দুই দেশের মধ্যে এই (বাণিজ্যিক) যুদ্ধ চলতেই দেয়া হয় তা হলে এর ফল হবে আরো বেশি ভয়ানক। ইউরোপে যেমনটা হয়েছিল তার চেয়েও খারাপ হবে। তুলনামূলক একটি ছোট সঙ্কটের কারণে ওই সময় প্রথম বিশ্বযুদ্ধ হয়েছিল। কিন্তু এখনকার অস্ত্রশস্ত্র আরো শক্তিশালী।

উল্লেখ্য, প্রায় দেড় বছর ধরে বাণিজ্যযুদ্ধ চলছে চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে। এ সমস্যার সমাধান করার জন্য উভয়পক্ষ ধারাবাহিক সমঝোতায় বসেছে, যাতে একটি চুক্তিতে পৌঁছা যায়। কিন্তু তাতে কোনো কাজ হচ্ছে না। পাশাপাশি কূটনৈতিক ফ্রন্টের দিক থেকেও উত্তেজনা তুঙ্গে পৌঁছেছে। বিতর্কিত দক্ষিণ চীন সাগরে যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর অপারেশন নিয়ে ওয়াশিংটনের কড়া সমালোচনা করেছে বেইজিং। অন্য দিকে জাতিগত উইঘুরদের গণহারে বন্দী করার জন্য চীনের কড়া সমালোচনা করে যুক্তরাষ্ট্র। আবার হংকংয়ে গণতন্ত্রপন্থীরা যে বিক্ষোভ করছে তাতে রয়েছে মার্কিন কংগ্রেসের সমর্থন।
হেনরি কিসিঞ্জার বলেন, বড় একটি অর্থনীতির দেশ চীন। আমরা মার্কিনিরাও। তাই বিশ্বজুড়ে আমরা একে অন্যের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় লিপ্ত। ৯৬ বছর বয়সী যুক্তরাষ্ট্রের বহুল আলোচিত এই কূটনীতিক বলেন, যুক্তরাষ্ট্র ও সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের মধ্যে স্নায়ুযুদ্ধ চলাকালে একটি পরিকল্পনা নেয়া হয়েছিল। তার উদ্দেশ্য ছিল দুই দেশের পারমাণবিক সক্ষমতাকে কমিয়ে আনা। এটাই ছিল শীর্ষ অগ্রাধিকার। তবে চীনের সাথে সামরিক শক্তির বিষয়ে চুক্তির কোনো ফ্রেমওয়ার্ক নেই। যদি দু’পক্ষই বিশ্বজুড়ে প্রতিটি ইস্যুতে একে অন্যের সাথে সঙ্ঘাত দেখতেই থাকে তাহলে তা হতে পারে মানবজাতির জন্য এক বিপজ্জনক বিষয়। যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে সঙ্ঘাতময় অবস্থা নিয়ে সমঝোতার ক্ষেত্রে বাণিজ্য সমঝোতা কেবল একটি বিকল্প।

এ সময় তার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল চীনের আধা স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চলগুলোর অস্থিরতা নতুন একটি স্নায়ুযুদ্ধের কারণ হতে পারে কি না। জবাবে হেনরি কিসিঞ্জার বলেন, তিনি আশা করেন অতি উচ্চ আবেগপ্রবণ ইস্যুগুলোও সমঝোতার মাধ্যমে সমাধান করা যায়। যুক্তরাষ্ট্র ও তখনকার কমিউনিস্ট চীনের মধ্যে একটি নতুন সম্পর্ক স্থাপনের আলোচনা শুরু করতে ১৯৭১ সালে গোপনে বেইজিং সফর করেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সনের এই পররাষ্ট্রমন্ত্রী। গত বছর নভেম্বরে চীনের রাজধানী বেইজিংয়ে প্রেসিডেন্ট সি জিনপিংয়ের সাথে বৈঠক করেন তিনি।

সূত্র : এএফপি 


আরো সংবাদ




Paykwik Paykasa
Paykwik