১৮ জানুয়ারি ২০২০

ইরানের সাথে যুদ্ধের জন্য আমেরিকা প্রস্তুত

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প - ফাইল ছবি

শনিবার সৌদি আরবের পূর্বাঞ্চলে দু-দুটি পেট্রোলিয়াম কেন্দ্রের উপর ড্রোন হামলার ফলে আঞ্চলিক স্তরে উত্তেজনা বাড়ছে৷ সৌদি রাষ্ট্রীয় আরামকো কোম্পানির এই দুটি স্থাপনা গোটা বিশ্বে পেট্রোলিয়াম সরবরাহের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে এসেছে৷ হামলার ফলে দিনে ৫৭ লাখ ব্যারেল উৎপাদন কমে যাবার কারণে পেট্রোলিয়ামের আচমকা মূল্যবৃদ্ধির আশঙ্কাও দূর হচ্ছে না৷

সেই ধাক্কা সামলাতে আমেরিকা ও সৌদি আরব প্রয়োজনে জরুরি অবস্থার জন্য মজুত তেলের ভাণ্ডার কাজে লাগাতে পারে৷ তবে আন্তর্জাতিক জ্বালানি এজেন্সি আইইএ জানিয়েছে, যে বর্তমান পরিস্থিতিতে পেট্রোলিয়ামের বাজারে সরবরাহে বিঘ্ন ঘটার আশঙ্কা নেই৷

হামলার উৎস সম্পর্কে এখনো স্পষ্ট কোনো প্রমাণ পাওয়া না গেলেও সন্দেহের তীর ইরানের দিকে৷ দক্ষিণে ইয়েমেনে ইরান-সমর্থিত হাউছি বিদ্রোহীরা এই হামলার দায় স্বীকার করলেও এমন দূরপাল্লার জটিল ড্রোন হামলার পেছনে অন্য কোনো শক্তি ছিল বলে সৌদি ও মার্কিন কর্তৃপক্ষ সন্দেহ করছে৷ ইরাকের দক্ষিণ থেকে ড্রোন পাঠানো হয়েছিল, এমন সন্দেহও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না৷ সেখানেও ইরানের যথেষ্ট প্রভাব রয়েছে৷ ইরাকের সরকার অবশ্য এই হামলার সঙ্গে সম্পর্কের অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছে৷

এমন প্রেক্ষাপটে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ইরানের মধ্যে উত্তেজনা আরও বেড়ে চলেছে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প জানিয়েছেন, তার দেশ পাল্টা হামলার জন্য প্রস্তুত৷ রোববার এক টুইটে তিনি লেখেন, ‘সৌদি আরবের তেলের সরবরাহের উপর হামলা হয়েছে৷ আমরা অপরাধীকে চিনি, এমনটা ভাবার কারণ রয়েছে৷'

ট্রাম্প আরও দাবি করেছেন, যে যাবতীয় তথ্য যাচাইয়ের পর আমেরিকা পাল্টা হামলার জন্য প্রস্তুত৷ তবে সৌদি আরবের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে পদক্ষেপ নেওয়া হবে৷

শনিবারের হামলার জন্য হাউছি বিদ্রোহীরা দায় স্বীকার করলেও মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও তাতে বিশ্বাস না করে ইরানকে সরাসরি দায়ী করেছেন৷ এক টুইটে তিনি লেখেন, ‘সৌদি আরবে প্রায় ১০০ হামলার জন্য ইরান দায়ী৷ একই সময়ে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুহাম্মদ জাভেদ জরিফ কূটনীতি নিয়ে ব্যস্ত থাকার ভান করছেন৷

ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্বাস মুসাভি পম্পেও-র অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ইরানের উপর যতটা সম্ভব চাপ সৃষ্টি করার নীতি বিফল হওয়ায় আমেরিকা এখন তার বদলে যতটা সম্ভব মিথ্যাচারের নীতি বেছে নিয়েছে৷ তার দাবি, ইয়েমেনে সৌদি আরবের সামরিক অভিযানের প্রতিশোধ নিতে হাউছি বিদ্রোহীরা এই হামলা চালিয়েছে৷

এই অবস্থায় সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে সংঘাত সত্ত্বেও পুরোপুরি যুদ্ধের আশঙ্কা করছেন না মধ্যপ্রাচ্য বিশেষজ্ঞরা৷ আমেরিকা অবশ্য ইরানের উপর আরও চাপ সৃষ্টি করতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ সংবাদ সংস্থা এএফপি একাধিক বিশেষজ্ঞের মতামত তুলে ধরে এখনই বড়সড় সংঘাতের আশঙ্কা উড়িয়ে দিচ্ছে।


আরো সংবাদ

ফায়ার ফাইটার রোবট বানালেন লিডিং ইউনিভার্সিটির ৭ শিক্ষার্থী ফতুল্লা বায়তুল মদিনা মসজিদে বার্ষিক ওয়াজ মাহফিল আজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ২৬ ডেঙ্গু রোগী শুধুমাত্র পরীক্ষায় ভালো ফলাফলই মুখ্য নয় : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী যৌতুকের টাকা দিতে না পারায় গৃহবধূকে হত্যা বাসাভাড়া দিতে না পারায় গার্মেন্টকর্মীকে ধর্ষণ : বিচার দাবিতে শ্রমিকদের বিক্ষোভ প্রতিবন্ধী শিশুদের শিক্ষা সহায়তায় ‘পরশ’ গাজীপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক নিহত শীতার্তদের পাশে দাঁড়াতে চেষ্টা করছে জামায়াত : মোবারক হোসাইন সন্ত্রাস ও জঙ্গি দমনে সাভারে পুলিশের ব্যাপক সাফল্য রয়েছে : জাবেদ পাটোয়ারি ঢাবি উদ্ভিদবিজ্ঞান অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের পুনর্মিলনী

সকল