১৮ জুন ২০১৯

ডাক্তারের কথা মানেন না ট্রাম্প

ডোনাল্ড ট্রাম্প - ছবি : সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক পরামর্শ দিয়েছিলেন, তার কিছু ডায়েট করা দরকার। এ জন্য তাকে নিয়মিত ব্যায়ামের পাশাপাশি শরীরের ওজন বেশ খানিকটা কমানোর জন্য একটি লক্ষ্যও ঠিক করা দরকার। কিন্তু ট্রাম্প চিকিৎসকের সে কথায় ভ্রুক্ষেপ করেননি। তারপরও স্বাস্থ্য রিপোর্টে দেখা গেছে, ট্রাম্প ভালোই আছেন।


ফাস্টফুড পছন্দ করা এই প্রেসিডেন্ট ব্যায়ামকে মনে করেন শক্তির অপচয়। এভাবে ফাস্টফুড খাওয়া এবং ব্যায়াম না করার কারণে তার স্বাস্থ্যে বেশ নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশঙ্কা করেছিলেন চিকিৎসকরা।

 

ট্রাম্পের আগে বোধ হয় কোনো প্রেসিডেন্টকে নিয়ে এমন সমস্যায় পড়তে হয়নি মার্কিন চিকিৎসকদের। গত বছরই তারা ট্রাম্পের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে তাকে নিয়মিত ব্যায়ামের পরামর্শ দিয়ে ডায়েট চার্ট বাতলে দিয়েছিলেন চিকিৎসকরা। কিন্তু ব্যায়াম বা ডায়েট চার্ট কোনোটিই মানতে নারাজ রিপাবলিকান এই প্রেসিডেন্ট।


হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে প্রেস সেক্রেটারি হোগান গিডলি জানান, গত বছরই প্রেসিডেন্টকে ব্যায়াম ও নিয়ন্ত্রিত খাবারের তালিকা তৈরি করে দেয়া হয়েছিল। ট্রাম্প অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তা মানেননি। কিছু ক্ষেত্রে সামান্য পরিবর্তন করেছিলেন। কিন্তু ৭২ বছর বয়সী একজন ব্যক্তি যার হাই কোলেস্ট্রেরলের সমস্যা রয়েছে, হার্টের সমস্যা রয়েছে, তার যেভাবে খাদ্য তালিকা মেনে চলা উচিত, তার কিছুই তিনি অনুসরণ করেননি।

 

আর তাকে ব্যায়ামের যে পরামর্শ দেয়া হয়েছিল, তা তো পুরোপুরিই উপেক্ষা করে গেছেন ট্রাম্প। বরং খাবারে সবসময় কোক এবং লাল মাংস রাখতে পছন্দ করেন ৪৫তম এ মার্কিন প্রেসিডেন্ট। অন্যদিকে খেলা পছন্দ করেন ধীর গতির খেলা গলফ।


চিকিৎসকরা গত বছর স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর বলেছিলেন, ট্রাম্পের স্বাস্থ্য ভালো রয়েছে, কিন্তু তার শরীরে ব্যাড কোলেস্ট্রেরলের পরিমাণ বাড়ছে। এ থেকে বাঁচতে হলে তাকে অবশ্যই ফাস্ট ফুড বর্জন করে ডায়েট ফুড গ্রহণ করতে হবে। সেই সাথে নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে।

 

কিন্তু সারা বছরই ট্রাম্পের খাবারের আয়োজন বা প্রাত্যাহিক জীবনের যে বর্ণনা গণমাধ্যমে এসেছে তাতে কিন্তু এ ধরনের কোনো পদক্ষেপের কথা শোনা যায়নি। বরং এবার শাটডাউনের প্রভাবে হোয়াইট হাউসে রাধুনির সঙ্কট পড়ায় রীতি ভেঙে চ্যাম্পিয়ন ক্লেমসন বিশ^বিদ্যালয় ফুটবল দলকে বার্গার, ফ্রেঞ্চ ফ্রাই, চিকেন নাগেট ইত্যাদি দিয়ে আপ্যায়ন করান।


অন্যদিকে তাকে ব্যায়ামের যে পরামর্শ দেয়া হয়েছিল, তা তো চরমভাবে উপেক্ষা করেন ট্রাম্প। হোয়াইট হাউজে ট্রাম্পের সাথে কাজ করেন এমন প্রায় এক ডজন সূত্র জানায়, হোয়াইট হাউজে যে ফিটনেস রুম রয়েছে তাতে ট্রাম্প একদিনের জন্যও পা রাখেননি। এর পেছনে তিনি শক্ত একটি যুক্তিও প্রদান করেন।

 

তার মতে ব্যায়াম হলো শক্তির অপচয়। এ ছাড়া ট্রাম্প বিশ্বাস করেন, কোনো ধরনের পরিশ্রমই মানুষের স্বাস্থ্যের জন্য খারাপ। ২০১৫ সালে নিউ ইয়র্ক টাইমসের দেয়া সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেছিলেন, আমার যে সব বন্ধু সারাদিন কাজ করে, তাদের হাঁটুর প্রতিস্থাপন করতে হচ্ছে।


তবে চিকিৎসকরা তাকে নিয়ে চিন্তার পাশাপাশি বিব্রতও। কারণ যথেচ্ছ ফাস্টফুড খাওয়ার পরও ট্রাম্প আপাতত ভালো আছেন বলেই চিকিৎসকদের সর্বশেষ রিপোর্টে বলা হয়েছে। মার্কিন প্রেসিডেন্টের বার্ষিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর একটি চিঠিতে এমনটি জানিয়েছেন প্রধান চিকিৎসক সিন কনলে।


গত শুক্রবার ট্রাম্পের স্বাস্থ্যের বিষয়ে প্রধান চিকিৎসক সিন কনলের স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে বলা হয়, আমি এটি ঘোষণা দিতে পেরে খুবই আনন্দিত, মার্কিন প্রেসিডেন্ট খুবই ভাল আছেন এবং ধারণা করছি তার প্রেসিডেন্ট মেয়াদের পুরোটা সময় এবং তার পরেও তিনি ভাল থাকবেন।

সূত্র : সিএনএন


আরো সংবাদ