২২ জুন ২০১৮

এক বছরে সম্পদ সাড়ে তিনগুন বেড়েছে ট্রাম্প কন্যা ও জামাতার

এক বছরে সম্পদ সাড়ে তিনগুন বেড়েছে ট্রাম্প কন্যা ও জামাতার - সংগৃহীত

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের কন্যা ইভাঙ্কা ট্রাম্প ও তার স্বামী জারেদ কুশনার তাদের সম্পদ বিবরণী প্রকাশ করেছেন। ২০১৭ সালে  কুশনারের  মোট সম্পত্তি ছিল ১৭৪ মিলিয়ন ডলার তা বেড়ে এই বছর হয়েছে ৭১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে। এক বছরে তাদের আয় বেড়েছে প্রায় সাড়ে ৩ গুন। তারা গত বছর ৮ লাখ ২০ লাখ ডলার বেশি আয় করেছেন। সোমবার তাদের সম্পদ বিবরণী প্রকাশ করা হয়। কুশনারের মোট সম্পদ অন্তত ১৭৪ মিলিয়ল ডলারের সমপরিমাণ। 

গত বছর ইভাঙ্কা ট্রাম্প ওয়াশিংটনের ট্রাম্প ইন্টারন্যাশনাল হোটেলে তার শেয়ার থেকে ৩৯ লাখ মার্কিন ডলার আয় করেছেন। ওই সম্পত্তির মূল্য ধরা হয়েছে ৫০ লাখ থেকে ৫ কোটি ডলার। এছাড়া গত বছরের মার্চে ইভাঙ্কা ট্রাম্প বিজনেস ট্রাস্ট নামে নতুন একটি ট্রাস্ট চালু করেন সেখান থেকে তিনি আয় করেন ৫০ লাখ ডলার। ওই ট্রাস্টের মূল্য ৫ কোটি ডলার।

২০১৭ সালে ইভানকার ট্রাম্পের ৫৫ মিলিয়ন ডলার এক লাফে দাঁড়িয়েছে ৭৫ মিলিয়ন ডলারে। রিপোর্টে বলা হচ্ছে রিয়েল স্টেট, ফ্যাশন এবং বিনোয়োগ প্রতিষ্ঠান বাদেও ইভানকারের আয়ের উৎস অনেক।

একইসময় নিউ জার্সির প্লেইসবরোতে মালিকানা পাওয়া কুশনার কস অ্যাপার্টমেন্ট কমপ্লেক্স থেকে ৫০ লাখ মার্কিন ডলার আয় করেছেন। এছাড়া নিউ ইয়র্ক, নিউ জার্সি, ম্যারিল্যান্ড, পেনসিলভানিয়া ও ওহাইওতে অ্যাপার্টমেন্ট ব্যবসা পরিচালনাকারী ওয়েস্টমিনস্টার ম্যানেজমেন্ট থেকে তিনি আয় করেছেন ১৫ লাখ ডলার। তারা দুইজন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের অবৈতনিক সিনিয়র উপদেষ্টা হিসেবে কাজ করেন।

তবে  ইভাঙ্কা ও জামাতা জ্যারোড কুশনারের সম্পদের সঠিক অংকটা কোথাও সুনির্দিষ্ট করে দেয়া নাই। অনেক জায়গায় আছে ১ লাখ ডলার থেকে ১০ লাখ ডলারের মধ্যে। এই সম্পদের দীর্ঘ হিসেব ৫ কোটি ডলার পর্যন্ত।

২০১৬ সালে মার্কিন নির্বাচনে জয়ী হয়ে ট্রাম্প মেয়ে ইভাঙ্কা এবং জামাতাকে হোয়াইট হাউসের সহকারী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছিলেন। পরে জ্যারোড কুশনারকে উপদেষ্টা পদ থেকে সরিয়ে দেয় ট্রাম্প। ইভাঙ্কার ফ্যাশন ব্যবসার পাশাপাশি বাবার বৈশ্বিক রিয়েল এস্টেট ব্যবসার সঙ্গেও জড়িত ছিলেন।

হিলারির পথে ট্রাম্পকন্যা ইভাঙ্কা!

নিয়মের ব্যত্যয় ঘটিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালে সরকারি কাজে ব্যক্তিগত ইমেইল ব্যবহার করার অভিযোগে ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে বারংবার অভিযুক্ত করেছেন ট্রাম্প। এখন সে পথেই হাঁটছেন ট্রাম্পের মেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্প।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ঘনিষ্ঠ উপদেষ্টাদের মধ্যে অন্তত ছয়জন হোয়াইট হাউজ বিষয়ক আলাপ-আলোচনা চালাতে নিজেদের ব্যক্তিগত ইমেইল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করেছেন। নিউ ইয়র্ক টাইমস এই ছয়জনের নাম প্রকাশ করেছে, যার মধ্যে রয়েছেন ট্রাম্পের মেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্প। এজন্য তিনি এমনকি কয়েকবারই হিলারি ক্লিনটনকে কারাদণ্ডের মতো শাস্তি দেয়ার দাবি তুলেছিলেন।

এ দিকে নিউজউইক ম্যাগাজিন জানিয়েছে, এক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের কাছে সহযোগিতা চেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্পের পাঠানো একটি মেইল ও দুইজন ফেডারেল কর্মকর্তাকে সেই মেইলটির পাঠানো কপির বিস্তারিত তাদের হাতে রয়েছে। এর আগে রোববার প্রকাশ পায় ইভাঙ্কা ট্রাম্পের স্বামী এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের সিনিয়র উপদেষ্টা জারেড কুশনারের ব্যক্তিগত ইমেইল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে সরকারি কর্মকাণ্ড পরিচালনার বিষয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। ডেমোক্র্যাট সিনিয়র কংগ্রেসম্যান এলিজাহ কামিংস কুশনারের কাছে চিঠি লিখে অনুরোধ জানিয়ছেন তিনি যেন তার সব ধরনের ব্যক্তিগত ইমেইল সংরক্ষণ করেন।


আরো সংবাদ