২৩ জুন ২০১৮

পর্যদুস্ত ও উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র!

পর্যদুস্ত ও উদ্বিগ্ন যুক্তরাষ্ট্র! - সংগৃহীত

জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদে ইসরাইলি নাগরিকদের সুরক্ষা দেয়া সংক্রান্ত একটি খসড়া প্রস্তাব উত্থাপন করেছে যুক্তরাষ্ট্র। আর এই প্রস্তাবের পক্ষে নিজের ভোট ছাড়া আর কোনো ভোট পায়নি যুক্তরাষ্ট্র। ওই মার্কিন প্রস্তাবে নিরাপত্তা পরিষদের ১৫ সদস্যের মধ্যে ১১টি দেশ ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিল। রাশিয়া ও অন্য দুটি দেশ প্রস্তাবের বিপক্ষে ভোট দেয়। প্রস্তাবের পক্ষে নিজের ভোট ছাড়া আর কোনো ভোট পায়নি যুক্তরাষ্ট্র। 

মার্কিন প্রস্তাবে ইসরাইলের নাগরিকদের সুরক্ষা দেওয়ার দাবি জানানো হয়। অতি সম্প্রতি অধিকৃত গাজার অন্তত ৩০টি অবস্থানে বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরাইল। শুধু তাই নয়, গত ৩০ মার্চ থেকে প্রায় প্রতিদিনই ইসরাইলি সেনাদের হাতে ফিলিস্তিনের বেসামরিক লোকেরা নিহত হচ্ছে। তা সত্ত্বেও ফিলিস্তিনিদের প্রতিরোধকে আগ্রাসন বলে অভিহিত করেছে যুক্তরাষ্ট্র।  

জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত মার্কিন দূত নিকি হ্যালি বলেছেন, গাজা থেকে যে হামলা চালানো হচ্ছে তার জন্য ফিলিস্তিনের নেতাদের দায়ভার নিতে হবে।  তিনি মন্তব্য করেন, ওই অঞ্চলে শান্তির জন্য হামাস একটি বড় বাধা। 

এদিকে নিউজিল্যান্ডের ওপর চীনের প্রভাব ক্রমে বাড়ছে। দেশটির শীর্ষপর্যায়ের ব্যক্তিদের সাথেও চীনের নীতিনির্ধারকদের ঘনিষ্ঠতা রয়েছে। এছাড়া উভয় দেশের বাণিজ্যিক সম্পর্কও অত্যন্ত দৃঢ়। সম্প্রতি চীন-নিউজিল্যান্ডের এ ঘনিষ্ঠতার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডাসহ কয়েকটি পশ্চিমা দেশ।

এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের প্রভাব বলয়ে চলে যাচ্ছে প্রশান্ত মহাসগরীয় দেশ নিউজিল্যান্ড। সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিকভাবে দেশটিকে ক্রমেই গ্রাস করে নিচ্ছে চীন। নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে চীনের সম্পর্ককে এরই মধ্যে জিনপিং ‘দৃষ্টান্তস্বরূপ’ বলে অভিহিত করেছেন।’

মার্কিন কংগ্রেসের ‘যুক্তরাষ্ট্র-চীন অর্থনৈতিক ও নিরাপত্তাবিষয়ক মূল্যায়ন কমিশনের’ কাছে দেয়া বক্তব্যে সিআইয়ের পিটার ম্যাটিস মন্তব্য করেছেন, নিউজিল্যান্ডের সব দলেরই চীনের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্নের নেতৃত্বাধীন লেবার পার্টি চীনা কমিউনিস্ট পার্টির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের কাছ থেকে অর্থ নিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা ও নিউজিল্যান্ডের সমন্বয়ে গঠিত নজরদারি সংস্থা ‘ফাইভ আই’-এর যৌথ এক গোয়েন্দা প্রতিবেদনেও উভয় দেশের এ সম্পর্কের বিষয়ে হুশিয়ারি দেয়া হয়েছে।

কানাডার গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিউজিল্যান্ডের রাজনীতিতে চীনের হস্তক্ষেপ সম্প্রতি ‘আশঙ্কাজনক’ পর্যায়ে পৌঁছেছে। চীনকে বিশ্বদরবারে অপ্রতিরোধ্য হিসেবে তুলে ধরতে বহুমুখী কৌশল নিয়ে এগোচ্ছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং।

অন্যদিকে ইউরোপের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার করতে জার্মানিতে শক্তিশালী ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করতে চাইছে যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী। ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার করার জন্য পেন্টাগন ইউরোপে টার্মিনাল হাই অ্যালটিটুড এরিয়া ডিফেন্স (থাড) ক্ষেপণাস্ত্র-বিধ্বংসী সিস্টেম মোতায়েন করা নিয়ে আলোচনা করেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ইউরোপীয় কমান্ড বহু বছর ধরেই ইউরোপে থাড সিস্টেম মোতায়েনের জন্য চাপ দিয়ে আসছে বলে জানা গেছে। আর জার্মান কর্মকর্তারাও এ ব্যবস্থা মোতায়েনে কোনো আপত্তি নেই। ইউরোপে মার্কিন বিমান বাহিনী এবং নেটো জোটের এয়ার কমান্ডের সদরদপ্তরে থাড সিস্টেম নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে জার্মানির সামরিক কর্মকর্তাদের সঙ্গে প্রাথমিক আলোচনাও ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন এক সামরিক কর্মকর্তা।

ইরানের শাহাব-৩ ক্ষেপণাস্ত্র ২ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে দক্ষিণ ইউরোপে আঘাত হানতে সক্ষম। ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ড বলেছে, তারা কোনো হুমকি পেলে ক্ষেপণাস্ত্রের পাল্লা আরো বাড়াবে। এ ধরনের হুমকি মোকাবেলাতেই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা জোরদার করা হয়েছে।

 


আরো সংবাদ