২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ব্রিটিশ গণমাধ্যম ঘৃণা করে মেগান মার্কেলকে?

দুই বছর আগে অভিনেত্রী মেগান মার্কেল ব্রিটিশ প্রেসের কাছে পছন্দের পাত্রী ছিলেন। তারা মেগানের ব্যাপারে বেশ উৎসাহী ছিল। তারা দাবী করেছিলো যে, তার মত কাউকে ব্রিটিশ রাজ পরিবারে তারা কখনো দেখেনি। কিন্তু সেই মেগান কীভাবে হিরোইন থেকে ভিলেন হয়ে গেলেন প্রেসের কাছে?

জুলাই এর ৬ তারিখে প্রিন্স হ্যারি এবং মেগান মার্কেল ছেলে আর্চি হ্যারিসনকে উইন্ডসর ক্যাসেলের কাছে একটা চার্চে খ্রিষ্ট দীক্ষায় দীক্ষিত করা হয়। দীর্ঘ দিনের প্রথার বাইরে গিয়ে প্রকাশ্যে অনুষ্ঠানের পরিবর্তে এটি অনুষ্ঠিত হয় রুদ্ধদ্বারে। এ ঘটনা মেগানের বিরুদ্ধে কঠোর সমালোচনা তৈরি করে।

এই সপ্তাহের পত্রিকাগুলোতেও মেগানকে তেমন সহজ ভাবে নেয়া হয়নি। ভোগ ম্যাগাজিনের অতিথি সম্পাদক হিসেবে কাজ করার জন্য তার সমালোচনা করেছে ট্যাবলয়েড পত্রিকাগুলো।

অনেকেই দাবি করেছেন যে, তার এমন সিদ্ধান্তকে 'নির্বুদ্ধিতা' বলে মনে করতে পারেন রানী এলিজাবেথ। 'ট্রেইলব্লেজারস' এর একটি তালিকায় রানীর নাম না রাখার জন্য মেগানের কঠোর সমালোচনা করেছে দ্যা সান পত্রিকা। অন্যদিকে দ্যা ডেইলি মেইল সতর্ক করে বলছে, মেগানের উচিত রাজনীতি থেকে দূরে থাকা।

এসব কারণেই, ২০১৯ সালের বসন্ত এবং গ্রীষ্মে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েডগুলোর প্রকাশনায় নিজেকে নারী ভিলেন হিসেবে খুঁজে পেয়েছেন ডাচেস অব সাসেক্স। দুই বছর আগেও প্রেস থেকে তার সাথে মহান সহানুভূতি নিয়ে সাক্ষাত করতো। কিন্তু এখন মেগান নিজেকে প্রতিটা মুহূর্তে আক্রমণের শিকার হচ্ছেন বলে মনে করছেন। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের মধ্যে একটি তিনি রাজপরিবারে খাপ খাওয়াতে পারছেন না।

দ্যা পারফেক্ট ডাচেস

২০১৭ সালের বসন্ত সংখ্যায় ব্রিটিশ প্রেসের কাছে মেগান ছিলেন প্রিয় পাত্রী। প্রিন্স হ্যারির সাথে তার প্রথম বারের প্রকাশ্যে ছবি আসলে দ্যা সানের মত পত্রিকা সেটির কাব্যিক বর্ণনা দিয়েছিল। পড়ুয়া বড় ভাই উইলিয়ামের বিপরীত হ্যারির সম্পর্কে সব সময় ড্রাগ এবং ওয়াইল্ড পার্টি করার খবর আসতো ম্যাগাজিনে।

কিন্তু সেসব কিছু ব্রিটিশ প্রেস মাফ করে ভুলে যাওয়ার জন্য উদগ্রীব ছিল। তারা মেগানকে পছন্দ করতো। সমাজের সব পরিবর্তনের ব্যাপারে তার একটা নিজস্বতা রয়েছে। গত বছরে টাবলয়েডগুলো তার সম্পর্কে বিদ্রূপ করে লিখলেও সহানুভূতির সুরটা ধরে রাখে।

প্রথমত মেগানের বাবা বিয়েতে আসতে পারেনি, আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয় তিনি অসুস্থ। তারপর মেগান বিয়েতে যে মুকুট বা টায়রা পরতে চেয়েছিলেন রানী সেটাতে রাজী হননি।

কারণ ধারণা করা হয়েছিল সেটা রাশিয়ার তৈরি। সময়টা ছিল এমন যখন সার্গেই এবং ইউলিয়া স্ক্রিপালকে বিষ প্রয়োগ করা হয়েছে এমন একটা খবর উঠছিল। রানী চাননি কোনভাবে বিয়ের দিন রাজনৈতিক বা নেতিবাচক কোন পরিস্থিতি তৈরি হয়।

এই বছরের বসন্ত এবং গ্রীষ্মকালীন সংখ্যায় তাদের প্রথম সন্তান হওয়ার পরেও তিনি ব্রিটিশ প্রেসের অন্যতম সমালোচিত ব্যক্তি হিসেবে নিজেকে আবিষ্কার করলেন। এখন তার সবকিছুতে এমনকি তার ঘর মেরামতের জন্য বড় অংকের অর্থ খরচ, সাধারণ মানুষের সাথে তার ব্যবহার, প্রকাশ্যে সে কীভাবে আসছে, তার সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার সব কিছুতেই একরকম জ্বালাতনের শিকার হচ্ছেন।

আদর্শ লক্ষ্যবস্তু

অভিযোগের তালিকা:

১. নব দম্পতি তাদের ফ্রগমোর কটেজ মেরামতের জন্য ২.৪ মিলিয়ন পাউন্ড খরচ করে যেটা ব্রিটিশ করদাতাদের পকেট থেকে গেছে।

২. মেগানের এনগেজমেন্ট রিঙ এ তিনটি ডায়মন্ড ছিল। এর দুইটি ডায়ানার। আর একটি হ্যারি বতসোয়ানা থেকে নিয়েছিলেন কারণ সেখানে তারা প্রথম ছুটি কাটান। হ্যারি নিজে এই আংটি ডিজাইন করেছিলেন। বিয়ের এক বছর পর মেগান রিং টি আবারো ডিজাইন করার সিদ্ধান্ত নেন এবং আরো ডায়মন্ড যুক্ত রিং দেখা গেল তার হাতে। এটা নিয়ে অনেকেই বিরক্তি প্রকাশ করেন।

৩. এরপর তিনজন কর্মীকে ছাটাই করার অভিযোগ এসে পড়ে মেগানের উপর।

৪. আর্চির ছবি তারা ইন্সটাগ্রামে প্রকাশ করার সিদ্ধান্ত নেন। সেটা নিয়ে মিরর ব্যাপক সমালোচনা করে।

বাকিংহ্যাম প্যালেস এসব নিয়ে মন্তব্য করেনি।

বিবিসির রাজপরিবার বিষয়ক সংবাদদাতা জনি ডায়মন্ড বলছেন "রাজকীয় জীবন হল এক হাতে প্যালেস, খ্যাতি। কিন্তু তারকাদের চেয়ে এর বড় পার্থক্য হল এর একটা দায়িত্ব আছে। আপনি প্লেনে উঠলেন এবং ছুটি কাটাতে চলে গেলেন এমনটা হবে না। এই জীবনের নির্দিষ্ট কিছু নিয়ম রয়েছে"।

রাজপরিবারের কেউ সাধারণ মানুষের সাথে বিবাদে জড়াবে না। কিন্তু মেগান এবং প্রিন্স হ্যারিকে একবার দেখা গেছে "গভীর আলাপচারিতায়"। তারা অটোগ্রাফ দিতে পারবেন না কিন্তু মেগান খুশি মনেই সেটা করতে থাকেন। মেগানকে দেখে মনে হয় সে নতুন করে নিয়মগুলো লিখতে চান কিন্তু কিছু মানুষ আছে যারা সেগুলো ঘৃণা করে।

ডায়মন্ডের মতে ম্যাগাজিনগুলোর একটা ভূমিকা রয়েছে মেগানের পাবলিক ইমেজ তৈরির পিছনে। তিনি বলছিলেন "গল্পের শুরুটা হয়েছে মেগান যখন এখানে এসেছে তখন থেকে। এখন তাদের এই বর্ণনা চালিয়ে যেতে হবে"।

নিখুঁত ভিলেন

ম্যাগাজিনগুলো অনেক সময় পরিবারের এক সদস্যের বিরুদ্ধে এসব লেখে যাতে করে সংকট আরো বাড়তে পারে। রানী এলিজাবেথকে দেখানো হয়েছে স্বচ্ছন্দে দীর্ঘ সময় ধরে তিনি তার দায়িত্ব কতটা নিবিড় ভাবে পালন করে আসছেন।

একই সময়ে তার বোন প্রিন্সেস মার্গারেট ছিলেন উল্টো। তার প্রেমিক, ধূমপান করা, মদপান, পার্টি করা এমনকি গোসল করার পোশাকে দেখা গেছে।

প্রিন্সেস ডায়ানার সময় তার নম্রতার জন্য তার ব্যাপক প্রশংসা করা হত কিন্তু তার ভালো বন্ধু সারা ফারগুসন যখন ডাচেস অব ইয়র্ক হলেন তখন তারা একই রকম আচরণ করেনি।

এখন শুরু হয়েছে কেট মিডলটন এবং মেগানের মধ্যে। কেটের ইমেজ তৈরি হয়েছে নিখুঁত এবং "জন্মগত ভাবে মা" হিসেবে। কিন্তু যখন মেগানের প্রসঙ্গ আসে তখন প্রিন্স ফিলিপের একটা উক্তি অনেকেই আওরায় "একজন অভিনেত্রীর সাথে বাইরে যাওয়া যায়, কিন্তু বিয়ে নয়"।

এখন দাতব্যকাজ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে ফাটল ধরেছে। উইলিয়াম এবং হ্যারির করা যৌথ দাতব্য কাজ থেকে সরে এসেছেন হ্যারি। তারা মনে করছেন হ্যারি এবং মেগান আলাদা করে এটা চালাবেন এবং ভিন্ন ভিন্ন কারণে সেটা কাজ করবে। সূত্র : বিবিসি।


আরো সংবাদ

রিফাত-নয়ন উভয়ের সাথেই সম্পর্ক রাখতেন মিন্নি ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে বিজেপির প্রবীণ নেতা গ্রেফতার কারা পেতেন ক্যাসিনো থেকে আয়ের ভাগ, নাম বলেছেন খালেদ হোয়াইট হাউস থেকে মাত্র দুই মাইল দূরে ছয়জন গুলিবিদ্ধ চাঁপাইনবাবগঞ্জে যুবকের কবজি কাটার অভিযোগে চেয়ারম্যানসহ আটক ২ বিএনপির সময় ক্যাসিনোগুলো ছিল, অ্যাকশন নেয়নি : কাদের জমি লিখে না দেয়ায় বৃদ্ধ বাবাকে মারধর করে পানিতে চুবালো ছেলে শিবগঞ্জে প্রতিবন্ধী স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ দফতরির বিরুদ্ধে দক্ষিণ আফ্রিকা যাওয়ার পথে সড়ক দুর্ঘটনায় ২ সহোদর নিহত ফেসবুক ভেঙ্গে দেয়ার প্রস্তাব , ট্রাম্পকে যা বলেছেন জাকারবার্গ স্কুল শিক্ষকের ছয় স্ত্রী, সংখ্যা আরো বাড়াতে শালিকাকে প্রস্তাব দেয়ার অভিযোগ

সকল




gebze evden eve nakliyat Paykasa buy Instagram likes Paykwik Hesaplı Krediler Hızlı Krediler paykwik bozdurma tubidy