১৭ জুন ২০১৯
নিজেদের রক্ষায় মিত্র খুজছে কুর্দিরা

মানবিজে তুরস্কের সেনাবাহিনীর প্রবেশ

মানবিজে তুরস্কের সেনাবাহিনীর প্রবেশ - সংগৃহীত

মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণার পর সিরিয়ার কুর্দি নিয়ন্ত্রণাধীন মানবিজ অঞ্চলে প্রবেশ করেছে তুরস্কের সেনাবাহিনী। তুরস্কের বার্তাসংস্থা আনাদোলু জানিয়েছে, সেনা সদস্য ও সরঞ্জাম বহনকারী ট্রাক, দুটি ট্যাঙ্ক ও অন্যান্য সাঁজোয়া যান মঙ্গলবার মানবিজের পশ্চিমাঞ্চলীয় আরিমাহ গ্রামে প্রবেশ করে। মানবিজের কেন্দ্রস্থল থেকে গ্রামটির দূরত্ব ২৫ কিলোমিটার।

এদিকে তুরস্কের সম্ভাব্য অভিযানের মুখে নিজেদের নিয়ন্ত্রণাধীণ অঞ্চল রক্ষায় রাশিয়া, সিরিয়ার সরকার ছাড়াও ইউরোপীয় দেশগুলোর সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছে কুর্দিরা।

উল্লেখ্য, মানবিজের নিয়ন্ত্রণ মূলত কুর্দি সংগঠন ওয়াইপিজি নেতৃত্বাধীন সিরিয়ান ডেমোক্র্যাটিক ফোর্সের (এসডিএফ) হাতে। সিরিয়ায় আইএসবিরোধী যুদ্ধে ওয়াইপিজি নেতৃত্বাধীন এসডিএফকে বহুদিন ধরেই সমর্থন দিয়ে আসছে ওয়াশিংটন।

তবে কুর্দিদের বিরুদ্ধে তুরস্কের অভিযোগ দীর্ঘদিনের। দেশটি কুর্দিদের সন্ত্রাসী মনে করে। আঙ্কারার দাবি, সিরিয়ায় কুর্দিদের সংগঠন ওয়াইপিজি আসলে তুরস্কে কুর্দিদের নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন পিকেকের শাখা। কুর্দি জাতীয়তাবাদের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত পিকেকে তুরস্ক, ইরান, ইরাক ও সিরিয়ার অংশবিশেষ নিয়ে কুর্দিস্তান নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় আগ্রহী। তাছাড়া তিন দশক ধরে তুরস্কের বিরুদ্ধে সশস্ত্র সংগ্রামে লিপ্ত রয়েছে পিকেকে। ১৯৮৪ সাল থেকে এ বিদ্রোহে অন্তত ৪০ হাজার মানুষ নিহত হয়েছেন।

আঙ্কারা বলেছে, মানবিজসহ ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা সিরিয়ার বিভিন্ন অঞ্চলকে লক্ষ্যবস্তু বানাবে তারা। তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু বলেছেন, সিরিয়া থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের আগেই মানবিজ থেকে ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের হটিয়ে দিতে একমত হয়েছে ওয়াশিংটন ও আঙ্কারা।

তিনি আরো বলেন, ওয়াইপিজি যোদ্ধাদের দেয়া অস্ত্র ফিরিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে ওয়াশিংটন। গত সোমবার কুর্দি যোদ্ধাদের নতুন করে হুমকি দেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। বিগত দুই বছরে সিরিয়ার কুর্দিদের লক্ষ্যবস্তু বানিয়ে ‘ইউফ্রেতিস শিল্ড’ ও ‘অলিভ ব্রাঞ্চ’ নামে দুটি অভিযান চালিয়েছে তুরস্ক।

উল্লেখ্য, গত বুধবার আকস্মিকভাবে সিরিয়ায় মোতায়েন থাকা দুই হাজার সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার এই ঘোষণায় অনেকে অবাক হলেও সোমবার তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগানের মুখপাত্র জানিয়েছেন, সিরিয়ায় সমন্বয় সংক্রান্ত আলোচনা করতে চলতি সপ্তাহে তুরস্কে আসেবন মার্কিন সেনা কর্মকর্তারা।

এদিকে এক উর্ধ্বতন কুর্দি কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কুর্দি নিয়ন্ত্রণাধীণ অঞ্চল রক্ষায় সহায়তা পাওয়ার চেষ্টা করছেন তারা। মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পর তুরস্কের সম্ভাব্য অভিযানের কথা মাথায় রেখে রাশিয়া, সিরিয়ার সরকার এবং ইউরোপীয় দেশগুলোর সাথে আলোচনা চলছে বলে জানান তিনি।


আরো সংবাদ