১৫ নভেম্বর ২০১৮

বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হতাশাজনক : এরদোগান

বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হতাশাজনক : এরদোগান - সংগৃহীত

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বলেছেন, সিরিয়ার ডেরায় বেসামরিক নাগরিকদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হতাশাজনক। যদি সিরিয়া সরকার ইদলিবেও একইভাবে হামলা চালায় তবে সেটি আস্তানা চুক্তিকে পুরোপুরি অকার্যকর করে দেবে। সম্প্রতি রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের সাথে ফোনালাপে তিনি এসব কথা বলেন।

আসাদবিরোধী বিদ্রোহের সূতিকাগার দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় শহর ডেরায় বৃহস্পতিবার দেশটির জাতীয় পাতাকা উত্তোলনের পর দুই প্রেসিডেন্ট ফোনে কথা বলেন। গত কয়েক বছর ধরে অঞ্চলটি বিদ্রোহীদের দখলে ছিল। সিরিয়া নিয়ে যৌথ পদক্ষেপসহ একাধিক আন্তর্জাতিক বিষয় নিয়ে টেলিফোনে আলোচনা করেছেন পুতিন  ও এরদোগান।

ডেরায় বেসামরিক লোকজনের ওপর সিরীয় সরকার যেভাবে হামলা চালিয়েছে, তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন প্রেসিডেন্ট এরদোগান।

রাশিয়া ও ইরানের সহায়তায় প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত অধিকাংশ এলাকা পুনরুদ্ধার করতে সক্ষম হন। কিন্তু উত্তর-পূর্বাঞ্চলের ইদলিব এখনো বিদ্রোহীদের দখলে রয়েছে।

সিরীয় সরকার ও বিদ্রোহীদের মধ্যে লড়াই কমিয়ে আনতে গত বছর কাজাখস্তানের রাজধানী আস্তানায় একটি চুক্তির অংশ হিসেবে ইদলিবে কয়েকটি পর্যবেক্ষণ ফাঁড়ি স্থাপন করে তুরস্ক।

এক বিবৃতিতে এরদোগানের সাথে ফোনালাপের বিষয়টি নিশ্চিত করে ক্রেমলিন বলেছে, সিরীয় সঙ্কট নিরসনে যৌথ চেষ্টা নিয়ে তারা আলোচনা করেছেন। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম ‘তাস’ এই খবর দিয়েছে।

ক্রেমলিনের বিবৃতি বলা হয়, ‘দুই নেতার মধ্যে আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে গুরুত্ব দিয়ে আলোচনা হয়েছে। বিশেষকরে সিরিয়ার সঙ্কট সমাধানে লক্ষ্যে যৌথ পদক্ষেপ নিয়ে জাতিসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের সংশ্লিষ্ট রেজুলেশন এবং আস্তানা চুক্তির বাস্তবায়ন নিয়ে আলোচনায় জোর দেয়া হয়েছে।’

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, ‘উভয় নেতাই বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য পারস্পরিক আকাঙ্ক্ষা তুলে ধরেন।’

এসময় সম্প্রতি নির্বাচনে জয়ী হওয়ার জন্য তুরস্কের প্রেসিডেন্ট এরদোগানকে আরো একবার অভিনন্দন জানান পুতিন।

এরদোগান কেন এত জনপ্রিয়
আহমেদ বায়েজীদ, ২৫ জুন ২০১৮

 


আরো সংবাদ