১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮

এরদোগানের প্রতিদ্বন্দ্বীরা কেমন ভোট পেলেন

আলোচিত প্রার্থী ছিলেন মেরাল আকসেনার - ছবি : সংগ্রহ

তুরস্কের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রায় ৫৩ শতাংশ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন রজব তাইয়েব এরদোগান। সংবিধান অনুযায়ী তিনি অর্ধেকের বেশি ভোট পাওয়ায় প্রথম দফা নির্বাচন শেষেই তাকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়েছে।

এই নির্বাচনে এরদোগান ছাড়াও আরো ছয়জন প্রার্থী লড়েছেন। নির্বাচনের আগে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হতো যে, ব্যাপক প্রতিদ্বন্দ্বীতার মুখে পড়বেন এরদোগান। তার বিরুদ্ধে অন্তত দুইজন প্রার্থী শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বীতা গড়ে তুলতে পারেন বলেও বিভিন্ন মিডিয়ার খবরে বলা হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে দেখা গেছে তার সম্পূর্ণ বিপরীত চিত্র। নির্বাচনে কোন প্রতিদ্বন্দ্বীতাই গড়তে পারেনি অন্য প্রার্থীরা। যে ছয়জন প্রার্থী ছিলেন তারা কেবল প্রচার প্রচারণাতেই এগিয়ে ছিলেন, কিন্তু ব্যালট বাক্সে তাদের ভরাডুবি হয়েছে। তাদের মধ্যে কেবল একজনই বলার মতো ভোট পেয়েছেন। রিপাবলিকান পিপলস পার্টির পার্লামেন্টারি দলের নেতা মুহারেম ইঞ্চ। তিনি ভোট পেয়েছে ত্রিশ শতাংশের কিছু বেশি। সংখ্যার হিসেবে তার ভোট এক কোটি তিপ্পান্ন লাখের কিছু বেশি। যেখানে এরদোগানের প্রাপ্ত ভোট দুই কোটি বাষট্টি লাখের বেশি।

আরেকজন আলোচিত প্রার্থী ছিলেন মেরাল আকসেনার। তিনি ছিলেন একমাত্র নারী প্রার্থী। ভোটের মাঠে জনপ্রিয়তা না থাকলেও পশ্চিমা মিডয়ায় তাকে নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। তার দলের নাম ‘ইই পার্টি’ যার ইংরেজি করলে নাম দাঁড়ায় গুড পার্টি। মেরালের দল রাজনীতিতে নতুন হলেও মেরালের এর আগে রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের অভিজ্ঞতা আছে। ১৯৯৭ সালে আট মাস তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন মেরাল আকসেনার। কিন্তু তৃণমূল ভোটারদের কাছে তার জনপ্রিয়তা কেমন সেটা বোঝা গেল ভোটের ফলাফলে, মাত্র ৭ শতাংশ ভোট পেয়ে তার অবস্থান ছয় প্রার্থীর মধ্যে চার নম্বরে। কিছু মিডয়া ভোটের আগে তাকে এমনভাবে উপস্থাপন করেছে, মনে হয়েছে তিনি শক্তিশালী কোন প্রার্থী হতে যাচ্ছেন।
তৃতীয় অবস্থানে থাকা সেলাহদিন দেমিরতাস পেয়েছেন ৮ শতাংশের সামান্য কিছু ভোট। পঞ্চম অবস্থানে থাকা প্রার্থী তেমেল কারামোল্লাগলু পেয়েছেন এক শতাংশেরও কম ভোট। আর সর্বশেষ অবস্থানে থাকা প্রার্থীর ভোট শূন্য দশমিক দুই শতাংশ মাত্র।

অর্থাৎ অন্য পাঁচজন প্রার্থীর সবাই মিলে মিলে যে ভোট পেয়েছেন, তার চেয়ে প্রায় ২৬ লাখ ভোট বেশি পেয়েছেন একে পার্টির নেতা ও বর্তমান প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান। তার মানে ভোটের আগে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে শক্ত চ্যালেঞ্জের যে খবর পরিবেশন করা হয়েছিলো, বাস্তবে তার কোন দেখাই মিলেনি।

আরো পড়ুন : এরদোগান কেন এত জনপ্রিয়
আরো এক মেয়াদে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন রজব তাইয়েব এরদোগান। রোববারের নির্বাচনে বড় ব্যবধানে জয় পেয়েছেন তিনি। একই দিন অনুষ্ঠিত পার্লামেন্ট নির্বাচনেও সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়েছে তার দল। দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে ক্ষমতায় থাকা এরদোগান প্রেসিডেন্সির সাথে এবার পেতে যাচ্ছেন নির্বাহী ক্ষমতাও।

‘নির্বাচনে জয় নিয়ে যদি আন্তর্জাতিক কোনো প্রতিযোগিতা থাকত, তবে রজব তাইয়েব এরদোগান বিশ্বের অবিসংবাদিত, অপরাজিত ও হেভিওয়েট চ্যাম্পিয়ন হিসেবে পরিচিতি পেতেন’। গত বছর তুরস্কের গণভোটে এরদোগানের বিজয়ের পর বার্তা সংস্থা এএফপি তাদের এক রিপোর্টে এভাবেই মূল্যায়ন করেছেন তুর্কি প্রেসিডেন্টকে। গত দেড় দশকে ১৪টি নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন এরদোগান। প্রতিটিতেই জয় পেয়েছেন। এর মধ্যে ৬টি পার্লামেন্ট নির্বাচন, ৩টি গণভোট, ৩টি স্থানীয় নির্বাচন ও দুটি প্রেসিডেন্ট নির্বাচন।

শুধু তুরস্ক নয়, বর্তমান বিশ্ব রাজনীতিতেই সবচেয়ে জনপ্রিয় নেতাদের একজন এরদোগান। দেশের সীমানা ছাড়িয়ে সারা বিশ্বের মুসলিমদের মাঝেও তিনি অসম্ভব জনপ্রিয়। এর কারণ এক সময়ের খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলা তুরস্ককে তিনি পাল্টে দিয়েছেন নিজ হাতে। কামাল আতাতুর্ক দেশটিতে সেক্যুলারিজমের নামে ইসলাম চর্চার ওপর চরম আঘাত হেনেছিলেন; কিন্তু এরদোগান মানুষকে দিয়েছেন ধর্ম পালনের অবাধ স্বাধীনতা। পাশাপাশি বিশ্ব রাজনীতিতেও মুসলিম রাষ্ট্রগুলোর প্রতিনিধিত্ব করছেন উচ্চকণ্ঠে। জোরালো ভুমিকা রাখছেন সকল আন্তর্জাতিক ইস্যুতে।

১৯৫৪ সালে ইস্তাম্বুলের কাশিমপাশায় জন্ম নেয়া এরদোগান ছোটবেলা থেকেই ছিলেন বাস্তবমুখী মানসিকতার। বাবা ছিলেন তুর্কি কোস্টগার্ডের ক্যাপ্টেন। পরিবারে স্বচ্ছলতা থাকলেও তরুণ এরদোগান নিজের খরচ চালানোর জন্য লেবুর শরবত ও তিলের রুটি বিক্রি করেন। মারমারা ইউনিভার্সিটিতে ব্যবসায় প্রশাসনে পড়ার সময় ইসলামী আন্দোলনের সাথে যুক্ত হন। যোগ দেন কমিউনিজম বিরোধী ন্যাশনাল টার্কিস স্টুডেন্ট ইউনিয়নে। ফুটবলও খেলতেন স্থানীয় একটি নামকরা ক্লাবে। ছাত্রজীবন শেষে যোগ দেন নাজিমউদ্দিন আরবাকানের ন্যাশনাল স্যালভেশন পার্টির যুব সংগঠনে।

১৯৮০ সালে সামরিক অভ্যুত্থানের পর দলটি বিলুপ্ত করা হলে আরবাকানের নতুন দল ওয়েলফেয়ার পার্টির সাথে যুক্ত হন। এই দল থেকেই ১৯৯৪ সালে নির্বাচিত হন ইস্তাম্বুলের মেয়র। বিশৃঙ্খল আর অনুন্নত ইস্তাম্বুলকে আমূল পাল্টে দেন তিনি। কয়েক বছরের মধ্যে ইউরোপের বড় শহরগুলোর সাথে পাল্লা দিতে শুরু করে ইস্তাম্বুল। হু হু করে বাড়তে থাকে এরদোগানের জনপ্রিয়তা। যা তাকে শেষ পর্যন্ত নিয়ে এসেছে দেশের সর্বোচ্চ পদে।

১৯৯৮ সালে সেক্যুলার সরকার ওয়েলফেয়ার পার্টি নিষিদ্ধ করলে বিক্ষোভে অংশ নেন এরদোগান। বিক্ষোভে একটি কবিতা আবৃত্তির কারণে তার ওপর ক্ষুব্ধ হয় সরকার। কবিতাটি ছিলো, ‘মসজিদ আমাদের ক্যান্টনমেন্ট, গম্বুজ আমাদের হেলমেট, মিনার আমাদের বেয়নেট আর বিশ্বাসীরা আমাদের সৈনিক।’ কয়েক মাস জেল খাটতে হয় তাকে, সেই সাথে পড়তে হয় রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞার কবলে। কেড়ে নেয়া হয় মেয়র পদও। ২০০১ সালে আবদুল্লাহ গুলসহ কয়েকজন নেতাকে নিয়ে প্রতিষ্ঠা করেন জাস্টিস এন্ড ডেভেলপমেন্ট পার্টি সংক্ষেপে যা একে পার্টি নামে পরিচিত। ২০০২ সালে প্রথম পার্লামেন্ট নির্বাচনে অংশ নিয়েই জয়লাভ করে দলটি।

মূলত এরদোগানের সুনাম আর জাদুকরী নেতৃত্বই ছিলো দলটির প্রধান পুঁজি। রাজনৈতিক নিষেধাজ্ঞার কারণে এমপি ও প্রধানমন্ত্রী হতে পারেননি তিনি। ২০০৩ সালে এক উপনির্বাচনে অংশ নিয়ে পার্লামেন্টে আসেন এবং প্রধানমন্ত্রী হন। এরপর ২০০৭ ও ২০১১ সালের নির্বাচনেও জয় লাভ করে দলটি। তুরস্কের ইতিহাসে প্রথম নেতা হিসেবে তৃতীয়বার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। ২০১৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জয় লাভ করে শপথ নেন তুরস্কের ১২তম প্রেসিডেন্ট হিসেবে।

ইস্তাম্বুলের মেয়র হিসেবে তার প্রতি জনগনের যে আস্থা তৈরি হয়েছিলো তা ক্রমেই বেড়েছে। জনগনের ভালোবাসার প্রতিদান দিতেও দেরি করেননি এই নেতা। ১৬ বছরের দেশ শাসনে তুরস্ককে তৈরি করেছেন আধুনিক বিশ্বের উন্নত রাষ্ট্র হিসেবে। একে পার্টি ক্ষমতায় আসার আগে ঋণে জর্জরিত ছিলো তুরস্কের অর্থনীতি। কূটনৈতিক ও সামরিকভাবেও নির্ভরশীল ছিলো পশ্চিমাদের ওপর। শুধু আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের(আইএমএফ) কাছেই তুরস্কের ঋণ ছিলো ২ হাজার ৩৫০ কোটি মার্কিন ডলার। ক্রমান্নয়ে সব ঋণ শোধ করে ২০১২ সালে এরদোগান ঘোষণা দেন- ‘এবার আইএমএফ চাইলে তুরস্কের কাছ থেকে ঋণ নিতে পারে’। ২০০২ সালে যে দেশটির কেন্দ্রিয় ব্যাংকের রিজার্ভ ছিলো ২ হাজার ৬৫০ কোটি ডলার, ২০১১ সালে তাই দাড়িয়েছে ৯ হাজার ২২০ কোটি ডলারে।

তুর্কি নাগরিকদের জীবনযাত্রার মান অনেকগুণ উন্নতি হয়েছে তার সময়ে। শুধু অর্থনীতিই নয় প্রতিটি সেক্টরের রীতিমতো বিপ্লব করেছেন এরদোগান। প্রতিটি প্রদেশে কমপক্ষে একটি করে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা করেছেন। এয়ারপোর্টের সংখ্যা ২৬ থেকে নিয়ে গেছেন ৫০-এ। ধর্ম পালনে যে নিষেধাজ্ঞা ছিলো অতীতে তা ধীরে ধীরে তুলে দিয়েছেন। অবাধ স্বাধীনতা দিয়েছেন ধর্ম পালনের। পাশাপাশি মুসলিম কৃষ্টি-সংস্কৃতি সংরক্ষণে নিয়েছেন কার্যকরী উদ্যোগ। তবে এসব বিষয়ে কোন তাড়াহুড়ো করেননি তিনি। তাল মিলিয়ে চলেছেন ইউরোপীয় সমাজ ব্যবস্থার সাথেও। তুরস্ক সফরকালে বারাক ওবামা বলেছিলেন, ‘একজন নেতা কিভাবে একই সাথে ইসলামিক, গণতান্ত্রিক ও সহিষ্ণু হতে পারে, তার উৎকৃষ্ট উদাহরণ এরদোগান।’ আর এমন রাষ্ট্রনেতার প্রতি জনগনের আস্থা না থাকার কী কারণ থাকতে পারে!

৬৪ বছর বয়সী এরদোগানের জনপ্রিয়তা কতখানি তার প্রমাণ বিশ্ববাসী দেখেছে ২০১৫ সালের ১৫ জুলাই সেনাঅভ্যুত্থান চেষ্টার সময়। শুধুমাত্র তার একটি একটি ভিডিও বার্তার ডাকে সাড়া দিয়ে ট্যাঙ্ক, কামানের সামনে রুখে দাড়িয়েছে নিরস্ত্র জনতা। রাষ্ট্রনেতাকে কতখানি ভালোবাসলে ট্যাঙ্কের পথ রোধ করতে রাস্তায় শুয়ে পড়ে মানুষ!

তবে হঠাৎ করে এই জনপ্রিয়তা আসেনি। সুশাসন, সমৃদ্ধি আর স্বনির্ভরতার স্বাদ যখন পেতে শুরু করেছে তুর্কিরা- তখনই এরদোগানের প্রতি বেড়েছে তাদের আস্থা। দীর্ঘদিন পশ্চিমা দেশগুলোকে ধর্ণা দেয়ার নীতিতে চলেছে তুরস্ক। কিন্তু এই নীতি পাল্টে জাতিকে মাথা তুলে দাড়াতে শিখিয়েছেন তিনি। ইউরোপ-আমেরিকার চোখে চোখ রেখেও যে কথা বলা যায় সেটি বিশ্বাস করতে শিখিয়েছেন মানুষকে। পশ্চিমা বিশ্বের প্রবল আপত্তির মুখেও গণভোটে জিতে সংবিধান পাল্টে গ্রহণ করেছেন নির্বাহী ক্ষমতা। অর্থনীতি, কূটনীতির মতো সামরিক শক্তিতেও অনেক এগিয়েছে তুরস্ক। ২০১৫ সালে তুর্কি আকাশ সীমায় প্রবেশ করার মাত্র ১৫ সেকেন্ডের মধ্যে ধ্বংস করা হয় রাশিয়ার যুদ্ধ বিমান। যা অসীম সাহসিকাতরই এক নজির।

ধীরে ধীরে দেশের সীমানা ছাড়িয়ে বিশ্ব রাজনীতিতে প্রভাব বিস্তার করেছেন এরদোগান। নেতৃত্বহীন মুসলিম বিশ্বকে এগিয়ে নিতে কাজ করছেন প্রতিনিয়ত। রোহিঙ্গা ইস্যুতে মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে সবার আগে ও সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা নিয়ে বাংলাদেশের পাশে দাড়িয়েছে তুরস্ক। জেরুসালেম ইস্যুতে ওআইসির চেয়ারম্যান এরদোগান জরুরী সম্মেলন ডেকে পূর্ব জেরুসালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী ঘোষণা করেছেন। মুসলিম বিশ্বকে ঐক্যবদ্ধ করতে চালিয়েছেন ব্যাপক কূটনৈতিক তৎরতা। কাতার সঙ্কটেও মধ্যস্ততার উদ্যোগ নিয়েছেন। সব কিছু মিলিয়ে তুরস্ক ও নেতৃত্ব দুটো বিষয়কেই বিশ্বের সামনে রোল মডেল হিসেবে দাঁড় করিয়েছেন এরদোগান।


আরো সংবাদ