১৬ আগস্ট ২০১৮

কারাগারে বন্দি মা শেষ বিদায় দিলেন তাজিনকে

টিভি নাট্য অভিনেত্রী ও উপস্থাপিকা তাজিন আহমেদ - সংগৃহীত

কাশিমপুর কারাগারে বন্দি মায়ের কাছ থেকে শেষ বিদায় নিতে টিভি নাট্য অভিনেত্রী ও উপস্থাপিকা তাজিন আহমেদের লাশ বুধবার সকালে গাজীপুরের কারাফটকে নিয়ে যাওয়া হয়। কারাগার থেকেই মেয়েকে শেষ বিদায় জানান অভিনয়শিল্পী তাজিন আহমেদের মা দিলারা জলি।

ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার মো. জাহাঙ্গীর কবির জানান, তাজিনের মা দিলারা বেগমের (৬২) বিরুদ্ধে চেক জালিয়াতির চারটি মামলা রয়েছে। ওই মামলায় গ্রেফতার হয়ে আদালতের মাধ্যমে তাকে ২০১৫ সালের ২৩ অক্টোবর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করা হয়। পরে ঢাকা জেলা দায়রা আদালতের বিচারক চারটি মামলার প্রতিটিতে তাকে এক বছর করে মোট চার বছরের সাজা দেন। গত ২০১৬ সালের ২৭জুলাই তাকে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারে পাঠানো হয়। তার সম্ভাব্য মুক্তির দিন হলো ২০১৯ সালের ২২অক্টোবর।

কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারের জেলার সালমা বেগম জানান, কারা কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে বুধবার সকাল ৮টার দিকে তাজিনের লাশবাহী গাড়ি নিয়ে তার সহকর্মীসহ পাঁচজন গাজীপুরস্থিত কাশিমপুর কেন্দ্রীয় মহিলা কারাগারের ফটকে নিয়ে আসেন। পরে তার লাশ মা দিলারা জলিকে দেখানো হয়। এসময় মেয়ের লাশ দেখে মা কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। প্রায় দুই বছর আগে তিনি ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে কাশিমপুর মহিলা কারাগারে স্থানান্তরিত হন।

নাট্য পরিচালক চয়নিকা চৌধুরী জানান, কাশিমপুর কারাগার থেকে তাজিনের লাশ ঢাকায় গুলশানের আজাদ মসজিদে নিয়ে আসা হয়। সেখানে জানাজা শেষে তাকে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে দাফন করা হবে।

 

বাবার কবরে চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন অভিনেত্রী তাজিন

বাবার কবরে দাফন করা হলো জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাজিন আহমেদকে। আজ বিকেল পৌনে তিনটায় বনানী কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়েছ বলে জানিয়েছে বাসস।
দাফনের সময় গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন, অভিনয় শিল্পী সংঘসহ বিভিন্ন নাটক দলের শিল্পী, নির্মাতা, নির্দেশকসহ আত্মীয়-স্বজন উপস্থিত ছিলেন।
অভিনেত্রী তাজিনের মরদেহ সকালে কুর্মিটোলা জেনারেণ হাসপাতাল থেকে উত্তরায় আনন্দবাড়ি শুটিং হাউসে নেয়া হয়। সেখানে বারটা পর্যন্ত শিল্পীকে রাখা হয়। এখানে নাট্যজগতের বিভিন্ন সংগঠনের অভিনেতা, শিল্পীরা কফিনে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করে শেষ শ্রদ্ধা জানান।

পরে, উত্তরা থেকে দুপুর সোয়া বারটায় মরদেহ গুলশানের আজাদ মসজিদে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে জোহরের নামাজের পর মরহুমার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় রাজধানীর অসংখ্য শিল্পী, অভিনেতা, নাট্যকার , নির্দেশক ও গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের কর্মকর্তারা অংশ নেন। অন্যান্যের মধ্যে সংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার, শিল্পী সংঘের সভাপতি শহিদুল ইসলাম সাচ্চু ও সাধারণ সম্পাদক আহসান হাবিব নাসিম প্রমুখ জানাজায় অংশ নেন।

অভিনেত্রী তাজিনের মৃত্যুতে বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেরডারেশনের চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী লাকী, সেক্রেটারী জেনারেল কামাল বায়েজিদ, সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও কেন্দ্রীয় কমিটির কর্মকর্তারা গভীর শোক প্রকাশ করেন এবং পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। সংগঠনের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তাজিনের অকাল মৃত্যুতে নাট্যজগত এক মেধাবী শিল্পীকে হারাল। এ ছাড়া অভিনেত্রী তাজিনের মৃত্যতে অভিনয় শিল্পী সংঘ, আরণ্যক নাটদল, নাট্যজন’এর পক্ষ থেকে পৃথক বিবৃতিতে শোক প্রকাশ করা হয়।

প্রসঙ্গতঃ মঙ্গলবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তাজিন আহমেদ ৪৫ বছর বয়সে ঢাকার উত্তরার একটি হাসপাতালে মারা যান। তার পৈত্রিক বাড়ি নোয়াখালীতে হলেও তিনি বেড়ে ওঠেন পাবনায় নানা বাড়িতে। মা দিলারা জলির প্রোডাকশন হাউজ ছিল। মায়ের হাত ধরেই তিনি অভিনয় জগতে প্রবেশ করেন। গত শতকের ৯০ এর দশকের মাঝামাঝিতে টিভি অভিনেত্রী হিসেবে পরিচিতি পান তাজিন। পরে তিনি উপস্থাপক হিসেবেও সুনাম অর্জন করেন।


আরো সংবাদ