২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়ায় কর্মমুখী ও মানসম্মত শিক্ষা

-

মুক্তবাজার অর্থনীতির এই গ্লোবাল ভিলেজের যুগে সর্বত্রই আমরা এক অসম প্রতিদ্বন্দিতার মুখোমুখি। বিশেষ করে অবাধ বিশ্ববাণিজ্যের চলমান এই প্রেক্ষাপটে সবার লক্ষ্য এখন কর্মমুখী ও মানসম্মত ডিগ্রি অর্জন করা। গতানুগতিক সাধারণ ডিগ্রি নিয়ে একসময় যারা চাকরি পেয়েছেন, আজ তারা চাকরির ক্ষেত্রে প্রফেশনাল ডিগ্রিধারীর অধীনস্থ এবং কাজের ক্ষেত্রে দক্ষতা থাকা সত্ত্বে¡ও ঝুলে যাচ্ছে প্রমোশনও। সার্বিক বিবেচনায় ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া যুগ ও চাহিদার সাথে সঙ্গতি রেখে রেগুলার শিফটের পাশাপাশি সান্ধ্যকালীন শিফট ও সাপ্তাহিক ছুটির দিনে বিএসসি ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং, এমবিএ অ্যান্ড এক্সিকিউটিভ এমবিএ ও বিএসসি ইন কম্পিউটার সায়েন্স কোর্স চালু করেছে। এসব কোর্স পরিচালনায় এখানে আছেন, দক্ষ ও অভিজ্ঞ পরিচালনা পর্ষদ ও দক্ষ শিক্ষকমণ্ডলী। যাদের নেতৃত্বে বাস্তবায়িত হচ্ছে, মানসম্পন্ন উচ্চতর শিক্ষা। অপেক্ষাকৃত সীমিত ব্যয়ে গুণগত মানের উচ্চশিক্ষা বাস্তবায়নের স্বপ্ন নিয়ে চিকিৎসক মরহুম প্রফেসর এম এ মতিন ২০০৩ সালে বনানীতে এটি প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি এর গভর্নিং বডির চেয়ারম্যান ছিলেন। তার মৃত্যুর পর প্রফেসর এম এ মুহিত চেয়ারম্যান হন।
কেবল ইমারতসদৃশ আধুনিকতাই নয়, বরং প্রকৃতির নির্মল ছোঁয়াও যেন শিক্ষার্থীর জ্ঞান-বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উৎস হয়, সেই অভিপ্রায় ও বিশেষত্বকে সামনে রেখে ঢাকার বনানীতে প্রায় দেড় একর জমির ওপর প্রাকৃতিক পরিবেশে গড়ে উঠেছে ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়া। একই সাথে চলছে এর স্থায়ী ক্যাম্পাস প্রতিষ্ঠার কার্যক্রম। এখানে আছে, কম্পিউটার ল্যাব ও হাইস্পিড ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা, শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ক্লাসরুম, প্রজেক্টর, মাল্টিমিডিয়া, ওভারহেড প্রজেক্টর এবং ডাইরেক্টর প্রজেক্টরে ক্লাস নেয়ার ব্যবস্থাসহ ল্যাব, লাইব্রেরি এবং পূর্ণ ও খণ্ডকালীন অভিজ্ঞ শিক্ষকমণ্ডলী, যাদের সবাই দেশী-বিদেশী বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রিধারী। শিক্ষকমণ্ডলীদের শিক্ষাদান পদ্ধতিও বিশ্লেষণধর্মী ও আধুনিক। নিজস্ব ফ্যাকাল্টির পাশাপাশি এখানে অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকমণ্ডলী এবং বিভিন্ন মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানির সিনিয়র এক্সিকিউটিভরা গেস্ট টিচার হিসেবে নিয়মিত শিক্ষাদান করে থাকেন।
পরিবর্তিত বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে এখানে যুগোপযোগী নতুন বিভিন্ন বিষয় চালু করা হয়। একই সাথে আছে উপযুক্ত ব্যবহারিক ক্লাস ও বাস্তব শিক্ষা অর্জনের লক্ষ্যে ডিবেটসহ সহ-শিক্ষামূলক কার্যক্রমে অংশগ্রহণের সুযোগ। ছাত্রছাত্রীদের লেখাপড়ার পাশাপাশি খণ্ডকালীন জবে অংশগ্রহণের ব্যাপারে সহযোগিতা করাসহ এখানে আছে ক্যারিয়ার হেল্প ডেস্ক, যার মাধ্যমে ক্যারিয়ার সংক্রান্ত গাইডলাইন তথা কাউন্সিলিং প্রদান এবং ক্যারিয়ার ফেয়ারের আয়োজন করা হয়। পাস করার পর যারা দেশের বাইরের বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষা নিতে আগ্রহী, তাদের এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কোলাবরেট বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির ব্যবস্থা করা হয়। আর এ জন্য রয়েছে সংশ্লিষ্ট একটি হেল্প ডেস্ক। এখানে গরিব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের সরকার নির্ধারিত নিয়মের চেয়েও বেশি স্কলারশিপ দেয়া হয়। এখানকার টিউশন ফি অপেক্ষাকৃত কম। সেমিস্টার ফি মাসিক কিস্তিতে পরিশোধের ব্যবস্থা এবং গ্রুপ অনুসারে ভর্তি হলে বিশেষ সুবিধা দেয়া হয়।
প্রোগ্রামসমূহ : আন্ডারগ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম : ব্যাচেলর অব সায়েন্স ইন টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং (বিএসটিই), ব্যাচেলর অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ), ব্যাচেলর অব আর্টস ইন ইংলিশ লিটারেচার অ্যান্ড কালচার (বিএ অনার্স), ব্যাচেলর অব কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি (বিসিএসআইটি) ও ব্যাচেলর অব এনভায়রনমেন্ট সায়েন্স (বিইএস)।
গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম : মাস্টার অব কম্পিউটার সায়েন্স, মাস্টার অব বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, এক্সিকিউটিভ এমবিএ, মাস্টার অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট, মাস্টার অব পাবলিক হেলথ ও মাস্টার অব নিউট্রেশন অ্যান্ড ফুড সায়েন্স ।
ডিপ্লোমা প্রোগ্রাম : ডিপ্লোমা ইন অপটোমেট্রি অ্যান্ড লো ভিশন ও ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার সায়েন্স। শিক্ষা কার্যক্রম : ইন্টারন্যাশনাল স্ট্যান্ডার্ড অর্জন করার লক্ষ্যে এখানে সেমিস্টার পদ্ধতিতে শিক্ষাদান করা হয়। প্রত্যেক সেমিস্টারের সময়কাল চার মাস। বছরে তিনটি সেমিস্টার। যেমনÑ জানুয়ারি থেকে এপ্রিলÑ স্প্রিং, মে থেকে আগস্টÑ সামার এবং সেপ্টেম্বর থেকে ডিসেম্বরÑ ফল সেমিস্টার।
যোগাযোগ : বাড়ি- ৭৮ ও ৭৬, রোড- ১৪, ব্লক-বি, বনানী, ঢাকা।
ফোন : ৮৮৫৭০৭৩-৫, ০১৯১৩-৮৫৪৫৬৯ ওয়েবসাইট : িি.িঁহরংধ.ধপ.নফ

 

 

 

 


আরো সংবাদ




gebze evden eve nakliyat Paykasa buy Instagram likes Paykwik Hesaplı Krediler Hızlı Krediler paykwik bozdurma tubidy