২০ অক্টোবর ২০১৯

হাওরে নৌ ডুবিতে নিহতদের পরিবারকে ২০ হাজার টাকা করে অনুদান দিলেন ডিসি

দিরাই হাওরে নৌ ডুবিতে নিহতদের পরিবারকে ডিসির ২০ হাজার টাকা করে অনুদান  - নয়া দিগন্ত

সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার কালিগুটা হাওরে ট্রলার ডুবিতে ১০ জন নিহতের ঘটনায় জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা করে মোট ২ লাখ টাকা অনুদান দেয়া হয়েছে। শুক্রবার দুপুরে দিরাই উপজেলার রফিনগর ইউনিয়নের মাছিমপুর গ্রামের নৌ-দুর্ঘটনায় নিহতদের বাড়িতে যান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আব্দুল আহাদ।

তিনি নৌ-দুর্ঘটনায় নিহতদের মর্মান্তিক মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে স্বজনদের প্রতি অন্তরিক সমবেদনা প্রকাশ করেন। নিহতদের পরিবারের মধ্যে শুকনা খাবারসহ নগদ সরকারি সহায়তা প্রদান করেন। এ সময়ে দিরাই উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) বিশ্বজিত দেব, জেলা ত্রাণ কর্মকর্তা মো. ফরিদুল হক, ডিস্ট্রিক্ট ফ্যাসিলিটেটর আবু হানিফা তালুকদার, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম, রফিনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ রেজুয়ান হুসেন খান, সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যরা এবং এলাকাবাসী উপস্থিত ছিলেন।

এ সময়ে জেলা প্রশাসক নৌ দুর্ঘটনা এড়ানোর জন্য, সকল নৌকায় লাইফ জ্যাকেট ব্যবহার নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনা প্রদান করেন। হাওরে দুর্যোগকালীন সময়ে আশ্রয় গ্রহণের জন্য টাওয়ার/বজ্র নিরোধক দণ্ড স্থাপন এবং নৌ দুর্ঘটনা এরানোর জন্য সকলের সচেতনতা বৃদ্ধির জন্য অনুরোধ করেন। পরে তিনি রফিনগর ইউনিয়নের বাংলাবাজার জামে মসজিদে জুমার নামাজ আদায় করে নৌ-দুর্ঘটনায় নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় বিশেষ মোনাজাতে অংশগ্রহণ করেন।

এ সময়ে তিনি মসজিদে উপস্থিত মুসল্লিদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র ১০টি বিশেষ উদ্যোগ, বাল্য বিবাহ নিরোধ এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণের বিষয়ে সচেতনতামূলক বক্তব্য প্রদান করেন।

উল্লেখ্য, সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার রফিনগর ইউনিয়নস্থিত কালিয়াকুটা হাওরে গত ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে ৩১ জন যাত্রী নিয়ে ইঞ্জিনচালিত একটি নৌকা কালিয়াকুটা হাওরের আইনুল বিলের পাশে ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়। নৌকা ডুবির ঘটনায় ২১ (একুশ) জন আরোহীকে জীবিত উদ্ধার করা হয় এবং ১০ জনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। মৃতদের মধ্যে ৭ জন শিশু এবং ৩ জন মহিলা রয়েছেন।

এ ব্যাপারে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো: আব্দুল আহাদ দৈনিক নয়া দিগন্তকে জানান, দিরাই কালিগুটা হাওরে নৌ দুর্ঘটনায় নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে সরকারের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা করে নগদ মানবিক সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। পরবর্তীতে অন্যান্য সহায়তা প্রদানসহ প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্পের আওতায় তাদের প্রত্যেক পরিবরকে একটি করে ঘর নির্মাণে করে দেয়া হবে।


আরো সংবাদ




portugal golden visa
paykwik