১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

তাহিরপুরে নাশকতা মামলায় বিপর্যস্ত বিএনপির নেতৃবৃন্দ

-

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলায় নাশকতার মামলায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বিএনপির নেতৃবৃন্দ। বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়েরের পর থেকে আইনি ঝামেলা এড়াতে এলাকা ছেড়ে ঘা ডাকা দিয়েছে নেতাকর্মীরা। এদিকে তাহিরপুর উপজেলা ছাড়াও জেলার ১১টি উপজেলা গত ১ সেপ্টেম্বর বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনের পালনের প্রস্তুতি নিলে নাশকতার অভিযোগে পুলিশ পৃথক পৃথক থানায় ৪৫৬ জনকে আসামী মামলায় করে পুলিশ। তাহিরপুরসহ বিভিন্ন উপজেলায় গ্রেফতার করে বিএনপির ৪৫ নেতাকর্মীকে। ফলে অনেক উপজেলায় সংগঠনটির প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালন করতে পারেনি।

জানা যায়, বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালনের জন্য গত ১ সেপ্টেম্বর তাহিরপুর উপজেলার দুটি গ্রুপের মধ্যে নজির হোসেন সমর্থিত স্থগিত কমিটির সভাপতি নুরুল ইসলাম পশ্চিম বাজারে ও আনিসুল হক গ্রুপ সমথির্ত স্থগিত কমিটির সাধারন সম্পাদক জুনাব আলী পূর্ব বাজারে দলের ৪০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠান করার জন্য প্রস্তুতি নেয়। কিন্তু রাত (৩১আগষ্ট) সাড়ে দশটায় নজির হোসেন সমর্থিত সাধারন সম্পাদক রুহুল আমিনসহ ৭ জন নেতাকর্মীকে আটক করে। পরে ৪২ জনের নাম উল্লেখ্য করে অজ্ঞাত আরো ৪০/৫০জন বিএনপির নেতাকর্মীর নামে নাশকতার মামলা দায়ের করে তাহিরপুর থানা পুলিশ। এর পর ১লা সেপ্টেম্বর সকাল থেকে তাহিরপুর থানা পুলিশ উপজেলার প্রবেশ মূখ থেকে পশ্চিম বাজার পর্যন্ত বিশৃংখলা এড়াতে পয়েন্টে পয়েন্টে সন্ধ্যা পর্যন্ত অতিরিক্ত পুলিশ অবস্থান করে। পুলিশের অবস্থানের কারনে উপজেলার দলীয় কার্যালয়ে আসতে পারেনি আর বিএনপির ৪০তম প্রতিষ্টা বার্ষিকীর অনুষ্ঠানও পালন করতে পারেনি বিএনপির নেতাকর্মীরা।

নাশকতার অভিযোগে আটক বিএনপির ৬ নেতাকে সোমবার সুনামগঞ্জ আদালতে হাজির করে জামিন আবেদন করলে জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত। তারা হলেন তাহিরপুর উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক রুহুল আমিন, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মাহবুবুর রহমান, প্রচার সম্পাদক সাজিদুল হক, সদস্য কামাল পাশা, উপজেলা শ্রমিকদল সভাপতি ফেরদৌস আলম ও সাধারন সম্পাদক এমদাদুল হুদা।

এদিকে আটক নেতাকর্মীদের মুক্তি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের বিরোদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানিয়েছে সুনামগঞ্জ জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও তাহিরপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান কামরুল। এছাড়াও উপজেলা ও জেলার বিএনপির নেতৃবৃন্দ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবী জানান।

তাহিরপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নন্দন কান্তি ধর জানান, নাশকতার চেষ্টায় শুক্রবার (৩১আগষ্ট) রাতে উপজেলা সদরের পূর্ব বাজার গোপন বৈঠক করার সময় ৭ জনকে আটক করা হয়। মামলাও হয়েছে। এছাড়াও এ উপজেলায় আইন শৃংখলা রক্ষায় সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপারের নির্দেশে আমরা পুলিশ বাহিনী সার্বক্ষণিক সর্তক আছি।


আরো সংবাদ