film izle
esans aroma Umraniye evden eve nakliyat gebze evden eve nakliyat Ezhel Şarkıları indirEzhel mp3 indir, Ezhel albüm şarkı indir mobilhttps://guncelmp3indir.com Entrumpelung wien Installateur Notdienst Wien
১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০

করোনা ভাইরাসে কেউটে-কালাচে আতঙ্ক

করোনাভাইরাসে কেউটে-কালাচে আতঙ্ক - ছবি : সংগৃহীত

চীনের করোনাভাইরাস আতঙ্ক এখন সারা দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে। এর মধ্যেই এই ভাইরাসের সাথে যুক্ত হয়েছে কেউটে-কালাটে আতঙ্ক।

সম্প্রতি ওয়ার্ল্ড ইকনোমিক ফোরামের একটি রিপোর্টে দাবি করা হয়েছে, করোনা ভাইরাসের প্রধান উৎস হলো চীনা কালাচ ও কেউটে সাপ। চীনারা এই দুই বিষধরকে খাবার হিসাবে গ্রহণ করে। চীনের ইউহান বাজারে এই দুই প্রজাতির সাপ বিক্রি হয়। রিপোর্টে বলা হয়েছে, ২০১৯এ ছড়িয়ে পড়া করোনা ভাইরাসের ‘জেনেটিক স্টাডি’ করা হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, ভাইরাসের ‘ক্রাউন’ (যা দেখে ভাইরাসের পোষক বা ‘হোস্ট’ চেনা যায়) বলছে, করোনা ভাইরাসের ২০১৯-এর সংস্করণটি সাপ থেকে এসেছে। প্রথমে বাদুর ও সামুদ্রিক মাছকেই উৎস ভাবা হয়েছিল। কিন্তু, ভাইরাসের ‘ক্রাউন’ হিসাব পাল্টে দিয়েছে। বিশেষজ্ঞরা জানিয়ে দিয়েছে, সাপই এখন সম্ভাব্য প্রধান উৎস।

এই রিপোর্ট প্রকাশ্যে আসার পরই কালাচ ও কেউটে সাপ নিয়ে বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক তৈরি হয়েছে। আতঙ্কের ঢেউ এসে লেগেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যেও। কারণ এ রাজ্যেও এই দুই প্রজাতির সাপ প্রচুর রয়েছে। আতঙ্ক বেড়েছে এক ভারতীয় নার্সের করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার খবরে। জানা গেছে, ওই ভারতীয় নার্সের বাড়ি কেরলের কোয়াট্টামের এট্টুম্যানুরে। সৌদি আরবের ‘এআই হায়াত ন্যাশনাল হসপিটাল’-এ কর্মরত ছিলেন তিনি। করোনা আক্রান্ত ফিলিপাইন সহকর্মীর সেবার ভার ছিল তার উপর। ভাইরাস তার শরীরেও ছড়িয়ে পড়ে। সেবিকার আরো চার সহকর্মীকে আলাদা করে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। তারাও কেরলের বাসিন্দা।

এই পরিস্থিতিতে করোনার সর্পযোগ নতুন করে আতঙ্ক তৈরি করেছে পশ্চিমবঙ্গে। সরীসৃপ বিশেষজ্ঞ বিশাল সাঁতরা জানিয়েছেন, এ রাজ্যে কালাচ ও কেউটে, গোখরো প্রচুর সংখ্যায় রয়েছে। দক্ষিণবঙ্গে কালাচ ও কেউটে ও উত্তরবঙ্গে রয়েছে কৃষ্ণ কালাচ ও গোখরো। এরা কী কী ব্যাকটেরিয়া বা ভাইরাস বহন করছে তা জানতে গেলে গবেষণা প্রয়োজন। এই সরীসৃপদের রক্ত ও ‘বাকল সোয়াব’ বা মুখের লালা সংগ্রহ করে ‘কালচার’ করা প্রয়োজন। হিমাচল প্রদেশ, সিকিম, মিজোরাম ও তামিলনাড়ুতে ইতিমধ্যেই এই নমুনাগুলো সংগ্রহের কাজ শুরু করেছেন বিশালরা। সঙ্গী হয়েছেন ব্রিটেনের ব্যাঙর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক অনীতা মালহোত্রা।

এ রাজ্যেও নমুনা সংগ্রহের অনুমতি চেয়েছিলেন অনীতা-বিশাল। কিন্তু রাজ্যের বনদপ্তর রাজি হয়নি। বিশালের মত, দু’বছর আগে রাজ্যের পনেরোটা জেলা থেকে সাপের বিষ ও নমুনা সংগ্রহ করতে চেয়েছিলাম। অনুমতি পেলে আজ সেই নমুনাগুলো চীনে পাঠিয়ে জেনে নিতে পারতাম আমাদের এখানকার কালাচ-কেউটেরাও এই মারণ ভাইরাস বহন করছে কি না।
আর এক সর্পবিশারদ শিবাজি মিত্রও মনে করছেন, অবিলম্বে এই অনুমতি দেয়া উচিত। বনদপ্তর কেন দরজা বন্ধ করে রেখেছে বুঝতে পারছি না। বিশালদের হয়ে আগে অনেকবার তাগিদ দিয়েছেন সাপে কাটা চিকিৎসার প্রোটোকল প্রণয়নকারী ডা. দয়ালবন্ধু মজুমদার। তিনি জানিয়েছেন, “আমি বহু বছর ধরে বনদপ্তরকে বোঝানোর চেষ্টা করেছি। বাঁকুড়া মেডিক্যালে একটি রিজিওনাল পয়জন সেন্টার খোলার অনুমতিও আদায় করেছি। কিন্তু সাপের বিষ, রক্ত, লালা সংগ্রহের জন্য তো সরীসৃপ বিশেষজ্ঞ চাই। বিশালরা যদি অনুমতি না পান তাহলে কাজ এগোব করে?
সূত্র : সংবাদ প্রতিদিন


আরো সংবাদ

হিজাব পরে মসজিদে ট্রাম্পকন্যা, নেট দুনিয়ায় তোলপাড় (৯৮৭২)উইঘুরদের সমর্থন করে চীনকে কড়া বার্তা তুরস্কের (৯২৩১)গরু কচুরিপানা খেতে পারলে মানুষ কেন পারবেনা? মন্ত্রীর জবাবে যা বললেন আসিফ নজরুল (৭৮০৩)করোনা : কী বলছেন বিশ্বের প্রথম সারির চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা (৬৯৬৭)বাণিজ্যমন্ত্রীকে ব্যক্তিগতভাবে পছন্দ করি : রুমিন ফারহানা (৬৯৩০)ফখরুল আমার সাথে কথা বলেছেন রেকর্ড আছে : কা‌দের (৬৭৯২)আমি কর্নেল রশিদের সভায় হামলা চালিয়েছিলাম : নাছির (৬৫৯৮)চীনে দাড়ি-বোরকার জন্য উইঘুরদের ভয়ঙ্কর নির্যাতন, গোপন তথ্য ফাঁস (৬৫৭২)ট্রাম্পের ভারত সফর : চুক্তি নিয়ে চাপের খেলা (৪৪৯০)খালেদা জিয়ার ফের জামিন আবেদন (৪২৯৬)