০৭ ডিসেম্বর ২০১৯

অযোধ্যা রায় : আলিগড়ের অধ্যাপক নাদিমের অভিমত

অযোধ্যা রায় : আলিগড়ের অধ্যাপক নাদিমের অভিমত - ছবি : সংগৃহীত

বাবরি মসজিদ-সংক্রান্ত ভারতীয় সুপ্রিম কোর্টের রায়কে ‘স্ববিরোধী’ ও ‘একপেশে’ বলে মন্তব্য করেছেন বিখ্যাত আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের চেয়ারম্যান সৈয়দ আলি নাদিম রিজভী। তিনি বলেন, এই রায় ইতিহাসের উপরে বিশ্বাসকেই প্রাধান্য দিলো ও সমুন্নত করল।

তার মতে, শীর্ষ আদালত একদিকে বলছে-মন্দির ভেঙে মসজিদ তৈরি হয়েছে এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। আবার অন্যদিকে ১৫২৮ থেকে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত মসজিদ দাঁড়িয়ে ছিল যেখানে– সেই জমিটিকে মন্দির করার জন্য তুলে দিচ্ছে হিন্দু পক্ষের হাতে এবং বলছে এর নাকি পুরাতাত্ত্বিক প্রমাণও রয়েছে। সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে– ধারাবাহিকভাবে এখানে নামাজ পড়া হয়েছে- এর শক্ত প্রমাণ নেই। অথচ পুরাণের একটি চরিত্র রামের জন্মস্থান বলে দাবি করা জায়গাটিকেই স্বীকার করে নেয়া হচ্ছে। এখানে প্রমাণের চেয়ে বিশ্বাসকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। রিজভীর মতে, এই মামলাটি ছিল জমির মালিকানা স্বত্ত্ব নিয়ে। যদি ওয়াকফ বোর্ডের পক্ষে কোনো প্রমাণই পাওয়া যায়নি– তবে ওদেরকে ৫ একর জমি কেন দেয়া হলো?

সৈয়দ আলি নাদিম রিজভী আরো বলেন, ভারতের শীর্ষ কোর্ট স্বীকার করেছে যে মসজিদে রামলালার মূর্তি স্থাপন বেআইনি কাজ ছিল। অথচ যারা বেআইনি কাজ করল– তাদেরকেই পুরস্কূত করা হলো। আর যাদের মসজিদ ছিল– তাদেরকে অন্যত্র জমি দেয়া হচ্ছে।
তিনি উল্লেখ করেন, অধ্যাপক ইরফান হাবিব–শিরিন মাসুভির মতো ইতিহাসবিদরা বাবরি মসজিদের পক্ষের আইনজীবীদের ঐতিহাসিক তথ্য দিয়ে সহায়তা করেছেন।

আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপক মির্জা আসমার বেগ প্রশ্ন তুলেছেন, এই রায়ের পরেই কি বিজেপি ধর্ম নিয়ে রাজনীতি বন্ধ করে দেবে? মথুরা– কাশীর মসজিদগুলোর দাবি কি ওরা ছেড়ে দেবে? এই রায় ওদেরকে ধর্মস্থানগুলো অধিকারে আরো উৎসাহিত করে তুলতে পারে বলে অধ্যাপক বেগের অভিমত।
সূত্র : পূবের কলম


আরো সংবাদ




Paykwik Paykasa
Paykwik