১৫ নভেম্বর ২০১৯

কাশ্মির নিয়ে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদের রুদ্ধদ্বার বৈঠকে যা হলো

কাশ্মির
কাশ্মির নিয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদ - ছবি: সংগৃহীত

বিরোধপূর্ণ কাশ্মির নিয়ে শুক্রবার রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেছে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদ। ভারতের সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের জেরে সৃষ্ট উত্তেজনার মাঝে পাকিস্তানের আহ্বানে প্রায় ৫০ বছর পর এ সংক্রান্ত বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হলো। তবে বৈঠক শেষে আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি দিতে পারেনি বিশ্বের সর্বোচ্চ ক্ষমতাধর এই কূটনৈতিক ফোরাম।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, চীনের পক্ষ থেকে বৈঠকটি নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বিবৃতির প্রস্তাব দেয়া হলেও স্থায়ী সদস্য যুক্তরাষ্ট্র-ফ্রান্স এবং অস্থায়ী সদস্য জার্মানি তাতে সম্মতি দেয়নি।

তবে বৈঠকে ভারত-পাকিস্তানকে যেকোনো ধরনের একতরফা সিদ্ধান্ত নেয়া বন্ধ করার ব্যাপারে সম্মত হয়েছে স্থায়ী পাঁচ সদস্য।

বৈঠক শেষে জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত চীনের স্থায়ী প্রতিনিধি জু ঝাং সাংবাদিকদের বলেন, নিরাপত্তা পরিষদের সব সদস্যরা কাশ্মির পরিস্থিতি নিয়ে একমত হয়েছেন যে, এই ইস্যুতে ভারত-পাকিস্তানের কোনো একতরফা পদক্ষেপ নেয়া উচিত হবে না।

বৈঠকের আগে রাশিয়া জানায়, কাশ্মির ভারত-পাকিস্তানের দ্বিপাক্ষিক বিষয়। তবে পাকিস্তানের পক্ষে আছে বলে আশ্বাস দিয়েছিল তারা।

যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্স এবং জার্মানি কাশ্মির নিয়ে বিবৃতি দেয়ার বিরোধিতা করে বলে, এ ধরনের কোনো বিবৃতি দিতে হলে তা সর্বসম্মতিক্রমে দেয়া উচিত।

গতকালের ওই বৈঠকে জাতিসঙ্ঘ নিরাপত্তা পরিষদের পাঁচ স্থায়ী সদস্য এবং দশটি অস্থায়ী সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। তবে ভারত ও পাকিস্তানের কোনো প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না।

সিএনএন তাদের প্রতিবেদনে জানিয়েছে, নিরাপত্তা পরিষদের ওই বৈঠক নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমের জাতিসঙ্ঘ বিষয়ক প্রতিবেদকদের সামনেই জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত ভারত ও পাকিস্তানের স্থায়ী প্রতিনিধিদের মধ্যে কথার লড়াই শুরু হয়।

জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত পাকিস্তানের স্থায়ী প্রতিনিধি মালিহা লোদি বলেন, ‘কাশ্মিরের মানুষের দাবি, দখলকৃত কাশ্মিরের মানুষের সেসব কথা বিশ্বের সর্বোচ্চ কূটনৈতিক ফোরাম আজ শুনেছে। নিরাপত্তা পরিষদের এই বৈঠক কাশ্মির সমস্যাকে আন্তর্জাতিক ইস্যু হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।’ কাশ্মির নিয়ে তার দেশ শান্তিপূর্ণ সমাধানে যেতে রাজি আছে বলেও জানান তিনি।

তার কথা বলার মাঝবিরতিতে জাতিসঙ্ঘে নিযুক্ত ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি সৈয়দ আকবর উদ্দিন বলেন, ‘এই গোটা ব্যাপারটাই ভারতের একটি অভ্যন্তরীণ বিষয়। আমাদের কোনো ধরনের আন্তর্জাতিক অনধিকার চর্চার প্রয়োজন নেই।

আকবর উদ্দিন আরো বলেন, ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরে যেসব বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে তা খুব শিগগিরই তুলে নেয়া হবে। পাকিস্তান যেভাবে কাশ্মির ইস্যুতে উদ্বেগ প্রদর্শন করছে, তার সাথে বাস্তব পরিস্থিতির কোনো মিল নেই বলেও দাবি করেন তিনি।


আরো সংবাদ