২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

হিন্দু-মুসলমান ভাগ করে বিজেপি ভোটে জিতেছে : মমতা

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় - ফাইল ছবি

ভোটে হারার পর পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী বিরোধী জোটের অন্যতম শীর্ষ নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়; কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেসের নেতারা সেই প্রস্তাবে রাজি হননি। দলীয় বৈঠকের পর নিজেই একথা জানালেন তৃণমূল নেত্রী। সংবাদ সম্মেলনে মমতা বলেন, চেয়ারের আমাকে প্রয়োজন, আমার চেয়ারের প্রয়োজন নেই।

মমতার অভিযোগ গত পাঁচ মাস রাজ্য সরকারকে কাজ করতে দেওয়া হয়নি। তিনি বলেন, এত কিছু করেও আমাদের ভোট চার শতাংশ বেড়েছে। ওরা জরুরি অবস্থার মতো পরিস্থিতি তৈরি করতে চাইছে। তবু গণতন্ত্রে সংখ্যা জরুরি বিষয়(যেহেতু তারা আসন বেশি পেয়েছে)। মোদীজিকে অভিনন্দন; কিন্তু মনে রাখতে হবে সাম্প্রদায়িকতা বীজ ছড়িয়ে জিতেছে বিজেপি।

মমতা আরো বলেন, হিন্দু-মুসলমান ভোট ভাগাভাগি করেই ওরা জিতেছে। আমি কখনও এসব করি না। দরকার হলে একা থাকতে রাজি আছি।
গত কয়েক মাসের পরিস্থিতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমি নির্বাচন কমিশনের হাতে ক্ষমতাহীন মুখ্যমন্ত্রী ছিলাম। ভাটপাড়ায় দাঙ্গা চালানোর সুযোগ করে দিয়েছে কমিশন। মমতার দাবি পাঁচ হাজার টাকা করে দিয়ে বিজেপি ভোট কিনেছে। পরিবারে পাঁচ জন সদস্য থাকলে ২৫ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে।

নির্বাচন কমিশন বিজেপির হয়ে কাজ করেছে বলে অভিযোগ করেন মমতা। তার দাবি, কেন্দ্রীয় বাহিনী ও সরকারি কর্মকর্তাদের ব্যবহার করে টাকা ঢুকিয়ে দিতে পুলিশ কর্মকর্তাদের বদল করেছে কমিশন। মমতা বলেন, আমরা এখনও রাজ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ দল তবু বিজেপি ভাঙচুর করেছে। কংগ্রেস কখনও কখনও আত্নসমর্প করে। আমি করি না।

লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে একাধিকবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী থেকে শুরু করে বিজেপি সভাপতি অমিত শাহ বলেন পাকিস্তানকে সাহায্য করছে বিরোধীরা। সেই বিষয়ের উল্লেখ করে মমতা বলেন, পাকিস্তানকে শপথ গ্রহণে ডাকা হচ্ছে আর নির্বাচনের সময় সবাইকে পাকিস্তানের চর বলা হয়েছে। এই দ্বিচারিতার কারণ কী? ইভিএমে কারচুপি হয়েছে বলে মমতার অভিযোগ। তার প্রশ্ন পাঁচ ছটা রাজ্যে বিরোধীরা একটা আসন পায়নি। সেটা হয় কী করে হয়? ইভিএমে কারচুপি করা হয়েছে। যে সমস্ত আসনে আমরা এক লাখ ভোটের কমে হেরেছি সেগুলো নিয়ে আমার সন্দেহ আছে। সূত্র: এনডিটিভি


আরো সংবাদ




gebze evden eve nakliyat Paykasa buy Instagram likes Paykwik Hesaplı Krediler Hızlı Krediler paykwik bozdurma tubidy