১৮ আগস্ট ২০১৯

নিজস্ব প্রযুক্তির জাহাজ বিধ্বংসী ক্রুজ মিসাইল পরীক্ষা পাকিস্তানের

পাকিস্তানের একটি যুদ্ধ জাহাজ থেকে সাগর থেকে সাগরে এবং সাগর থেকে ভূমিতে নিক্ষেপযোগ্য ক্রুজ মিসাইলের সফল পরীক্ষা করা হয় - সংগৃহীত

নিজস্ব প্রযুক্তিতে নির্মিত জাহাজ বিধ্বংসী ও ভূমিতে হামলায় সক্ষম ক্রুজ মিসাইলের পরীক্ষা চালিয়েছে পাকিস্তানের নৌবাহিনী। মঙ্গলবার উত্তর আরব সাগরে দ্রুত হামলায় সক্ষম বা ফাস্ট অ্যাটাক ক্রাফট একটি জাহাজ থেকে এই পরীক্ষা চালানো হয়।

পাকিস্তানের আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ (আইএসপিআর) অধিদফতর এ খবর জানিয়েছে।

নিজস্ব প্রযুক্তির ক্ষেপণাস্ত্রের বৈশিষ্ট্যের বিবরণ দিতে গিয়ে এক বিবৃতিতে দেশটি বলছে, ভূমিতে নির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুতে যথাযথভাবে হামলা চালাতে সক্ষম এ ক্ষেপণাস্ত্র। এতে বলা হয়, জাহাজ থেকে ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্রের এই পরীক্ষা পাকিস্তানের নৌবাহিনীর সক্ষমতার বিশ্বাসযোগ্য প্রমাণ। এর মধ্য দিয়ে পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা শিল্প নতুনমাত্রা পেয়েছে।

এতে আরও বলা হয়, এ প্রযুক্তির ক্ষেত্রে আত্মনির্ভরতাই ফুটে উঠেছে নতুন এ পরীক্ষার মাধ্যমে। এই ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষার ঘটনায় সন্তোষ প্রকাশ করেন পাকিস্তানের নৌবাহিনীর উপপ্রধান অ্যাডমিরাল খালিম শওকত। প্রকল্পটির প্রকৌশলী ও গবেষকদেরও ধন্যবাদ জানিয়েছেন তিনি।

পাকিস্তানের নৌবাহিনীর পক্ষ থেকে জানানো হয়, হামলায় ব্যবহৃত দ্রুতগামী জাহাজ থেকে অত্যাধুনিক এই ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা করা হয়। উত্তর আরব সাগরের একটি যুদ্ধজাহাজ থেকে ছোঁড়া ক্ষেপণাস্ত্র ভূমি থেকে লক্ষ্যবস্তুতে সফল ভাবে আঘাত হেনেছে। শুধু তাই নয়, মুহূর্তে তা ধ্বংস করে দিয়েছে বলেও পাকিস্তানের তরফে জানানো হয়েছে। একই সঙ্গে পাকিস্তান নৌবাহিনীর তরফে আরও জানানো হয়েছে যে, এই ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে সাগর থেকে সাগরে বা সাগর থেকে ভূমির লক্ষ্যবস্তুতে হামলা করা যাবে।

দেশীয় প্রযুক্তিতে এই মিসাইল তৈরি করেছে পাকিস্তান নৌবাহিনী। নতুন ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার মধ্য দিয়ে পাকিস্তানের নৌবাহিনীর প্রস্তুতি এবং আধুনিক অস্ত্র নির্মাণের সক্ষমতা ফুটে উঠেছে। গত ২৪ ঘণ্টা আগেই পাকিস্তানের উপকূলীয় নিরাপত্তা জোরদার করা হবে বলে পাকিস্তান সরকার সিদ্ধান্ত নেয়। আর এরপরেই অত্যাধুনিক এই মিসাইলের পরীক্ষা চালানো হয়। সূত্র : স্পুটনিক নিউজ।


আরো সংবাদ




bedava internet