২১ মে ২০১৯

বিস্ফোরণে তিন সন্তানের মৃত্যু ধনীতম ব্যক্তির

বিস্ফোরণে তিন সন্তানের মৃত্যু ধনীতম ব্যক্তির - সংগৃহীত

রোববার শ্রীলঙ্কার ভয়াবহ বিস্ফোরণ কেড়ে নিলো ডেনমার্কের ধনীতম ব্যক্তির তিন সন্তানের প্রাণ। ওই ব্যক্তির নাম আন্দ্রেস হলচ পওলসেন। পওলসেন ফ্যাশন ফার্মের মুখপাত্র সোমবার এই কথা জানালেন। যদিও নিরাপত্তার খাতিরে আর কোনো তথ্য দিতে অস্বীকার করেন ওই মুখপাত্র। তবে, ড্যানিশ মিডিয়া জানিয়েছে, ওই পরিবারটি শ্রীলঙ্কাতে ছুটি কাটাতে গিয়েছিল। বিলাসবহুল হোটেল ও গির্জায় একের এক বিস্ফোরণে রোববার শ্রীলঙ্কায় প্রাণ হারান ২৯০ জন। আহত হন ৫০০ জন। এক পদস্থ তদন্তকারী অফিসার জানান, এই হানায় অংশ নিয়েছিল আত্মঘাতী উগ্রপন্থীরা।

‘বেস্টসেলার' ফ্যাশন ফার্মের মালিক হলেন পওলসেন। যেখানে ভেরো মোদা এবং জ্যাক অ্যান্ড জোনসের মতো ব্র্যান্ডও রয়েছে। ফোর্বসের পক্ষ থেকে জানানো হয়, স্কটল্যান্ডের মোট জমির ১ শতাংশেরও বেশির মালিক তিনি।

দীর্ঘ এক দশক ধরে শান্ত ছিল শ্রীলঙ্কা। লিবারেশন টাইগার্স অব তালিম এলম (এলটিটিই)-এর সঙ্গে ২৬ বছরের গৃহযুদ্ধ শেষ হয় ওই বছরেই। সেই শান্ত সিংহল দ্বীপ আচমকা অশান্ত হয়ে উঠল রোববার। ভয়াবহ বিস্ফোরণের সকাল থেকে বিকেল অবধি কেঁপে উঠল শ্রীলঙ্কা। আসলে ফের আরো একবার সন্ত্রাসবাদীর হানার কাছে কেঁপে গেল গোটা বিশ্ব। তিনটি হোটেল ও তিনটি গির্জায় পরপর বিস্ফোরণ হয়।

আবার বিস্ফোরণ কলম্বোয়, নিষ্ক্রিয় করার সময় পুলিশ ভ্যানে ফেটে গেল বোমা

আবার বিস্ফোরণ কলম্বোয়। নিষ্ক্রিয় করার সময় পুলিশ ভ্যানে ফেটে গেল বোমা। জানা গেছে কলম্বোর রাস্তায় একটি গির্জার পাশে এই ঘটনাটি ঘটেছে। এই গির্জাতেও আক্রমণ নেমে এসেছিল। ভ্যানের ভেতর বসে বোমা গুলি নিস্ক্রিয় করার কাজ চলছিল। সে সময় বিস্ফোরণ ঘটে বলে ঘটনাস্থলে উপস্থিত ব্যক্তিদের থেকে জানতে পেরেছে একটি সংবাদ সংস্থা। ঘটনা সম্পর্কে নিরাপত্তা কর্মকর্তার বক্তব্য জানা যায়নি এখনও। সংবাদ সংস্থা র‍য়টার্স সূত্রে এই খবর পাওয়া গেছে।

"আন্তর্জাতিক হাত" রয়েছে এই ভয়াবহ বিস্ফোরণের নেপথ্যে: শ্রীলঙ্কা
সংবাদসংস্থা এএফপি'র কাছে যে নথিপত্র এসেছে, তাতে দেখা যাচ্ছে, ১১ এপ্রিল একটি সতর্কতা জারি করেছিলেন শ্রীলঙ্কার পুলিশ প্রধান। যাতে বলা হয়, “আন্তর্জাতিক গোয়েন্দা সংস্থা'-র মাধ্যমে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী, এনটিজে গির্জা ও ভারতীয় দূতাবাসে বড়সড় হামলা চালাতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

এ সংগঠনটি সম্বন্ধে বেশি তথ্য নেই কারো কাছে। কেবলমাত্র বৌদ্ধধর্মের মূর্তি ভাংচুর করার জন্যই যারা এতদিন শিরোনামে এসেছিল। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে উগ্র সংগঠনের ২৪ জন সদস্যকে আপাতত পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, সরকার এই বিস্ফোরণের পর মধ্যরাত থেকে দেশে ইমারজেন্সি জারি করেছে। একটি বিবৃতি দিয়ে এই কথা জানান শ্রীলঙ্কার রাষ্ট্রপতি মৈথিরিপালা সিরিসেনা।

সরকারের পক্ষ থেকে এই কথাও জানানো হয় যে, সোমবার রাত আটটা থেকে মঙ্গলবার ভোর ছ'টা পর্যন্ত কার্ফু জারি থাকবে।

এক ডজনেরও বেশি বিদেশিসহ সরকারি হিসেব অনুযায়ীই এই বিস্ফোরণগুলিতে প্রাণ হারিয়েছেন কমপক্ষে ২৯০ জন। আহত হয়েছেন ৫০০'র বেশি মানুষ।


আরো সংবাদ




agario agario - agario