২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ভারতে গণধর্ষণের শিকার মেধাবী ছাত্রী

ভারত
প্রতিকী ছবি - ছবি: সংগৃহীত

ভারতের হরিয়ানায় গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন এক মেধাবী ছাত্রী। ১৯ বছরের ওই ছাত্রীকে কোচিং থেকে বাড়ি ফেরার পথে গণধর্ষণ করে এক দল অপরিচিত দুষ্কৃতী। মেয়েটি বাড়ি ফেরার সময় তাকে জোর করে গাড়িতে তুলে নেয় দুষ্কৃতীরা। এরপরই শারীরিক নিগ্রহ করা হয় তাকে।

সংবাদ সংস্থার সূত্রে আনন্দবাজার পত্রিকার খবর, এই তরুণী দশম শ্রেণীর পরীক্ষায় সিবিএসই-র শীর্ষ স্থানাধিকারী ছিলেন কয়েক বছর আগে। রাষ্ট্রপতির হাত থেকে পুরস্কারও নিয়েছেন তিনি। মেধাবী এই ছাত্রী হরিয়ানার রেওয়ারি জেলার বাসিন্দা। কলেজের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী কোচিংয়ে গিয়েছিলেন বুধবার সন্ধ্যায়। তার পরিবারের অভিযোগ, বাড়ি ফেরার পথে কয়েকজন ব্যক্তি ওই তরুণীকে জোর করে তুলে নিয়ে যায়। একটি ফাঁকা মাঠে নিয়ে গিয়ে তাকে গণধর্ষণ করে। ঘটনাস্থলে হাজির আরো কয়েকজন মেয়েটিকে শারীরিক নিগ্রহ করে। এর পর কানিনায় একটি বাসস্ট্যান্ডের সামনে অচৈতন্য অবস্থায় তাকে ফেলে রেখে চলে যায় দুষ্কৃতীরা।

এই ছাত্রীকে শারীরিক নিগ্রহের ঘটনার কথা প্রকাশ্যে আসে বুধবারই। তার পরিবারের তরফে থানায় অভিযোগ জানালে তা নেয়া হয়নি। থানায় গেলে দু্ষ্কৃতীদের পক্ষ থেকে তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেয়া হয়।

সংবাদ সংস্থা সূত্রে খবর, রেওয়ার মহিলা থানার পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ঘটনায় ‘জিরো এফআইআর’ দায়ের করা হয়েছে। কারণ ধর্ষণের ঘটনাটি কোথায় ঘটেছে, তা এখনও স্পষ্ট নয়। এলাকা জানা গেলেই সংশ্লিষ্ট থানা তদন্ত শুরু করবে।

পুলিশ জানিয়েছে, নির্যাতিতার অভিযোগ, দুষ্কৃতীরা তার গ্রামেরই বাসিন্দা।

আরো পড়ুন :
ভারতে গণধর্ষণের পর গর্ভবতী ছাগলের মৃত্যু
জি নিউজ, ৩০ জুলাই ২০১৮
ঘৃণ্য বা জঘন্য অপরাধ বললেও হয়তো কম বলা হবে। হরিয়ানার মেওয়াটে এমন কাণ্ড ঘটল যা শোনার পর আপনার রক্ত ফুটতে শুরু করতে পারে। আটজন মিলে এক গর্ভবতী ছাগলকে ধর্ষণ করল। পাশবিক অত্যাচারের জেরে সেই গর্ভবতী ছাগল শেষ পর্যন্ত মারা যায়। এমন জঘন্য কাজ করা আটজন অপরাধীকে শেষমেশ গ্রামবাসীরা আটক করে গণধোলাই দেয়। মারের মুখে অপরাধের কথা স্বীকার করে তারা।

গত বেশ কয়েকদিন ধরেই সেই গর্ভবতী ছাগলকে উত্যক্ত করত ওই আটজন। ছাগলের মালিক বহুবার তাদের নিষেধ করা সত্ত্বেও তারা কথা শোনেনি। দিন দিন সেই ছাগলকে বিরক্ত করার মাত্রা ছাড়াতে থাকে। ছাগলের মালিক আসলুপ খান এমন কিছু একটা কাণ্ড ঘটার আঁচ পেয়েছিলেন আগে থেকেই। কিন্তু শেষমেশ নিজের পোষা নিরিহ এই প্রাণীকে আট পাষণ্ডের হাত থেকে রক্ষা করতে পারলেন না।

গ্রামবাসীদের একজনের বক্তব্য অনুযায়ী- আসলুপ খানের বাড়ির দালান থেকে ওই ছাগলকে চুরি করে নিয়ে যায় আটজন। রাতের অন্ধকারে ছাগলটিকে একটি পরিত্যক্ত জায়গায় নিয়ে গিয়ে আটজন মিলে নির্মমভাবে ধর্ষণ করে। তারপর পাঁচজন ঘটনাস্থল থেকে চলে গেলেও বাকি তিনজন পরিস্থিতি স্বাভাবিক দেখানোর জন্য বাড়ি ফিরে আসে। ইতোমধ্যে আসলুপ তার ছাগল না পেয়ে খুজতে বের হয়। গর্ভবতী ছাগলটি যন্ত্রণায় কাতরাতে কাতরাতে চিত্কার করতে থাকে। আসলুপ ঘটনাস্থলে পৌঁছে দেখে ছাগলটি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে।

স্থানীয় নাগিনা পুলিশ চৌকির এসআই রাজবীর সিং বলছিলেন, আসলুপ খান আমাদের কাছে এসে ওই আটজনের নামে অভিযোগ দায়ের করেছে। সাভাকর, হারুন, জাফর ও তার বাকি পাঁচ সঙ্গীর নামে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। মৃত ছাগলটির মেডিক্যাল করা হবে।

এদিকে, ছাগলটির মালিক আসলুপ খান বলছিলেন, ওরা কয়েকদিন ধরেই আমার গর্ভবতী ছাগলটিকে বিরক্ত করত। আমি নিষেধ করায় প্রথমে ওরা চলে যায়। কিন্তু কিছুক্ষণ পর আবার ওরা ফিরে আসে। আমি তখন কাছাকাছি ছিলাম না। সেই সুযোগে ওরা আমার ছাগল চুরি করে। রাতের অন্ধকারে ওকে নির্জন জায়গায় নিয়ে গিয়ে অত্যাচার করে। পরে ওদের গ্রামবাসীরা হাতেনাতে ধরে ফেলে।

অপরাধীদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৩৭৭ ও ৪২৯ ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে। তা ছাড়া অবলা পশুর উপর নারকীয় নির্যাতনের জন্যও অভিযোগ দায়ের হয়েছে। ইতোমধ্যে অবশ্য গ্রামের পঞ্চায়েতে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু শেষমেশ পুলিশি হস্তক্ষেপে তা আর হয়নি।


আরো সংবাদ