১৫ নভেম্বর ২০১৮

কারো সাথে আপস করবে না পাকিস্তান: ইমরান খান

কারো সাথে আপস করবে না পাকিস্তান: ইমরান খান - সংগৃহীত

পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মিরের জনগণের প্রতি রাজনৈতিক, কূটনৈতিক ও নৈতিক সমর্থন অব্যাহত রাখবে পাকিস্তান। এই ইস্যুতে কারো সাথে আপস করা হবে না। এমনকি কাশ্মির ইস্যুতে যত হুমকি বা আন্তর্জাতিক চাপ-ই আসুক না কেন তাতে ভীত হয়ে নিজ অবস্থান থেকে সরে দাঁড়াব না।

আজাদ কাশ্মিরের প্রধান মাসুদ খানের সাথে এক বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন বলে বৃহস্পতিবার খবর দিয়েছে ইরানের বার্তা সংস্থা `তাসনিম`।

ইমরান খান কাশ্মিরী জনগণের অধিকার বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়ে বলেন, পাকিস্তান জাতিসঙ্ঘের সহযোগিতায় ভারতকে কাশ্মিরীদের ভবিষ্যৎ নির্ধারণের অধিকার দেওয়ার বিষয়ে রাজি করানোর চেষ্টা করছে। কাশ্মির ভারতের সাথে থাকবে কি থাকবে না সে বিষয়টি কাশ্মিরীদের গণভোটের মাধ্যমে নির্ধারণ করা উচিৎ। 

এ সময় তিনি কাশ্মিরীদের ওপর ভারতীয় সেনাবাহিনী হামলার নিন্দা জানান।  ভারত সরকার জম্মু-কাশ্মিরে বিপুল সংখ্যক সেনা মোতায়েন করে রেখেছে। এর ফলে সেখানকার জনগণের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যহত হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। কাশ্মিরের জনগণ সব সময় জাতিসঙ্ঘের ইশতেহার অনুযায়ী সমস্যা সমাধানের দাবি জানিয়ে আসছে। ওই ইশতেহারে গণভোটের মাধ্যমে কাশ্মিরী জনগণের বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের কথা বলা হয়েছে। কিন্তু ভারত সরকার তাতে রাজি হচ্ছে না। 

 

তিন বেডরুমের বাসায় ইমরান খান, প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন হবে বিশ্ববিদ্যালয়!
ডন ও এনডিটিভি, ২০ আগস্ট ২০১৮

তিন বেডরুমের একটি বাসায় থাকবেন ইমরান খান। প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে থাকবেন না তিনি। প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করার পরিকল্পনা আছে তার!

রবিবার পাকিস্তানের স্থানীয় সময় রাত সাড়ে ৯টায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেওয়া প্রথম বক্তব্যে এসব কথা বলেন ইমরান খান। ওই বক্তব্যের মাধ্যমে ‘নয়া পাকিস্তানের’ রোডম্যাপ সম্পর্কে ধারণা দেন তিনি।

বক্তব্যের শুরুতেই দেশটির দুর্নীতি, দরিদ্রতা, অপচয় নিয়ে কথা বলেন ইমরান। জোর দেন অপচয়রোধ করে শিশুস্বাস্থ্য, শিক্ষায় খরচ বাড়ানোর। নিজেও সব ধরনের কম খরচ করার ঘোষণা দিলেন তিনি।

ইমরান খান জানান, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে কাজ করেন ৫২৪ জন কর্মী। তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদের আগেই বলেছি, আমি প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে থাকব না। মিলিটারি সেক্রেটারির একটি বাসায় থাকব। বাসাটি তিন বেডরুমের। দুজন কর্মী রাখব। দুটি গাড়ি রাখব। দুই গাড়ি কেন রাখব, কারণ বলা হয়েছে নিরাপত্তার বিষয়টি আছে।’

ইমরান খান বলেন, ‘আসলে আমি আমার নিজের বাড়িতেই থাকতে চেয়েছিলাম। আমি পয়সা খরচ করতে চাইছিলাম না। কিন্তু এজেন্সি বলছে, আমার প্রাণের আশঙ্কা আছে, নিরাপত্তার প্রয়োজনীয়তা আছে। এ কারণে আমি সেখানে থাকছি। নয়তো আমি আরামেই বানিগালায় থাকতে পারতাম। কোনো খরচই হতো না।’

কেবল দুটি গাড়ি রাখার পাশাপাশি বিলাসবহুল অন্য গাড়ির ব্যাপারেও নিজের পরিকল্পনার কথা জানান ইমরান খান। বুলেটপ্রুফ এসব গাড়ি তিনি বিক্রি করে দিতে চান। নিলামে এসব গাড়ি বিক্রি করা হবে জানিয়ে ইমরান খান বলেন, ‘আমি ব্যবসায়ীদের ডাকব এবং তাদের কাছে এগুলো বিক্রি করব।’

প্রধানমন্ত্রীর বর্তমান বাসভবনকে একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে চান ইমরান। তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনকে বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত করার ইচ্ছা আছে।’ দেশটির গভর্নর হাউসগুলোর খরচ কমানোর ব্যাপারেও উদ্যোগ নেবেন ইমরান। সরকারি খরচ-সংক্রান্ত বিষয়ে তিনি একটি কমিটিও করেছেন।

দেশের উদ্দেশে ইমরান খান বলেন, ‘নয়া পাকিস্তানের নয়া চিন্তাও প্রয়োজন। আমাদের চিন্তা করতে হবে, আমরা কী রেখে যাচ্ছি।’ বিদেশে পাচার হওয়া অর্থও দেশে ফিরিয়ে আনা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন ইমরান খান।


আরো সংবাদ