১৬ নভেম্বর ২০১৮

পাকিস্তানের প্রথম নারী প্রধান বিচারপতি তাহিরা

পাকিস্তানের প্রথম নারী প্রধান বিচারপতি সাইয়েদা তাহিরা সাফদার - সংগৃহীত

সাইয়েদা তাহিরা সাফদার নামে একজন নারী বিচারপতিকে পাকিস্তানের বেলুচিস্তান হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এরইমধ্যে তিনি শপথ আনুষ্ঠানিকভাবে নিয়েছেন।

পাকিস্তানের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো নারীকে প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দেয়া হলো।  

বেলুচিস্তানের গভর্নর মুহাম্মাদ খান আচাকজাই প্রাদেশিক রাজধানী কোয়েটার গভর্নর ভবনে বিচারপতি তাহিরার শপথ পড়ান। শপথ অনুষ্ঠানে সিনিয়র  বিচারক ও আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন।  

বিচারপতি সাফদার তাহিরা হচ্ছেন বেলুচিস্তান হাইকোর্টের ১৮তম প্রধান বিচারপতি। তিনি সাবেক প্রধান বিচারপতি মুহাম্মাদ নূর মুসকানজাইয়ের স্থলাভিষিক্ত হবেন।

এর আগে সাফদার তাাহিরাই ছিলেন বেলুচিস্তান প্রদেশের প্রথম সিভিল জজ এবং পরবর্তীতে তিনি সুনামের সঙ্গে বেলুচিস্তান হাইকোর্টের বিচারপতি নিযুক্ত হন।

মার্কিন কংগ্রেস সদস্যের দৌড়ে প্রথম মুসলিম নারী
এএফপি, ০৩ আগস্ট ২০১৮

যুক্তরাষ্ট্রের একটি ব্যাতিক্রমী দৃশ্য, গোলাপী হিজাব পড়া একজন মহিলা ম্যাসাচুয়েটস ট্রাফিক নিয়ন্ত্রণের জায়গায় দাঁড়িয়ে রাস্তায় চলাচলরত গাড়িতে বিভিন্ন মানুষের কাছে তাকে কংগ্রেস সদস্য নির্বাচিত করার জন্য ভোট চাইছেন।
তাহেরা আমাতুল ওয়াদুদ নামের এই নারী প্রার্থী একজন পথচারীর সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন, বলছেন আপনি কেমন আছেন। বিরক্ত হয়ে অনেক গাড়ির চালক দীর্ঘ সময় হর্ন বাজাচ্ছে। কৌতুহলী হয়ে চালকরা জানালা দিয়ে মাথা বের করে খেয়াল করছে। কিছু চালক খেয়াল না করে চলে যাচ্ছে।

আমাতুল ওয়াদুদ সাত সন্তানের জননী, একজন আইনজীবী, সমাজকর্মী এবং একজন মুসলমান। তিনি সূর্যোদয়ের আগে ঘুম থেকে ওঠেন। পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন এবং রোজা রাখেন। তার বয়স ৪৪ বছর। জীবনে অনেক বড় বাধার সম্মুখীন হয়েছেন উল্লেখ করে বলেন, নির্বাচনী এলাকার বেশির ভাগ মানুষই শ্বেতাঙ্গ, এখানে খ্রিষ্টান ক্যাথলিক অধ্যুসিত এলাকায় প্রথম মুসলিম কংগ্রেস সদস্য নির্বাচিত হওয়ার একটি বড় বাধা।

কিন্তু এটি তার জন্য কোনো ধর্মের বিষয় না, এটি নীতি নির্ধারণের বিষয়। এটি ভালো প্রতিনিধিত্বের বিষয় এবং পশ্চিম ম্যাসাচুয়েটস এলাকায় জীবনমান উন্নয়নের বিষয়। এই এলাকায় অন্যতম সমস্যা বেকারত্ব। এ ব্যাপারে তিনি এএফপিকে বলেন, আমি সবসময় ধর্মীয় কথা বলি না কারণ আমি ধর্মীয় আলোকে নেতৃত্ব করতে চাই না। এবছর কংগ্রেস সদস্যের দৌঁড়ে সদা হাসি মুখে থাকা আইনজীবী আমাতুল-ওয়াদুদ নারীর জাগরণের অংশ এবং তিনি একজন প্রগতিশীল ডেমোক্রেট। যিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরোধী মনভাবে উদ্বুদ্ধ। মার্কিন হাউস অফ রিপ্রেনটেটিভএ প্রথম মুসলিম এই নারী মিনেসোটার কেইথ এলিসনের ১২ বছর পরে একজন মুসলিম নারী হিসেবে নভেম্বরে মিডটার্ম নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

যদি তিনি জয়ী হন তাহলে তিনি হবেন তার জেলার এবং আফ্রিকান আমেরিকান প্রথম নারী কংগ্রেসম্যান।

বৈচিত্রের শক্তিতে শক্তিশালী হবে অস্ট্রেলিয়া : প্রথম মুসলিম নারী সিনেটর
বিবিসি, ১৭ আগস্ট ২০১৮

অস্ট্রেলিয়ার প্রথম মুসলিম নারী সিনেটর হিসেবে যোগদান করেছেন মেহেরিন ফারুকি। দেশটির চলমান বর্ণবাদ বিতর্কের মধ্যেই বুধবার তিনি নিয়োগ পেয়েছেন।  মেহেরিন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলিয়ান।

সিনেটর হওয়ার পর গণমাধ্যমে দেয়া দেয়া এক সাক্ষাৎকারে মেহেরিন ফারুকি বলেন ‘বৈচিত্রের শক্তিতে আরও শক্তিশালী হবে অস্ট্রেলিয়ার ভবিষ্যৎ।’

প্রথমদিনেই আরেক সিনেটর ফ্রেসার অ্যানিংয়ের মুসলিম অভিবাসন বিরোধী বক্তব্য নিয়ে উত্তাল ছিল সংসদ। মেহেরিন ফ্রেসার অ্যানিংয়ের বর্ণবাদী মন্তব্য সম্পর্কে বলেন, ‘এর মতো খারাপ আর কিছু হতে পারে না।’

মেহেরিন গ্রিনস পার্টি থেকে নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রতিনিধিত্ব করছেন। একটি শূন্যপদ পূরণে নিউ সাউথ ওয়েলস থেকে নির্বাচিত গ্রিন পার্টির এ সংসদ সদস্যকে বুধবার সিনেট সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।

১৯৯২ সালে পরিবারের সাথে অস্ট্রেলিয়ায় যান মেহরিন। রাজনীতিতে প্রবেশের আগে পরিবেশ ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ডক্টরেট করেন। ২০১৩ সালের পার্লামেন্ট নির্বাচনের মাধ্যমে এমপি হন তিনি।

আগামী সপ্তাহে তিনি শপথ নেবেন বলে জানা গেছে। গণহত্যা সংক্রান্ত ইস্যু ব্যবহার করে সমালোচিত ফ্রেসার অ্যানিংয়ের কঠোর সমালোচনা করে আসছিলেন মেহরিন।

সিনেট সদস্য নির্বাচিত হওয়ার পর সংসদে প্রথম বক্তব্যে বুধবার তিনি বলেন, অ্যানিং লাখ লাখ অস্ট্রেলিয়ানের মুখে ঘৃণা ও বর্ণবাদের বমি উদগিরিত করছেন। আমি একজন মুসলিম অভিবাসী। আমি সিনেটর হচ্ছি। ফ্রেশার ম্যানিং তো এখানে কাঁচকলাটাও করতে পারবেন না।


আরো সংবাদ