১৩ নভেম্বর ২০১৮

ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি প্রকাশে প্রেমিকার হুমকিতে তরুণের আত্মহত্যা!

ভারত
প্রতিকী ছবি - ছবি: সংগৃহীত

প্রেমিকের সাথে ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি প্রকাশের হুমকিতে অনেক প্রেমিকার আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেলেও এবার জানা গেলো প্রেমিকার হুমকিতে আত্মহত্যা করেছেন এক তরুণ প্রেমিক।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সোনারপুর থানার দোলতলা এলাকার ঘটনা।

মৃতের নাম সৌরভ ঘোষ। গত ১৯ জুলাই উত্তর ২৪ পরগনার হৃদয়পুর স্টেশনে ট্রেনের সামনে ঝাঁপ দেন সৌরভ। ২১ জুলাই বেসরকারি হাসপাতালে মৃত্যু হয় ২১ বছরের ওই তরুণের।

সোনারপুরের দোলতলার বাসিন্দা সৌরভের সাথে দীর্ঘদিনের সম্পর্ক ছিল ওই তরুণীর। তবে তরুণী সেই সম্পর্ককে সামনে রেখে সৌরভের কাছ থেকে টাকা আদায় করতো বলে অভিযোগ। সম্প্রতি সেই মাত্রা বেড়ে যায়। ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি প্রকাশ করার ভয় দেখিয়ে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। অথবা তাকে বিয়ে করতে হবে বলে চাপ দেয় বলে অভিযোগ সৌরভের পরিবারের।

পরিবারের অভিযোগ, ধর্ষণের অভিযোগের নামে সৌরভকে ব্ল্যাকমেল করে তরুণী। পরিবার থেকে বলা হচ্ছে, আত্মহত্যার আগে ভিডিও বার্তায় সৌরভ জানান, তার প্রেমিকা ঘনিষ্ঠ মুহূর্তের ছবি, পরিবারের হাতে তুলে দেয়ার ভয় দেখিয়ে তার কাছে বারবার টাকা চায়। টাকা না দেয়ায়, তরুণের ছবি দিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় কুরুচিকর মন্তব্য করে প্রেমিকা। এমনকি, ধর্ষণের অভিযোগে ফাঁসিয়ে দেওয়ার হুমকিও দেয়া হয়।

প্রেমিকার থেকে চাপ আসার কথা বন্ধুদের জানিয়েও ছিল সৌরভ। বন্ধুদের পক্ষ থেকে পাশে থাকার আশ্বাসও দেয়া হয়। কিন্তু সেসবে আস্থা না রেখে ট্রেনের সামনে ঝাঁপ দেয় ওই তরুণ।

তরুণের পরিবারের পক্ষ থেকে প্রেমিকার বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে সোনারপুর থানায়। মৃতের মোবাইল থেকে ভিডিও ক্লিপ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সূত্র : ওয়ান ইন্ডিয়া, এবিপি আনন্দ

আরো পড়ুন :
মিথ্যে ধর্ষণ মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিয়ে ‘ব্ল্যাকমেল’, মা-মেয়েসহ আটক ৪
ভুয়ো ধর্ষণ মামলায় ফাঁসিয়ে বিভিন্ন ব্যক্তিদের ব্ল্যাকমেল করে তাদের থেকে টাকা আদায় করার চক্রের সন্ধান পাওয়া গেছে ভারতের হরিয়ানায়। এ ঘটনায় আটক করা হয়েছে মা-মেয়েসহ চারজনকে।

খবরে প্রকাশ, অভিযুক্তরা হল রাজনন্দিনী, তার মেয়ে নেহা এবং দুই পুরুষ সদস্য জীবন ও রাহুল। চারজনের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় মামলা রুজু করা হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, ধৃতরা বিভিন্ন লোকজনকে মিথ্যে ধর্ষণের মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিয়ে তাদের থেকে মোটা টাকা আদায় করত। ধৃতদের থেকে একটি আইফোন, চারটি সই করা ব্যাঙ্ক চেক, একটি হন্ডা অ্যাক্টিভা স্কুটার এবং একটি মারুতি অল্টো গাড়ি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। এছাড়া প্রায় তিন লাখ টাকা নগদও উদ্ধার হয়েছে।

পুলিশ জানিয়েছে, এই চক্রের এক শিকার হলেন কুটেল গ্রামের বাসিন্দা কৃষাণ কুমার নামে এক পশুচিকিৎসক। সম্প্রতি তিনি অভিযোগ করেন, তাকে জালে ফাঁসিয়েছে নেহা। তিনি জানান, ওই চক্র তার থেকে ২৫ লাখ টাকা চেয়েছে। টাকা না দিলে, তাকে মিথ্যে ধর্ষণের মামলায় জড়িয়ে দেয়া হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়।

গোটা বিষয়টি গ্রাম পঞ্চায়েতকে জানালে, তারা কৃষাণকেই দোষী সাব্যস্ত করে নেহাকে তিন লাখ টাকা দেয়ার রায় দেয়। এরপরই পুলিশের দ্বারস্থ হন ওই পশুচিকিৎসক। পুলিশ তদন্ত শুরু করে। ধীরে ধীরে এই চক্রের পর্দা ফাঁস হয়। শনিবার আটককৃতদের আদালতে পেশ করা হলে চারজনকেই জেল হেফাজতের নির্দেশ দেন বিচারক। - এবিপি আনন্দ, ৯ জানুয়ারি, ২০১৭


আরো সংবাদ