film izle
esans aroma Umraniye evden eve nakliyat gebze evden eve nakliyat Entrumpelung wien Installateur Notdienst Wien
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আসছেন ব্রাজিলের জুলিও সিজার

-

এবারের বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপে আনা হবে একজন ফিফা লিজেন্ডকে। কিন্তু কে আসছেন বাংলাদেশে, এ নিয়ে আলোচনা চলছিল বেশ কয়েক দিন ধরেই। বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের স্পন্সর প্রতিষ্ঠার ‘কে’ স্পোর্টস চাচ্ছিল ব্রাজিল, স্পেন বা ইতালির কোনো সাবেক বিশ্বকাপ তারকাকে আনতে। তাদের প্রথম পছন্দের তালিকায় ছিল ব্রাজিলিয়ান কোনো বিশ্বকাপ তারকা। এর জন্য যোগাযোগ হচ্ছিল ফিফার লিজেন্ড পুলের সাথে। দুই দিন আগেই মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে যায় কে আসছেন বাংলাদেশ। শেষ পর্যন্ত গতকাল শুক্রবার এলো সে ঘোষণা। সংবাদ সম্মেলনে ‘কে’ স্পোর্টসের সিইও ফাহাদ করিম জানান, ‘ব্রাজিলের বিশ্বকাপ তারকা জুলিও সিজার বাংলাদেশে আসছেন ফিফা লিজেন্ড হিসেবে। ২২ জানুয়ারি বাংলাদেশে এসে চলে যাবেন পরের দিনই। ২৩ তারিখে চলে যাওয়ার আগে ব্যস্ত সময় কাটাবেন সারাদিন। সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে উপস্থিত থেকে এরপর রাতে ফিরে যাবেন এই গোলরক্ষক।’
২২ জানুয়ারি বিকেলে পর্তুগালের লিসবন থেকে ঢাকায় এসে পৌঁছাবেন সিজার। ২৩ তারিখে প্রথমে যাবেন ঢাকার বেরাইদে অবস্থিত বাফুফে এবং ফর্টিসের অ্যাকাডেমিতে। সেখানে প্রশিক্ষণ নেয়া ফুটবলারদের সাথে সময় কাটাবেন। সময় দেবেন উঠতি গোলরক্ষকদের। পরে বাফুফের টার্ফে মহিলা দলের অনুশীলন দেখবেন। ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবেন তিনি। সন্ধ্যায় উপস্থিত হবেন বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপের সেমিফাইনালে।
মোটামুটি বিশ্ব ফুটবল সম্পর্কে যারা খোঁজখবর রাখেন তাদের কাছে অতি পরিচিত এই ব্রাজিলিয়ান কিপার। ফুটবলের স্বর্গভূমি ল্যাতিন আমেরিকান দেশটির হয়ে তিনি খেলেছেন তিনটি বিশ্বকাপ। ২০০৬ এর জার্মানি, ২০১০ এর দক্ষিণ আফ্রিকা এবং ২০১৪ এর নিজ দেশের ব্রাজিল বিশ্বকাপে।
নিজ দেশকে বিশ্বকাপ এনে দিতে পারেননি তিনি। তবে ইতালিয়ান ক্লাব ইন্টার মিলানে সাত বছরের ক্যারিয়ারটা ছিল তার জন্য সোনালি সময়। ২০০৯-১০ মৌসুমে ইন্টার মিলানকে এনে দিয়েছেন উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ট্রফি। পরের বছর ফিফা ক্লাব বিশ্বকাপে চ্যাম্পিয়ন করিয়েছেন ইন্টার মিলানকে। ইতালিয়ান লিগ সিরি-আ’র বর্ষসেরা গোলরক্ষক হয়েছেন ২০০৯ ও ২০১০ সালে। ২০০৯ সালে ব্যালন ডি অর পুরস্কারের জন্য মনোনীত হন এই সিজার। ২০০৯-১০ মৌসুমে উয়েফার সেরা ক্লাব গোলরক্ষকের পুরস্কার জেতেন তিনি। ২০১৩ সালে অবশ্য ব্রাজিলের হয়ে কনফেডারেশন কাপের সেরা গোলরক্ষক হয়ে জয় করেন গোল্ডন গ্লাভস।
২০০৪ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত ব্রাজিল জাতীয় দলের হয়ে ৮৭ ম্যাচ খেলা সিজার বাজে একটি রেকর্ডেরও মালিক। ২০১৪ বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে জার্মানির কাছে ১-৭ গোলে হারে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। সে দিন এক ম্যাচে সবচেয়ে বেশি গোল হজম করার ব্রাজিলিয়ান কিপার হিসেবে রেকর্ডটি গড়েন ১৯৭৯ সালে জন্ম নেয়া এই গোলরক্ষক। এরপর আর ব্রাজিল দলে দেখা যায়নি তাকে। ২০১৮ সালে ফুটবলকে বিদায় জানান সিজার। তা তার প্রথম ব্রাজিলিয়ান ক্লাব ফ্লামেঙ্গো ক্লাবের জার্সি গায়ে। ১৯৯৭ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত এই ক্লাবে ছিলেন।

 


আরো সংবাদ