১৪ নভেম্বর ২০১৯

শামসুন্নাহারের খেলা নিয়ে সংশয়

-

হাঁটুর নিচে পলিথিন মোড়ানো কেজি খানেক ওজনের বরফ নিয়ে কখনো বসে থাকছেন। কখনো বা পায়চারী করছিলেন। তিনি ডিফেন্ডার জয়নব বিবি রিতা। কাল দুপুরে এভাবেই তাকে পাওয়া গেল হোটেল লাইয়ুলের লবিতে। কোচ গোলাম রাব্বানী ছোটনের নির্দেশে ডাক্তার সাদিয়া বিশেষভাবে স্ট্রেচিং করালেন অধিনায়ক শামসুন্নাহারকে। জয়নব বিবি পায়ে প্রচণ্ড আঘাত পেয়েছেন। তবে তার চেয়ে বাংলাদেশ দলের বেশি চিন্তা শামসুন্নাহারকে নিয়ে। তার গ্রোয়েনে ইনজুরি। এই অবস্থার মধ্যেই ভারতের বিপক্ষে গত পরশু লাল-সবুজদের ক্যাপ্টেনকে পুরোটা সময় খেলাতে বাধ্য হন কোচ। সহকারী কোচ মাহাবুবুর রহমান লিটুর মতে, ‘শামসুন্নাহারকে তুলে যে আরেকজনকে নামাবো সেই উপায়ই ছিল না। নেই যোগ্য বিকল্প। তাকে তুলে নিলে মাঝ মাঠ একেবারে অকেজো হয়ে যেত।’ এই ইনজুরি নিয়ে খেলে এখন ফাইনাল মিসের শঙ্কা শামসুন্নাহারের। তাকে না পাওয়া মানে বাংলাদেশ দলে জন্য বড়সড় আঘাত। যদিও কোচ ছোটন জানান, আমরা ম্যাচে দুপুরে বুঝতে পারব শামসুন্নাহার খেলতে পারবেন কি না। শতভাগ চেষ্টা থাকবে তাকে নামানোর।
ভুটানে আসার পর বাংলাদেশ দল শুধু এক দিনই মাঠে অনুশীলন করেছে। ম্যাচ ছাড়া বাকি দিনগুলোতে হোটেলেই স্ট্রেচিং করানো হয় অনূর্ধ্ব-১৫ ফুটবলারদের। গতকালও হোটেলের পেছনের খোলা জায়গায় এই অনুশীলন হয়েছে রুপনা, শাহেদা রিপাদের। ছোটনের মতে, ‘এদের বয়স অল্প। তার ওপর একদিন পর পর ম্যাচ। তাদের রিকভারির সময় কোথায়। তাই ম্যাচের পর তাদের আর মাঠে নেয়া হয়নি প্র্যাকটিসের জন্য।’ যদিও ভারতীয় দল কাল চ্যাংঝিঝি স্টেডিয়ামে প্র্যাকটিস করেছে। গতবারের চ্যাম্পিয়ন দলের ছয় ফুটবলার আছেন এবারের দলে।
গত তিন ম্যাচে ফরেয়ার্ড লাইন থেকে মিডফিল্ড হয়ে ডিফেন্স লাইন। সবখানেই দৌড়ে বেড়িয়েছেন শামসুন্নাহার। কখনো বল নিয়ে দু-তিনজনকে কাটিয়ে দ্রুত গতিতে ছুটেছেন। ঢুকে পড়েছেন বিপক্ষ সীমানায়। কখনো বা নিচে নেমে প্রতিপক্ষের আক্রমণ ঠেকিয়েছেন। বলের ওপর তার নিয়ন্ত্রণ চমৎকার। আজ তাকে না পাওয়া গেলে মারাত্মক ক্ষতি হবে ছোটন বাহিনীর। তাকে সুস্থ করতে অবশ্য সব চেষ্টাই চলছে। তবুও তিনি ফিট না হলে তার বিকল্প হিসেবে নামবেন রুমি আক্তার। গতপরশু তার হেড থেকেই ভারতের বিপক্ষে সমতাসূচক গোল স্বপ্না রানীর। ভারতের বিপক্ষে চমৎকার খেলে আজকের ফাইনালের একাদশে জায়গা করে নিচ্ছেন স্বপ্না রানীও। এই স্ট্রাইকার আজ শাহেদা আক্তার রিপার সাথে ফরোয়ার্ড লাইনে জুটি গড়বেন। স্বপ্নার কারণে সাইড লাইনে বসে থাকতে হচ্ছে নওশন জাহানকে। তথ্য দেন কোচ।


আরো সংবাদ