১৫ অক্টোবর ২০১৯

মাশরাফি সত্যিকারের অনুপ্রেরণা : মাসাকাদজা

-

ত্রিদেশীয় টি-২০ সিরিজে আফগানিস্তানের বিপক্ষে নিজেদের শেষ ম্যাচ দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক হ্যামিলন্টন মাসাকাদজা। বিদায়বেলায় আবেগাপ্লুত হয়ে নিজ ক্যারিয়ারের অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে উল্লেখ করেছেন বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজার কথা। মাশরাফি সবার জন্য সত্যিকারের অনুপ্রেরণা বলে উল্লেখ করেন মাসাকাদজা।
মাশরাফি প্রসঙ্গে মাসাকাদজা বলেন, ‘মাশরাফির অভিজ্ঞতা তরুণদের জন্য অনুপ্রেরণা। আমি নিশ্চিত করে বলতে পারি, বাংলাদেশ ক্রিকেটে যতটুকু তিনি দিয়েছেন তার সবটুকু মানুষের জানা প্রয়োজন এবং অনেকে জানে না তাকে কী ধরনের পরিস্থিতি পার করতে হয়েছে। আমি মনে করি, তার সাথে কাটানো মুহূর্তগুলো আমার জীবনের অন্যতম সেরা। এটাকে আমার জন্য আশীর্বাদও বলা যাবে।’
ঘরোয়া ক্রিকেটে ২০১৬ সালে কলবাগান ক্রীড়া চক্রের হয়ে একসাথে খেলেছিলেন মাশরাফি ও মাসাকাদজা। প্রিমিয়ার লিগে একসাথে দীর্ঘ সময় খেলার অভিজ্ঞতা রয়েছে দু’জনের। তাই মাশরাফিকে কাছ থেকে দেখার অভিজ্ঞতা রয়েছে। এ ছাড়া মাশরাফির ক্যারিয়ার সম্পর্কে বেশ ভালোই জানেন মাসাকাদজা। তাই মাশরাফিকে বই লেখার আহ্বানও করেছিলেন মাসাকাদজা। তিনি বলেন, ‘আমার মনে আছে, একবার তাকে আমি বলেছিলামÑ শোনো, তোমার নিজের জীবন ও ক্রিকেট ক্যারিয়ারের অভিজ্ঞতা নিয়ে একটি বই লেখা উচিত। আমার ধারণা, অনেকে জানে না তিনি সব মিলিয়ে বাংলাদেশের ক্রিকেটকে কতটা দিয়েছেন। তার সাথে ঢাকা লিগে খেলা আর সময় কাটানোটা আমার জন্য ছিল দারুণ এক অভিজ্ঞতা।’
বিদায়বেলায় আরো কিছু স্মৃতির কথা বললেন মাসাকাদজা, ‘বাংলাদেশের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজ হারটা ছিল কঠিন স্মৃতি। বাংলাদেশ তখন উঠতি। এখনকার মতো শক্তিশালী দল ছিল না বাংলাদেশ। তারপরও আমাদের হারিয়েছিল ওই সময়কার দলটি। আমি ২০০৪-০৫ সালের কথা বলছি। সেটি আমার কঠিন স্মৃতি বলব বাংলাদেশে। এ ছাড়া আরো অনেক ভালো মুহূর্ত ও স্মৃতি রয়েছে বাংলাদেশে। এখানকার ঘরোয়া ক্রিকেটে বিভিন্ন সময় আমি খেলেছি। প্রিমিয়ার লিগ ও বিপিএলে খেলেছি। ফলে এখানকার কর্মকর্তা, ম্যাচ অফিসিয়াল প্রত্যেকের সাথে আমার ভালো সর্ম্পক গড়ে উঠেছে।’
নিজের বিদায়ী ম্যাচে ব্যাট হাতে একাই দলকে জিতিয়েছেন মাসাকাদজা। ত্রিদেশীয় সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে আফগানিস্তানকে ৭ উইকেটে হারায় জিম্বাবুয়ে। ফলে সান্ত্বনার জয় পায় জিম্বাবুয়ে। নিজের বিদায়টা জয় দিয়ে স্মরণীয় করে রাখলেন মাসাকাদজা। আফগানদের ছুড়ে দেয়া ১৫৬ রানের টার্গেট ৩ বল বাকি রেখে স্পর্শ করে জিম্বাবুয়ে। ওপেনার হিসেবে নেমে ৪টি চার ও ৫টি ছক্কায় ৪২ বলে ৭১ রান করেন মাসাকাদজা।


আরো সংবাদ




astropay bozdurmak istiyorum