২১ আগস্ট ২০১৯

নতুন চ্যাম্পিয়ন রংপুর ফাইনালে খেলতে দেয়া হয়নি ঠাকুরগাঁওকে

-

ফাইনাল শুরুর আগে কমলাপুর স্টেডিয়ামের মাঠে ঢুকে প্রতিবাদ ঠাকুরগাঁওয়ের খেলোয়াড়দের। তাদেরকে খেলতে দিতে হবে জেএফএ কাপের ফাইনাল। পরে বাফুফের হস্তক্ষেপে কান্নাজড়িতকণ্ঠে মাঠ ত্যাগ করেন তারা। গত পরশুই যে তারা সেমিফাইনালে ময়মনসিংহকে টাইব্রেকারে হারিয়ে ফাইনালে উঠেছে। কিন্তু বাফুফের মহিলা কমিটি তাদের গতকালের ফাইনালে খেলার অধিকার কেড়ে নেয়। অপরাধ ঠাকুরগাঁও জেলা দল বাইলজ ভঙ্গ করে অবৈধ ফুটবলার খেলিয়েছে, যা সেমিতে হারা ময়মনসিংহের অভিযোগে প্রমাণিত হয়। ময়মনসিংহ অভিযোগ করে, ঠাকুরগাঁও চারজন ফুটবলারকে খেলিয়েছে যারা আগেও দুইবার খেলেছে এই জেএফএ কাপে। অথচ জেএফএ কাপের বাইলজ আছে কোনো ফুটবলার দুইবারের বেশি জেএফএ কাপে খেলতে পারবে না। কিন্তু ঠাকুরগাঁও এই নিয়ম ভঙ্গ করে চন্দনা রায়, রঞ্জনা রায়, ঈশিতা জাহান এবং মমতাজ বেগমকে খেলিয়েছে। এদের মধ্যে ঈশিতা এবং গোলরক্ষক মমতাজ ছিলেন একাদশে। তাই নিয়মানুযায়ী বাফুফের মহিলা কমিটি সেমিফাইনালে ঠাকুরগাঁয়ের পয়েন্ট কেন নেয়। মানে তারা পরাজিত ঘোষিত। তাদের বদলে সেমিতে হারা ময়মনসিংহকেই জয়ী ঘোষণা করে কালকের ফাইনালে খেলার সুযোগ দেয়া হয়। অবশ্য এই সুযোগ কাজে লাগাতে পারেনি ময়মনসিংহ। কাল তাদেরকে ফাইনালে টাইব্রেকারে ৪-২ গোলে হারিয়ে জেএফএ কাপের নতুন চ্যাম্পিয়ন হয় রংপুর। আগে দুইবার এই ময়মনসিংহের কাছে ফাইনালে হেরেছিল রংপুর।
ঠাকুরগাঁওয়ে আগে দুইবার খেলা ফুটবলারকে খেলিয়েছে তা স্বীকারও করেছেন দলের ম্যানেজার তাজুল ইসলাম। তিনি এ জন্য দায়ী করেন বাফুফে প্রতিনিধি নজরুল ইসলামকে। তার মতে, ‘আমি বাফুফে প্রতিনিধিকে বলেছি মমতাজ আগের দুই বার খেলেছে জেএফএ কাপে। আমাদের অপর গোলরক্ষক আছে তাকে খেলার অনুমতি দিন। ঠাকুরগাঁওয়ের ম্যানেজার জানান, ‘আমাদেরও অভিযোগ ছিল ময়মনসিংহের বিপক্ষে। তাদের ১৭ নম্বর মদিনা খাতুনের কোনো রেজিস্ট্রেশন হয়নি। রংপুর দলেও একাধিক প্লেয়ার আছে যারা তিনের অধিক এই আসরে খেলেছেন। কিন্তু বাফুফে আমাদের লিখিত অভিযোগ গ্রহণই করেনি। বাফুফের নির্বাহী আহসান আহমেদ অমিত জানান, ‘ম্যাচ শেষ হওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যে লিখিত অভিযোগ করতে হয়। কিন্তু ঠাকুরগাঁও তা করেনি।’ ময়মনসিংহ ডিএফএ সভাপতি জানালেন, আমরা প্রমাণসহ ম্যাচ শেষ হওয়ার এক ঘণ্টার মধ্যে লিখিত অভিযোগ করেছি বাফুফেতে। তবে আমার দলে রেজিস্ট্রেশন ছাড়া কোনো খেলোয়াড় নেই।’ বাফুফের মহিলা কমিটির চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ এই প্রসঙ্গে বলেন, আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিয়েছি। আমরাতো বাইলজের বাইরে যেতে পারি না।
কাল ফাইনালে নির্ধারিত সময়ের খেলা গোলশূন্যতে শেষ হওয়ার পর টাইব্রেকারে ৪-২ গোলে জয় পায় রংপুর। পেনাল্টি শুট আউটে মিতু, ফাতেমা, ঝর্না, ও শামীমা আক্তার শীলা গোল করলেও মিস করেন মিসরাত। ময়মনসিংহের রোকসানা এবং সায়মন বল জালে পাঠাতে সক্ষম হন। রংপুরের কোচ রিপন খান তথ্য দেন, তার দল দেড় বছর অনুশীলনের ফল পেয়েছে। এই মুহূর্তে রংপুরের সিনিয়র ৯ ফুটবলার জাতীয় দলে আছেন। বর্তমান অনূর্ধ্ব-১৪ দল থেকেও আরো ফুটবলার বাংলাদেশ দলে খেলবে।

 


আরো সংবাদ




mp3 indir bedava internet