২৪ আগস্ট ২০১৯

গ্রুপকে সহজ বললেন জামাল ভূঁইয়া

-

এটা নিশ্চিত এবারো বাছাই পর্বে গ্রুপেই শেষ হবে বাংলাদেশের কাতার বিশ্বকাপ মিশন। তবে গ্রুপে তাদের যে প্রতিপক্ষ তাদের এবার ভালো কিছুর আশা করা যেতেই পারে। সে আশাবাদীদের কাতারে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক জামাল ভূঁইয়াও। তিনিতো এক কদম এগিয়েই বললেন এবার আমাদের গ্রুপে দুই বা তিন নম্বর হওয়ার সুযোগ আছে। গ্রুপিং বেশ সহজই বলতে হবে।
ডেনমার্ক প্রবাসী এবং বর্তমানে সাইফ স্পোর্টিংয়ে খেলা এই মিডফিল্ডারের বাছাইপর্ব নিয়ে আত্মবিশ্বাসী হওয়ার কারণ, বিগত মাসগুলোতে একত্রে থাকা জাতীয় দলের ফুটবলারদের। জামাল জানান, ‘আমরা গত ৯ মাস ধরে একত্রে আছি। আমাদের টিম স্পিরিট এবং টিম কম্বিনেশন ভালো। বোঝাপড়াও চমৎকার। সুতরাং এবার বাংলাদেশের ভালো করার চান্স আছে।’
‘ই’ গ্রুপে কাতারকেই সবচেয়ে শত্তিশালী মানলেন বাংলাদেশ ক্যাপ্টেন। তার মতে, কাতার এশিয়ার সেরা। তারা সর্বশেষ এশিয়ান কাপের শিরোপাজয়ী দল। তারা অবশ্যই ভালো দল। আর র্যাংকিং বলে দিচ্ছে ওমানও ভালো। আমার মতে, ২০১৫ সালে জর্দানকে যে শক্তিতে পেয়েছিলাম ওমানও তেমন হবে। বাকি থাকে আফগানিস্তান এবং ভারত। ভারতীয় দলকে আমি খুব শক্তিশালী মনে করি না। তাদেরকে হারানো সম্ভব। আগেও তাদের সাথে আমরা ভালো ম্যাচ উপহার দিয়েছি।’ জামাল যোগ করেন, আফগানিস্তানতো তাদের দেশে হোম ম্যাচ খেলে না। আফগান ফুটবল দল গঠিত হয় জার্মান প্রবাসীদের নিয়ে। তাদের বিপক্ষে আমাদের খেলার অভিজ্ঞতা আছে। সুতরাং তাদের বিপক্ষেও বাংলাদেশ জয়ের আশা করতে পারে।
জামালের মতে, বাংলাদেশের মতো ভারত এবং আফগানিস্তানেরও চান্স আছে এই গ্রুপ থেকে ভালো করার। তারাও গ্রুপকে সহজই বলবে। তবে লাল-সবুজদের ভালো পারফরম্যান্সের জন্য জামাল বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে আগে ভালো দলের বিপক্ষে দু’টি প্রস্তুতি ম্যাচ চান। জানান, আমরা গত বাছাই পর্বে যে দল নিয়ে খেলেছিলাম তার চেয়ে ভালো দল এবারেরটি। তাই আমি আশা দেখছি।’ জাতীয় দলের ঢাকা আবাহনীর ফুটবলারেরা এএফসি কাপের নক আউট পর্বে দলকে কোয়ালিফাই করিয়েছে। তাদের এই আন্তর্জাতিক ম্যাচের অভিজ্ঞতা বাংলাদেশ দলে কাজে দেবে বলে জানালেন তিনি।
জামালের পক্ষে অবশ্য রাশিয়া বিশ্বকাপের বাছাই পর্বের সব ম্যাচে খেলা হয়নি। হলুদ কার্ডের জন্য সাসপেন্ড ছিলেন জর্দানের বিপক্ষে ম্যাচে।


আরো সংবাদ




mp3 indir bedava internet