১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯

শিরোপার দাবিদার ইংল্যান্ড এবং ভারত - নাসির হুসেইন

-

গ্রুপ পর্বের ১৭টি ম্যাচের মধ্যে তিনটি শেষ করে দিয়েছে বৃষ্টি। অন্য ১৪ ম্যাচে দলগুলোর যে চিত্র তাতে এবারের ইংল্যান্ড-ওয়েলস বিশ্বকাপে শিরোপার দাবিদার স্বাগতিক ইংল্যান্ড এবং ১৯৮৩ এবং ২০১১ সালের চ্যাম্পিয়ন ভারত। এই দুই দলের বাইরে অন্য কারো তেমন সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে না। এই মন্তব্য সাবেক ইংলিশ ক্যাপ্টেন নাসির হুসেইনের।
সাবেক এই ব্যাটসম্যানের মতে, আমার দৃষ্টিতে ইংল্যান্ড এবং ভারত ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নেই যারা জিততে পারে এবারের বিশ্বকাপ ট্রফি। মনে হচ্ছে লর্ডসের ফাইনালে এই দুই দলই খেলবে ফাইনালে। তবে আরো চারটি দল এই কাতারে যোগ হতে পারে। এদের দু’টি জন্ম দিতে পারে বিস্ময়ের। অন্যদের পক্ষে আরো এগিয়ে যাওয়া বিচিত্র কিছু নয়।
নাসির হুসেইনের মতে, ইংল্যান্ডতো ভালোভাবেই এগোচ্ছে। হ্যাঁ পাকিস্তানের কাছে তারা হেরেছে। আশা করি তারা তাদের বাজে দিনটি পাকিস্তানের বিপক্ষে অতিবাহিত করেছে। আমি ইংল্যান্ডকে নিয়ে এই কারণে আশাবাদী যে আগে তাদের পেস বোলিংয়ে সমস্যা ছিল। কিন্তু জোফরা আরচার অন্তর্ভুক্ত হওয়ার পর সে দুর্বলতা কেটে গেছে। সে সাথে তাদের ব্যাটসম্যানরা ম্যাচে পুরো আধিপত্য বিস্তার করতে পারছে। বাংলাদেশের বিপক্ষে তারা ৩৫০ হতে যাওয়া স্কোরকে ৩৮৬তে নিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছিল এই ব্যাটিং গভীরতার কারণেই।
নাসির বলেন, এই আসরে দারুণ শুরু ভারতের। তাদের কাছে ধরাশায়ী দক্ষিণ আফ্রিকা এবং বর্তমান চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। উভয় ম্যাচেই তাদের প্রতিটি ডিপার্টমেন্ট দারুণভাবে জ্বলে ওঠে। যদিও এই মুহূর্তে ইনজুরি ওপেনার শেখর ধাওয়ানের। এটা ভারতীয়দের জন্য বিশাল ধাক্কা। এরপরও তাদের আছে বিরাট কোহলি এবং মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান। বোলিং লাইনেও পোক্ত ভারতীয়রা। প্রতিপক্ষের মিডল অর্ডার গুঁড়িয়ে দেয়ার জন্য ভারতের স্পিনাররাই যথেষ্ট। আর শুরুতে প্রতিপক্ষকে পেছনের কাতারে ঠেলে দেয়া আর শেষটা গুটিয়ে দেয়ার জন্য দুই পেসার ভুবনেশ্বর কুমার এবং জাসপ্রিত বুমরা অতুলনীয়। এখন দেখার বিষয় নক আউট পর্বে কেমন করে তারা।
ভারতের কাছে হারের পরও অস্ট্রেলিয়াকে নিয়ে আশা দেখছেন নাসির হুসেইন। তার মতে, এই দলটিতে আছে অ্যারন ফ্রিঞ্জ, ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ এবং মিচেল স্টার্কের মতো ক্রিকেটার। তারা প্রমাণ করেছে তাদের যোগ্যতা। তবে দলের সমস্যা স্পিনার অ্যাডাম জাম্পা। তাকে ভয় করছেন না বিপক্ষ ব্যাটসম্যানরা। ভালো করতে পারছেন না উসমান খাজাও। ওয়ার্নার এবং স্মিথের সাসপেনশনের সময় খাজা চমৎকার পারফরম্যান্স প্রদর্শন করেন এই বছরের শুরুতে, তা ওপেনার হিসেবে।
নিউজিল্যান্ড দলটিও অসাধারণ। তাদের টেন্ট বোল্টের নেতৃত্বে তাদের সিমাররা সম্ভবত এবারের বিশ্বকাপে সেরা বোলিং সাইড। তার সঙ্গীরা হলেন ম্যাট হেনরি, লুকি ফার্গুসন এবং টিম সাউদিরা। আর ব্যাট হাতে কেন উইলিয়ামস দুর্দান্ত। তারা জানে কিভাবে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করতে হয়। তবে সমস্যা হলো বিপর্যয়ের সময় ঘুরে দাঁড়ানোর মতো ক্রিকেটারের অভাব। যেমনটা আছে ভারতীয় দলের। কিউইদের শুরুটা ভালোই। দুর্বলতা ব্যাল্যান্সে ঘাটতি। তাদের উচিত দু’জন অলরাউন্ডার বা অতিরিক্ত আরেকজন বোলার অন্তর্ভুক্ত করা যারা তাদের উইকেট শিকারকে বাড়িয়ে দেবে। সূত্র : দ্য ডেইলি মেইল।

 


আরো সংবাদ

রাজধানীতে ইয়াবাসহ গ্রেফতার ৫ পুলিশ সদস্য রিমান্ডে নবম ওয়েজবোর্ডে রোয়েদাদ সুবিধা সঙ্কুচিত করার প্রতিবাদ এমইউজে খুলনার নবম ওয়েজবোর্ড রোয়েদাদ ঘোষণায় প্রধানমন্ত্রীকে বিএফইউজের ধন্যবাদ ভিসির ছেলের ফোনালাপের রেকর্ড শুনলেই সবকিছু পরিষ্কার হয়ে যাবে : সাদ্দাম হোসেন জাফর উদ্দিন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব ৪ সচিবকে সিনিয়র সচিব পদে পদোন্নতি কাফরুলে স্কুলভবন থেকে লাফিয়ে ছাত্রের আত্মহত্যার চেষ্টা টঙ্গীতে প্রধানমন্ত্রীর জন্মোৎসবের বিলবোর্ড অপসারণ নিয়ে তোলপাড় পেঁয়াজের বাজারে আগুন : কেজিতে বেড়েছে ২৫ টাকা বশেমুরবিপ্রবির ভিসির পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি ডুজার আওয়ামী লীগ সম্পাদকমণ্ডলীর সভা কাল

সকল