১৮ আগস্ট ২০১৯

আবাহনীর দুর্দান্ত জয়

আবাহনী ৩ : ২ চেন্নাইয়ান
-

ঘরে দাঁড়িয়ে আসরে টিকে থাকতে হলে জয়ের বিকল্প ছিল না ঢাকা আবাহনীর। গতকাল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে সেই দুর্দান্ত জয়ই পেয়েছে বাংলাদেশী ক্লাবটি। অসাধারণ ম্যাচে তারা ৩-২ গোলে হারিয়েছে ভারতের চেন্নাইয়ান এফসিকে। এই জয়ে আবাহনী এখন পয়েন্টে যৌথভাবে শীর্ষে আবাহনী এবং চেন্নাইয়ান। পয়েন্ট সমান সাত চার খেলায়। তবে গোল পার্থক্যে এগিয়ে ভারতীয় ক্লাবটি। কাল অন্য ম্যাচে নেপালের মাঠে ১-১ গোলে ড্র করেছে মানাং মার্সিয়ান্দি ও ভারতের মিনার্ভা পাঞ্জাব। আগের ম্যাচে আবাহনীকে ০-১ গোলে হারায় চেন্নাইয়ান। গত ম্যাচের নিয়মিত একাদশ থেকে ওয়েলিংটন, ফাহাদ ও রুবেল মিয়াকে বাদ দিয়ে কাল চেন্নাইয়ান এফসির বিপক্ষে মাঠে নামে ঢাকা আবাহনী। খেলার সুযোগ দেয়া হয় মামুনুল ইসলাম, সাদ উদ্দিন ও জুয়েল রানাকে। এই পরিবর্তন এনেও ম্যাচের ৬ মিনিট বয়সে পিছিয়ে পড়ে বাংলাদেশী ক্লাবটি। এএফসি কাপের ‘ই’ গ্রুপে গতকাল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে প্রথম কর্নার পায় ভারতীয় ক্লাবটি। আবাহনীর ডিফেন্ডারদের ভুলে ওই প্রথম সেট পিস থেকেই গোল ভারতীয় ক্লাবটির। ইসাক ভানমাসামার কর্নার কিক ক্লিয়ার করতে পারেননি আবাহনীর কেউ। সেই বল বক্সের মধ্যে ভিনেতের পায়ে পড়লে ডান পায়ের তীব্র শটে গোল করেন এই স্ট্রাইকার । শুরুতে পিছিয়ে পড়া আবাহনী নিজ মাঠে এরপর গোল পরিশোধে চেষ্টা চালাতে থাকে। কিন্তু যে গোল মিস তাদের আসরে এই বাজে অবস্থায় নিয়ে গেছে তা থেকে বের হতে পারছিলনা। ২০ মিনিটে হাইতির বেলফোর্ডের ফাঁকা পজিশন থেকে নেয়া শট ডান দিকে শরীর ফেলে কর্নার করেন চেন্নাইয়ান কিপার কারানজিৎ সিং। ২৪ মিনিটে ওয়ালী ফয়সালের কর্নার কিক গোল লাইন থেকে প্রতিহত করেন বিপক্ষ কিপার। তিন মিনিট পর সানডের ব্যাক হেডে বাধা ভারতীয় দলটির কিপার। প্রথমার্ধে আবাহনী গোলেন সহজ সুযোগ মিস করে ৩৬ মিনিটে। ওয়ালী ফয়সালের ক্রস থেকে জীবনের হেডে বল পেয়ে যান জুয়েল রানা। কিন্তু তিনি গোল লাইনের খুব কাছ থেকে সে বল বাইরে মেরে বঞ্চিত করে দলকে। ৪৭ মিনিটে চেন্নাইয়ানের ইসাকের শট আবাহনীর ক্রসবারে প্রতিহত হয়। ৬০ মিনিটে নাবিব নেওয়াজ জীবনের ভুলে আবাহনী গোল বঞ্চিত হলেও ৬৪ মিনিটে আফগান মাসি সাইঘানি এবং হাইতির বেলফোর্ডের সমন্বয়ে সমতা। মাসির লবে বল পেয়ে বক্সেও ঢুকে ডান পায়ের চমৎকার প্লেসিংয়ে আগুয়ান কিপারকে পরাস্ত করেন। ৬৯ আবাহনীর লিড মাসি সাইঘানীর অতি অসাধারণ ফ্রিকিকে। বক্সের বাইরে থেকে তার নেয়া দুরূহ কোণের ফ্রি-কিক বোকা বানিয়ে উল্লাসে মাতায় মাঠ উপস্থিত হাজার খানেক দর্শককে। এরপর ৭৪ মিনিটে আবাহনীর ডিফেন্ডার এবং গোলরক্ষক সোহেলের ভুলে চেন্নাইয়ান এফসির ইসাক সমতা আনেন। এর পর আবাহনী জিততে পারবে এটা কেউই ভাবেনি। কিন্তু ৮৮ মিনিটে জীবনের কর্নারে বক্সে হেড হলে সে বল বক্সের বাইরে অভিজ্ঞ মামুনুলের কাছে গেলে তার ডান পায়ের তীব্র ভলি আবাহনীকে আসরে দ্বিতীয় জয় পাইয়ে দেয়। এই গোল দিয়ে মামুনুল হয়ে যান ম্যাচ সেরা।

 


আরো সংবাদ

রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের সাথে গুলি বিনিময়ে এক সেনাসদস্য নিহত স্মিথের বদলি লাবুশানে; টেস্ট ক্রিকেটে ইতিহাস ভারতের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার এখন ফ্যাসিস্ট মোদির হাতে : ইমরান খানের হুঁশিয়ারি রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের সর্বোচ্চ প্রস্তুতি স্বাধীনতা বিরোধীরা এখনো ঘড়যন্ত্র করছে : আইনমন্ত্রী দুর্ঘটনা কেড়ে নিলো একটি পরিবার, ঈদ আনন্দে বিষাদের ছায়া ছাত্রদলের সভাপতি ও সম্পাদক হতে ইচ্ছুক ১০৮ তরুণ নেতা মানিকগঞ্জে বেড়েই চলছে ডেঙ্গু রোগী সিরাজগঞ্জে ডেঙ্গু রোগে আক্রন্ত কলেজ ছাত্রের মৃত্যু উপকূল সুরক্ষায় ৬৪২ কিলোমিটার সুপার ডাইক নিমার্ণের উদ্যোগ ছাগলের ক্ষেত খাওয়াকে কেন্দ্র করে বৃদ্ধা খুন

সকল




bedava internet