২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮

ভারত না মালদ্বীপ

সাফ ফুটবলের আজ ফাইনাল
-

বেশ আত্মবিশ্বাসী মালদ্বীপের কোচ পিটার সেগার্ট। কথা শুরু করলে আর থামতে চান না এই ক্রোয়েশিয়ান। গ্রুপ পর্বে কোনো গোল নেই মালদ্বীপের। সঙ্গত কারণে জয়শূন্যও। এরপর টস ভাগ্যে শ্রীলংকাকে টপকে তাদের সেমিতে আসা। কিন্তু সেমিফাইনালে তারা যেভাবে উড়িয়ে দিয়েছে শক্তিশালী নেপালকে তাতে এখন হাওয়ায় ওড়ারই কথা পিটার সেগার্টের। ৩-০তে ওই ম্যাচ জয়ের পর সেই যে মুখে কথার ফুলঝুরি ফুটছে জার্মানিতে বড় হওয়া এই কোচের মুখে কাল ফাইনাল-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনেও অব্যাহত ছিল তা। এখন তার লক্ষ্য আজ ভারতকেও একই ভাবে ছিন্ন ভিন্ন করে বাংলাদেশ থেকে শিরোপা নিয়ে যাওয়া। যা হবে তাদের দ্বিতীয় সাফ শিরোপা। অন্য দিকে আসরের বর্তমান এবং ছয়বারে চ্যাম্পিয়ন ভারত চাইছে তাদের শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রাখতে। দলের ইংলিশ কোচ স্টিফেন কনস্টান্টিন সে সুরেই কথা বললেন। বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে আজ সন্ধ্যা ৭টায় সাফ সুজুকি কাপের এই ফাইনাল।
১৯৯৩ সালে সার্ক গোল্ডকাপের চ্যাম্পিয়ন দল ভারত। সে আসরে অংশ নেয়নি বাংলাদেশ। এর পর ভারত ১৯৯৭, ১৯৯৯, ২০০৫, ২০০৯, ২০১১ এবং ২০১৫তে ট্রফি জয় করে সাফের। ১৯৯৭ সাল থেকে তা সাফ ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ। মালদ্বীপ একবারই এই টুর্নামেন্টে শিরোপা জয়ী। তা ২০০৮ এ। এর বাইরে বাংলাদেশ ২০০৩ এবং আফগানিস্তান ২০১৩তে চ্যাম্পিয়ন। সাফে এই নিয়ে পাঁচবার ফাইনালে খেলছে মালদ্বীপ। এর তিনটিই ঢাকার বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে। তবে আগের দুইবার তারা রানার্সআপে সন্তুষ্ট থাকে যথাক্রমে বাংলাদেশ এবং ভারতের কাছে হেরে। প্রতিযোগিতার মালদ্বীপের আগের চার ফাইনালের তিনটিতেই হার ভারতের কাছে। যার সর্বশেষটি ২০০৯ সালে। এবার কি তারা সেই প্রতিশোধ নিতে পারবে। ২০০৮ এ তারা এই ভারতকে হারিয়েই চ্যাম্পিয়ন হয় মালদ্বীপ। কোচ সেগার্ট প্রতিশোধ শব্দ মুখে আনতে চাইলেন না। তার বক্তব্য, ৯ বছর আগে তো আমি কোচ ছিলাম না মালদ্বীপের। তবে গত সাফের ফাইনালে আফগানিস্তানের কোচ ছিলাম। সেবার ভারতের কাছে হেরেছিলাম রেফারিংয়ের কারণে। এবার আমরা মালদ্বীপের জন্য ১০ বছর পর দ্বিতীয় সাফ জিততে চাই বাংলাদেশের মাটিতে।
কোচ সেগার্ট জোর দিয়ে বলেন, নেপালের বিপক্ষে সেমিতে যে ম্যাচ খেলেছি আজ তাই উপহার দিতে চাই ভারতের বিপক্ষে এবং যদি আমরা প্রথমে গোল দিতে পারি তাহলে ব্যবধানই শুধু বাড়বে, যা করেছিলাম নেপালের বিপক্ষে। অবশ্য ভারতকে সমীহ করেই তিনি বলেন, মালদ্বীপের তুলনায় ভারত অনেক বড় দেশ। তাদের জনসংখ্যাও অনেক বেশি। কিন্তু ফাইনাল ম্যাচে মালদ্বীপের ১১ জনের বিপক্ষে ভারতের ১১ জনই খেলবে। যেকোনো কিছু হতে পারে ফাইনালে।’ অধিনায়ক আকরাম আবদুল গনি উল্লেখ করলেন, আজ আমাদের লক্ষ্য ট্রফিতে হাত ছোঁয়ানো।
ভারত এবার আসরে টানা তিন ম্যাচ জিতেই ফাইনালে এসেছে। শ্রীলংকা এবং মালদ্বীপকে ২-০তে এবং সেমিতে পাকিস্তানকে ৩-১ এ উড়িয়ে তারা আজকের ফাইনালে। জাতীয় দলের গুরুত্বপূর্ণ সব ফুটবলারকে রেখে কোচ কনস্টান্টিন এসেছেন অনূর্ধ্ব-২৩ দল নিয়ে। তারাই এখন দলকে টেনে এনেছেন শেষ দুই পর্যন্ত। কোচের মতে, ‘জাতীয় দলের সিনিয়রদের বিকল্প খুঁজে বের করার জন্যই এই উদ্যোগ। তা ছাড়া এই নতুন ফুটবলারদের তো আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার সুযোগ কম। এখন তাদের উন্নতিতে আমি বেশ খুশি। ফাইনালে তারা কেমন করে তা দেখতে চাই।
অধিনায়ক সুবাশীষ বোস জানান, ‘আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়ে ধরে রাখতে চাই শ্রেষ্ঠত্ব। তবে ফাইনালে আসব এতটা ভাবিনি।’ গ্রুপে মালদ্বীপের বিপক্ষে দুই গোলে জিতলেও আজ ফাইনালে হবে ভিন্ন পরিস্থিতিÑ বললেন কোচ। জানান, মালদ্বীপ অবশ্যই ভালো দল। তাদের যে যোগ্যতাসম্পন্ন ফুটবলার আছেন এবং তারা ভালো খেলতে পারেন তা নেপালের বিপক্ষে প্রমাণ করেছেন। সেটা ভুলে গেলে চলবে না। তবে সেমিতে লালিয়ানজুলা লাল কার্ড পাওয়ায় বড় ক্ষতি হয়েছে বলে জানান কোচ।


আরো সংবাদ