১৮ নভেম্বর ২০১৮

এল সালভাদোরকে উড়িয়ে দিলো ব্রাজিল

-

যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ডের ফেডএক্স ফিল্ডে অনুষ্ঠিত প্রীতি ম্যাচে এল সালভাদোরকে দাঁড়াতেই দেয়নি সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিল। নতুন স্থায়ী অধিনায়ক নেইমারের নেতৃত্বে কাল ৫-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে সেলেকাওরা।
২১ বছর বয়সী এভারটনের স্ট্রাইকার রিচারলিসন ১৬ ও ৫০ মিনিটে দুই গোল করে কোচ তিতের আস্থার প্রতিদান দিয়েছেন। এ বছরের শুরুর দিকে ওয়াটফোর্ড থেকে ৫২ মিলিয়ন মার্কিন ডলারে এভারটনে পাড়ি জমিয়েছিলেন রিচারলিসন। কালকেই প্রথমবারের মতো মূল একাদশে নামার সুযোগ পেয়েছিলেন এই তরুণ ফরোয়ার্ড।
প্যারিস সেইন্ট-জার্মেই তারকা নেইমারের নেতৃত্ব উজ্জীবিত ব্রাজিলের সামনে এল সালভাদোর পুরো ম্যাচে খুব কমই নিজেদের মেলে ধরতে পেরেছে। যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে ব্রাজিলিয়ান সমর্থকদের সামনে এই ধরনের পারফরম্যান্সে কোচ তিতেও বেশ সন্তুষ্ট। বিশ্বকাপে হতাশাজনক বিদায়ের পরে তিতে ও তার কোচিং স্টাফরা সামনে এগিয়ে যাওয়ার আত্মবিশ্বাস খুঁজছিলেন। বেলজিয়ামের কাছে শেষ আটে পরাজিত হয়ে বিদায় নেয়ার পর খেলোয়াড়রাও মানসিকভাবে শক্তি হারিয়ে ফেলেছিলেন। এখন ব্রাজিলের সামনে একটাই লক্ষ্যÑ সবকিছুকে পেছনে ফেলে ঘরের মাঠে ২০১৯ কোপা আমেরিকার জন্য নিজেদের প্রস্তুত করে তোলা। আর সেই প্রস্তুতিতে আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচগুলোতে এই ধরনের জয় দলকে নিঃসন্দেহে আত্মবিশ্বাসী করে তুলবে।
যুক্তরাষ্ট্রের দুই ম্যাচের সংক্ষিপ্ত সফরে এটি ছিল ব্রাজিলের দ্বিতীয় ম্যাচ। আর এই ম্যাচকে সামনে রেখে তিতে শক্তিশালী মূল একাদশই গঠন করেছিলেন। এর আগে শুক্রবার নিউ জার্সিতে স্বাগতিক যুক্তরাষ্ট্রকে ২-০ গোলে পরাজিত করেছিল তিতের শিষ্যরা। কালকের ম্যাচে মূল একাদশে নেইমারের সাথে ছিলেন ডগলাস কস্তা, ফিলিপ কুটিনহো, ক্যাসেমিরোর মতো তারকারা।
প্রথম ম্যাচে বদলি হিসেবে জাতীয় দলে অভিষেক হওয়া রিচারলিসন ও বার্সেলোনার মিডফিল্ডার আর্থারের ওপর কাল শুরু থেকেই আস্থা রেখেছিলেন তিতে। ম্যাচের চার মিনিটের মধ্যে এগিয়ে যায় ব্রাজিল। এল সালভাদোরের ডিফেন্ডার রবার্টো ডোমিনগুয়েজ ডি বক্সের ভেতর রিচারলিসনকে ফেলে দিলে রেফারি পেনাল্টির নির্দেশ দেন। যদিও মার্কিন রেফারি জায়ার মারুফোর এই সিদ্ধান্তের বিপক্ষে যথেষ্ট বিতর্ক রয়েছে। স্পট কিক থেকে জাতীয় দলের হয়ে ৫৯তম গোল করে দলকে এগিয়ে দেন নেইমার। ১৬ মিনিটে নেইমারের পাস থেকে দুর্দান্ত কার্লিং শটে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন রিচারলিসন। দুই গোলে পিছিয়ে পড়ে এল সালভাদোর যেন আরো বেশি আগোছালো হয়ে যায়। চলতি সপ্তাহেই তারা মন্টেসেরাটের বিপক্ষে পিছিয়ে থেকেও শেষ পর্যন্ত জয় নিশ্চিত করে কনকাকাফ নেশন্স লিগে খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে।
২২ মিনিটে নেইমারের আরেকটি পাস থেকে কুটিনহোর শট বারে লেগে ফেরত আসে। কিন্তু ৩০ মিনিটে আর ভুল করেননি এই বার্সেলোনা তারকা। ১৮ গজ দূর থেকে তিনি গোলরক্ষক হেনরি হার্নান্দেজকে পরাস্ত করেন। ৩৮ মিনিটে কস্তার দারুণ একটি পাস থেকে নেইমার গোলের সুযোগ নষ্ট করেন।
বিরতির পাঁচ মিনিট পরেই কুটিনহোর সহায়তায় রিচারলিসন নিজের দ্বিতীয় গোল করেন। ৯০ মিনিটে নেইমারের কর্নার থেকে মারকুইনহোসের হেডে বড় ব্যবধানের জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল।
এদিকে ব্রাজিল জিতলেও আর্জেন্টিনা গোলশূন্য ড্র করেছে। কোনো কৌশলই ব্যবহার করতে বাকি রাখেনি আর্জেন্টিনা। কিন্তু কলম্বিয়ার রক্ষণভাগ যে দৃঢ়তা দেখিয়েছে, তা ভাঙতে পারেনি দুইবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা। স্কালোনির শিষ্যদের রুখে দিয়েছে কলম্বিয়া। যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সির মেটলাইফ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বুধবার শুরু হওয়া ম্যাচটি প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ছিল তা বলা যাবে না। গুয়েতেমালাকে হারানোর পর দলে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন আনেন কোচ। শুরু থেকে খেলেন মাওরি ইকার্দি। দ্বিতীয়ার্ধে বদলি হিসেবে নামেন পাওলি দিবালা। গঞ্জালো মার্টিনেজ, ইকার্দি ও ম্যাক্সিমিলিয়ানো মেসায় গড়া আর্জেন্টিনার আক্রমণভাগ শুরু থেকেই চেপে ধরে কলম্বিয়াকে। দুইবারের দু’টি প্রচেষ্টা ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক দাভিদ আস্পিনা। প্রথম ২৪ মিনিট আর্জেন্টিনা শট নেয় ৩টি। ২৭ মিনিটে প্রথম ফ্রাঙ্কো আরমানিকে পরীক্ষায় ফেলতে পারে কলম্বিয়া। দ্বিতীয়ার্ধে দিবালা নামার পর আক্রমণের ধার বাড়ে আর্জেন্টিনার। ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার জিওভান্নি লোসেলসোর জায়গায় মাঠে আসেন অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার ক্রিস্টিয়ান পাভন। তার ক্রসে ৭২ মিনিটে মাথা ছুঁয়াতে পারেনি ইকার্দি। ৮১ মিনিটে ইকার্দি আরেকটি সহজ সুযোগ নষ্ট করেন। হারায় তারা জয়ের সুযোগ। বাকি সময় কোনো দলই গোলের সুযোগ তৈরি করতে পারেনি। ফলে খেলা ড্র নিয়ে মাঠ ছাড়তে হয় দুই দলকে।

 


আরো সংবাদ