২০ জানুয়ারি ২০২০

রু দ্র সা হা দা ৎ -এ র গু চ্ছ ক বি তা

-

কোনো দিন কথা হয়নি

লাক কাঁকড়ার পদচিহ্ন খুঁজে খুঁজে হাঁটি পথ
বালুচরে নগ্ন পা, ক্লান্ত চোখ
শাদা গাঙচিল বন্ধু হতে চায়, গান শোনায়
ফিশিং বোট থেকেও কেউ কেউ উঁকি দেয়
ঝাউবন বিশ্রামে শীতলতায় ডেকে শোনায় গান
কেন যে লজ্জায় লালে লাল, লজ্জাবতী কাঁকড়া
শুধু গর্তে লুকায়
জানো, কোনো দিন কথা হয়নি তাদের সাথে!
শূন্যতায় হাঁটছি

শূন্যতায় হাঁটছি বহু দিন বহু বছর
গুজবের গ্যাঁড়াকলে পড়ে আছি অষ্টপ্রহর
নিত্য কাহিনী শুনছি দেখছি
অন্ধের মতোন চলছি
মেরুদণ্ডহীন মানুষের মতো আছি
স্বার্থহীন কেউ যে বলছে না কথা
প্রতি পদে পদে হিসাব কষে লাভ ক্ষতি
অদৃশ্য বন্ধনে বেঁচে আছি ভূপৃষ্ঠ মায়া মোহের টান
শূন্যতায় হাঁটছি কেউ জানে না।

 

 

পাতা ঝরার মৌসুম

 

 

পাতাঝরার মৌসুম এসে গেছে
প্রকৃতি দিচ্ছে ডাক
শীত শীত অনুভব রাত্রিভোর
পিঠা উৎসব গ্রামে গ্রামে শহুরের অলিগলি
পথের ধারে ফুটপাথে ভিড় রঙিন জামার আসর
হকারের মুখে শোনা যায়, একদাম একশ
কৃষাণ কৃষাণীদের হাস্যোজ্জ্বল চোখ
আমিও মনে মনে ভেবেনি বিকেল হলে
গোরকঘাটা আলিশান রোডের মোড়ে
তপনের দোকান থেকে খাবো ভাপাপিঠা।

মুখ ও মুখোশ

চলতি পথে থমকে যাই
মুখোশের আড়ালে মুখ দৌড়ায়
কে নায়ক, কে ভিলেন?
বুঝা দায়!
একই চরিত্র ভিন্ন ভিন্ন মুখ হাসে
চোখের ইশারায়
আজব লাগে দুনিয়াটাই
আজব লাগে নিজেকেই
হাসতে গিয়ে হাসতে পারি না
কাঁদতে গিয়ে কাঁদতে পারি না
চেয়ে দেখি মুখ ও মুখোশের খেলা
ভবরঙ্গ নাট্যমঞ্চে হাস্যোজ্জ্বল মেলা।


আরো সংবাদ




krunker gebze evden eve nakliyat