১৮ আগস্ট ২০১৯

নিমে পরিচর্যা : রূপ কথা

-

প্রকৃতি মানুষের জন্য সাজিয়ে রেখেছে অজস্র সম্ভার। বিভিন্ন গাছের ভেষজগুণ মানুষ তাদের বিভিন্ন প্রয়োজনে ব্যবহার করে আসছে সেই প্রাচীনকাল থেকে। প্রকৃতির অপার গুণসম্পন্ন একটি গাছ নিম। নিমগাছের অসংখ্য গুণের মধ্যে একটি অন্যতম গুণ হচ্ছেÑ ত্বক পরিচর্যা। ত্বক পরিচর্যায় নিম কী কী কাজ করে সে বিষয়ে অনেকেরই জানা নেই।
ত্বকে আর্দ্রতা দেয় : নিমপাতার রস ত্বকে আর্দ্রতা জোগায়। ফলে ত্বক থাকে নরম ও মসৃণ। ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা সারাতে সাহায্য করে। ত্বকের সংক্রমণ রোধ করতে হলুদের সাথে কয়েকটি নিমপাতা বেটে লাগালে উপকার পাওয়া যায়।
টোনার হিসেবে কাজ করে : ফুটন্ত পানিতে কয়েকটি নিমপাতা ফেলে দিন। কিছুক্ষণ ফুটিয়ে নামিয়ে ঠাণ্ডা করে নিন। এই পানি টোনার হিসেবে ত্বকে লাগিয়ে রাখুন সারা রাত। ত্বকের দাগ, ব্রণ, ব্ল্যাক হেডস দূর হবে। নিমপাতার সাথে অল্প কমলার খোসা মিশিয়ে বেটে নিন। এর সাথে অল্প টক দই ও মধু মিশিয়ে পেস্ট হিসেবে ব্যবহার করুন। ব্রণ দূর হবে, লোমকূপ সঙ্কুচিত হতে সাহায্য করে এই পেস্ট।
ত্বক উজ্জ্বল করে : হলুদ ও নিমের পেস্ট নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক পরিষ্কার হয়ে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ে। শুধু নিমপাতার পেস্ট সারা রাত মুখে লাগিয়ে রাখলেও ত্বকের উজ্জ্বলতা ফিরে পায়।
ত্বকের শুষ্কতা দূর করে : শুষ্ক ত্বকের জন্য নিমপাতা খুব উপকারী। নিমের পেস্টের সাথে অল্প আঙুরের বীজের তেল মিশিয়ে ত্বকে লাগিয়ে রাখুন। অথবা এর পেস্ট ত্বকে ব্যবহার করুন, ত্বক আর্দ্রতা ফিরে পাবে। ত্বকের ইরিটেশন দূর করতেও নিম পেস্ট খুবই উপকারী।
ত্বক টান টান রাখে : নিমের মধ্যে থাকা বিভিন্ন উপাদান ত্বকের নিচে থাকা প্যাথোজেন রোধ করে। এভাবে ত্বক থাকে টান টান। রোধ করে বলিরেখা। নিমতেল বা নিম পাউডার ত্বককে রাখে হেলদি এবং বার্ধক্য রোধ করে।
ডার্ক সার্কেল দূর করে : নিম পিগমেনটেশন কমাতে সাহায্য করে। তাই ডার্ক সার্কেল দূর করতে নিম খুবই কার্যকরী। নিম পাউডারের সাথে পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। চোখের নিচে লাগিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট। তবে চোখের ভেতরে যেন না যায়, সেদিকে লক্ষ রাখুন। ১৫ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত ব্যবহারে পার্থক্য দেখতে পাবেন।
ত্বক পরিচর্যা ছাড়াও ত্বকে নানা ধরনের সমস্যার ক্ষেত্রেও নিমের রয়েছে কার্যকর সমাধানের গুণ। ত্বকের বিভিন্ন সংক্রমণ, ইচিং, ইরিটেশন প্রভৃতি দূর করতে নিমের রয়েছে বিশেষ ভূমিকা। ত্বক ছাড়াও চুলের পরিচর্যায়ও নিম খুবই উপকারী। নিমের পাতা পানিতে ফুটিয়ে ঠাণ্ডা করে চুলে কন্ডিশনার হিসেবে ব্যবহার করা যায়। নারকেল তেলের সাথে নিমপাতা ফুটিয়ে চুলে ব্যবহার করুন। চুলের গ্রোথ বাড়বে এবং চুল পড়া কমবে।


আরো সংবাদ




bedava internet