২২ মে ২০১৯

বোশেখ বরণ নববর্ষ ১৪২৬

-

উপলক্ষ বৈশাখ উদযাপন। কারো সাজে সনাতনের স্বচ্ছ ধারণা, তো কারোটায় সমকালীনতা স্পষ্ট। তাই কোথাও ভারী, কোথাও হালকা মেকআপ। খোঁপা, বেনি, কার্ল করে ছেড়ে রাখা চুলের সঙ্গত। কপালে রঙ বাহারি টিপ। নতুনত্বে, স্বকীয়তায়, বৈচিত্র্যে অসামান্য। বাঙালিয়ানা এখানে ট্রেন্ডি হয়ে উঠেছে বৈশাখের চিরায়ত সৌন্দর্য নিয়েই। মানে ঐতিহ্যের সঙ্গে সমকালীনতার রূপময় মিশেলে বাঙালি নারীর নতুন লুক।
প্রতি বছর বৈশাখে থাকে ব্যতিক্রমী হয়ে ওঠার চেষ্টা। নতুন কেতার মেকআপ, হেয়ারস্টাইল আর রঙের বৈচিত্র্যময় সংযোজনে এই উৎসবের সাজ ভিন্ন মাত্রা পায়। তবে বিপত্তি বাঁধে গরম নিয়ে। সাজ ঠিকঠাক থাকবে কি না, এই নিয়ে দুশ্চিন্তা থাকে সবার। আরেক ভাবনা, কেমন সাজই বা মানাবে এই উৎসবে। আটপৌরে আর ট্রেন্ডিÑ এই দু’টিকে নিজের মতো করে মিশিয়ে নেয়াটাই এখন চল। চাইলে শাড়ির সাথে ট্রেন্ডি কোনো লুক কিংবা হাল ফ্যাশনের কোনো পোশাকের সাথে ক্ল্যাসিক লুক দেয়া যায় অনায়াসেই। শুধু বেছে নিন গরমবান্ধব মেকআপ পণ্য।
প্রস্তুতি কিন্তু শুরু করা চাই আগে থেকেই। কারণ সকাল, দুপুর, সন্ধ্যাÑ এই তিন সময়ের সাজও হয় তিন ধরনের। তাই সাজে সুন্দর হয়ে ওঠা যেমন জরুরি, তেমন তা ধরে রাখাও তো চাই! সকালের সাজে সব সময় স্নিগ্ধতার প্রাধান্য প্রয়োজন। গরম বলে সাজটা হালকা হলেই ভালো। বৈশাখী রঙের সাথে মিলিয়ে পরতে পারেন শাড়ি, সালোয়ার-কামিজ কিংবা ফিউশনধর্মী পোশাক। সাথে হালকা মেকআপ। যারা সারা দিনের জন্য বের হবেন, তাদের অবশ্যই সানস্ক্রিন ব্যবহার করা উচিত। তার পর ফাউন্ডেশনের পালা। দিনভর টিকে থাকবে এমন ফর্মুলারগুলো বেছে নিন। পছন্দ অনুসারে ম্যাট বা ডিউই দুটোই চলতে পারে। তবে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে সেট করে নেয়া জরুরি। আলতো করে পাউডার পাফ করে নিতে পারেন। মুখ, গলা আর ঘাড় বাদ দেয়া যাবে না। খুব বেশি কনট্যুরের কাটাছেঁড়া না করে যতটা সম্ভব স্বাভাবিক রাখা চাই মুখের ত্বক। হাইলাইটারের উজ্জ্বলতা কিন্তু মন্দ দেখাবে না। আই মেকআপের ক্ষেত্রে হালকা সাজই ভালো। দিনের বেলা একটু ফ্রস্টি শ্যাডোগুলো ভালো লাগবে। দেখতে আরাম অনুভূত হয় এতে। দিনের জন্য লাইট গোল্ডেন, পিঙ্ক, পিচ, সফট রেডিশ কোনো রঙ। তার পর দিন কাজল। কিংবা চোখের ওপরের পাতায় আইলাইনার দিয়ে সরু রেখা দিতে পারেন। যাদের একটু এক্সপেরিমেন্টাল মেকআপ পছন্দ তারা লাইন নিয়েও খেলা করতে পারেন। দিতে পারেন গ্রাফিক কিংবা আন্ডারলাইনারের টান। গালে পিচ বা লাইট পিংক টোনের ব্লাশনের ছোঁয়ায় রাঙিয়ে নিন। লিপস্টিকে এখন গ্লসের চল। গ্লসি ন্যুড শেডগুলো কিন্তু দারুণ দেখাবে সাজে। লাল লিপস্টিক বৈশাখী সাজের সাথে খুব যায়, তবে সকালে টকটকে লাল কিছুটা চোখেই লাগে। দিলে ক্ষতি নেই, তবে ভালো হয় লাইট অরেঞ্জ, পিঙ্ক কিংবা বেইজ রঙগুলো বেছে নিলে। রাতেই চুল শ্যাম্পু করে রেখে দিতে পারেন। চুল ছেড়ে রাখা যেতে পারে অথবা ছোট্ট পনিটেল বা বেনি করে ফুল লাগাতে পারেন।
সকালের চেয়ে জমজমাট বৈশাখী দুপুর। কারণ তখন ভিড় তো বাড়েই, রোদও তেতে ওঠে। তাই সাজসজ্জা হওয়া চাই আরামপ্রদ এবং সেই সাথে আকর্ষণীয়। ক্লিনজার, টোনার দিয়ে ত্বক প্রস্তুত করে নিয়ে প্রাইমারের বাড়তি পরতের প্রয়োজন পড়ে এ সময়। অয়েল বেসড এড়িয়ে ফাউন্ডেশন হিসেবে বাছতে হবে ওয়াটার বেসডগুলো। ফেস পাউডার, ব্লাশন বাদে মুখে বাড়তি কিছু না মাখলেই ভালো। চোখও খুব বেশি সাজানোর প্রয়োজন নেই। এ জন্য কাজলই যথেষ্ট। চিকন, মোটা কিংবা সামান্য লেপটে যাওয়া কাজলের রেখা মন্দ দেখাবে না। বরং মায়ামাখা ভাব ফুটে উঠবে নিমেষেই। এরপর ঘন করে মাশকারা মাখিয়ে নিন ল্যাশে। সবশেষে লিপস্টিক। টকটকে লাল লিপস্টিক মাখুন। ম্যাট কিংবা গ্লসি। এতে স্বাচ্ছন্দ্য না হলে পোশাকের যেকোনো রঙ উঠে আসতে পারে ঠোঁটে। টিপ পরতে কিন্তু ভুলে যাবেন না। বৈশাখে অনেকেই কপালে বড় লাল টিপ পরতে পছন্দ করেন। ছোট বা বড় কপালের আকৃতি বুঝে পরে নিন। চুল সাজাতে খোঁপা, বেনি বা সাইড কার্ল করে ছেড়েও রাখতে পারেন। যেটা আপনার জন্য স্বস্তিকর।
রাতের সাজ সব সময়ই জমকালো। লালে সেজে ওঠার সেরা সময়। শুধু বৈশাখ বলেই নয় আসছে সিজনের মেকআপে লাল যোগ করবে বাড়তি মাত্রা। এমনকি মাল্টি টাস্কিং-রূপেও দেখা মিলবে এর কারসাজি। চোখ থেকে ঠোঁটে। তাই রাতের সাজের এক্সট্রা ইফেক্টের জন্য সাজতে বসার আধা ঘণ্টা আগে গোসল করে নিলে খুব ভালো হয়। তাতে দিনের ক্লান্তি কাটিয়ে শরীরটাও ঝরঝরে হয়ে ওঠে। সাজেও তার প্রভাব পড়ে। সাজ শুরুর আগে সামান্য গোলাপজল মাখিয়ে নিতে পারেন মুখে। তার পর ফাউন্ডেশন, কনসিলার আর পাউডারের প্রলেপে পারফেক্ট বেজ তৈরি করে নিতে হবে। মেকআপে লুক ম্যাট রাখতে চাইলে ঠোঁটে ম্যাট রেড লিপস্টিক স্টেটমেন্ট স্ট্রোক। তবে এ লিপস্টিক যতটা আকর্ষক, ততটা দ্বিধার। অজস্র শেডের মধ্যে মানানসইটা বেছে নেয়ার আগে বুঝতে হবে ত্বকের টোন ওয়ার্ম না কুল। বাঙালি ত্বকে সাধারণত ব্লু আন্ডারটোনের রেড লিপস্টিকই বেশি যুতসই। ঠোঁট রঙের সঙ্গে মিলিয়ে ম্যাট রেড আইলাইনারের টান মন্দ দেখাবে না। গরমের দিন মন ভালো করে দেয়া গ্লসি ফর্মুলার আইশ্যাডো আর লিপস্টিকেও মিলে যেতে পারে লালের আভিজাত্য। ঝকঝকে ম্যাট ত্বক ক্যানভাসের ওপর চমৎকার ফুটবে গ্লসের চাকচিক্য। চোখের ওপর প্রাইমার মাস্ট। তার পর মাখতে হবে গ্লসি আইশ্যাডো। আর ঠোঁটকে নিখুঁত দেখাতে চাই কনসিলার পেন। সাজে আরো ঝলমলে ঔজ্জ্বল্য চাইলে ব্যবহার হতে পারে গ্লিটার। গ্লিটারি গোল্ডেন আই সাথে ভারী আইলাইনারের টান চোখে যোগ করবে বাড়তি ডেফিনেশন। চোখের পাতায় হাত খুলে মাশকারার পরত প্রয়োজন। আর উজ্জ্বল লাল গ্লিটারি ঠোঁট ভিড়ের মধ্যেও আপনাকে করে তুলবে স্বতন্ত্র। স্মোকি আইও করে নিতে পারেন লালের ব্যবহারে। তবে খুব উজ্জ্বল লাল নয় বরং বেছে নিতে হবে রেডের কপারি কিংবা পিঙ্কিশ ভার্সনগুলো। সাথে কালো ক্যাট আইয়ের সঙ্গতে আরো আকর্ষণীয় দেখাবে চোখ। রাতে ছাড়া চুলই বেশি ভালো লাগে। তবে সামনে হালকা একটু ফাপিয়ে সেট করে নিতে পারেন। চুল অল্প বা ছোট হলে কার্লার দিয়ে পেঁচিয়ে একটু ফাঁপিয়ে দিন। যাতে ঘন মনে হয়। টিপ পরতে পারেন। না পরলেও ক্ষতি নেই। নখে সুন্দর কোনো রঙের জেল নেইল করে নিতে পারেন। সাজে বাড়তি চমক যোগ হবে নিমেষেই। তবে চেষ্টা করুন চুলে ফুল গুঁজে দিতে। যা যোগ করবে উৎসবের আমেজ।


আরো সংবাদ

কাশ্মীরে নিরাপত্তা হেফাজতে নির্যাতনের লোমহর্ষক বিবরণ সন্ত্রাস ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে : প্রধানমন্ত্রী পেশাজীবীদের সম্মানে প্রধানমন্ত্রীর ইফতার ৬ মাস পর কারামুক্ত বিএনপি নেতা শেখ রবিউল আলম নারী ও শিশু নির্যাতন রোধে তিন মন্ত্রণালয়কে সমন্বিতভাবে কাজ করার পরামর্শ বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির মামলায় তদন্ত প্রতিবেদন ২ জুলাই ৩ টাকার বালিশ তুলতে খরচ ৫ টাকা? রুমিন ফারহানার প্রার্থিতা বৈধ কৃষকেরা অধিকার থেকে বঞ্চিত : মাওলানা আতাউল্লাহ শাহজালাল বিমানবন্দরে সোয়া ৩ কোটি টাকার স্বর্ণসহ একজন গ্রেফতার পশ্চিম রাজাবাজারের জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবি আওয়ামী লীগ-বিএনপির তরুণ নেতাদের

সকল




agario agario - agario