১৯ মার্চ ২০১৯

পৃথিবীর প্রতিরক্ষার ঢাল মেরামত হচ্ছে

২০০০ সালে উপগ্রহ থেকে ধারণ করা ছবিতে ওজোন স্তরে ছিদ্র দেখা যায় - বিবিসি

১৯৮০ সালে প্রথম দেখা গেল যে ওজোন স্তর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এই ওজন স্তর আমাদের পৃথিবীকে সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি থেকে সুরক্ষা দেয়। তবে এখন দেখা যাচ্ছে যে, এটি সেই ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে শুরু করেছে।

উত্তর গোলার্ধের অংশটি পুরোপুরি পুনরুদ্ধার হবে ২০৩০ সাল নাগাদ আর এন্টার্কটিকা অংশে সময় লেগে যাবে ২০৬০ পর্যন্ত।

জাতিসঙ্ঘের একটি রিপোর্টে বলা হয়েছে, এটি আসলে সেই উদাহরণ যা থেকে প্রমাণ করা যায় যে বিশ্বব্যাপী এই সংক্রান্ত চুক্তিগুলো কী অর্জন করতে পেরেছে।

ওজোন স্তরটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে মূলত মানুষ সৃষ্টি রাসায়নিক ক্লোরোফ্লোরো-কার্বন-এর কারণে, যার সংক্ষিপ্ত নাম সিএফসি।

ওজোন স্তরের কাজ কী?

পৃথিবীর মাটি থেকে ছয় মাইল ঊর্ধ্বে এই ওজোন স্তরের অবস্থান।

অক্সিজেন অণুর এক বিশেষ রঙ হীন রূপ এই ওজোন। মূলত এটি পৃথিবীকে সূর্যের অতিবেগুনি রশ্মি থেকে সুরক্ষা দেয়। এই অতিবেগুনি রশ্মির কারণে হতে পারে ত্বকের ক্যান্সার, চোখের সমস্যা বা ফসলের ক্ষতি।

কীভাবে মানুষ এটির ক্ষতির কারণ?

ক্লোরোফ্লোরো-কার্বন গ্যাস বা সিএফসি যেন অনেকটা ওজোন স্তরকে খেয়ে ফেলতে থাকে। এই সিএফসি থাকে বিভিন্ন ধরনের স্প্রে ক্যানে, ফ্রিজ এবং এয়ার কন্ডিশনারে।

ফলস্বরূপ, ১৯৮৫ সালে দেখা গেল যে দক্ষিণ গোলার্ধের ওজোন স্তরে বড়সড় একটি গর্ত তৈরি হয়েছে।

কতটা খারাপ অবস্থায় ছিল?

১৯৯০ এর দশকের শেষ দিকে এটি ছিল সবচেয়ে খারাপ অবস্থায়। উপরের ওজোন স্তরের অনন্ত ১০ শতাংশ হ্রাস পেয়েছিল।

তবে জাতিসঙ্ঘের একটি প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, ২০০০ সাল থেকে প্রতি দশকে ৩% হারে এটি বৃদ্ধি পাচ্ছে।

কীভাবে পরিবর্তন এলো?

একটি আন্তর্জাতিক চুক্তি যা 'মন্ট্রিল প্রোটোকল' নামে পরিচিত তা এই সিএফসি সমৃদ্ধ জিনিসের ব্যবসার প্রতিস্থাপনে সহায়তা করে। ১৮০টি দেশ এই চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিল।

চুক্তি অনুযায়ী দেশগুলো সিএফসি-র মতো রাসায়নিক উৎপাদন কমাতে সম্মত হয়।

তাহলে কী এখন সবই ভালো হয়ে গেছে?

না, এখনো পুরোপুরি সাফল্য আসেনি, বলছেন ইউনিভার্সিটি অব কলোরাডোর বায়ার্ন টুন।

তার মতে, "আমরা নির্দিষ্ট কিছু অংশ খুঁজে পেয়েছি যেখানে এই ক্ষত কাটিয়ে উঠতে শুরু হয়েছে।"

তিনি দেখান যে, এখনো কিছু অংশ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে শুরু করেনি।

কিছু ক্লোরিন-যুক্ত রাসায়নিকের নির্গমন বৃদ্ধি এই ওজোন স্তরের নিরাময়কে হ্রাস করতে পারে বলে আশঙ্কা রয়েছে।

বিশেষ করে চীনে এগুলোর উৎপাদন হয় আর মূলত রঙ বা পিভিসি তৈরিতে এর ব্যবহার, আর এগুলোর নিয়ন্ত্রণও বলতে গেলে নেই।

এরপরও ওজোন স্তরের পুনরুদ্ধারের বিষয়টিকে বড় ব্যাপার বলে মনে করছে অনেক বিশেষজ্ঞ।

নাসা'র গডার্ড স্পেস ফ্লাইট সেন্টারের প্রধান ধরিত্রী বিজ্ঞানী এবং এ সংক্রান্ত রিপোর্টটির সহ-সভাপতি পল নিউ-ম্যান বলেন যে, "এটি আসলেই ভালো খবর।"

তার ভাষ্য, যদি ওজোন হ্রাসকারী পদার্থগুলোর উৎপাদন অব্যাহত থাকতো, তবে তার বিপুল প্রভাব দেখা যেত প্রকৃতিতে। তাই সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।


আরো সংবাদ

নরসিংদীতে আ’লীগের দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত ২ যুক্তরাষ্ট্রের মোকাবেলায় ক্রিমিয়ায় পরমাণু অস্ত্রবাহী বিমান মোতায়েন করবে রাশিয়া সুখী হওয়ার পাঁচটি উপায় ইমরান খানের গোপন তথ্য জানালেন স্ত্রী বুশরা রাণীনগরে স্বতন্ত্রের কাছে বিপুল ভোটে হারলেন নৌকার প্রার্থী সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করেছে নেদারল্যান্ডসের পুলিশ রাজধানীতে বাসচাপায় বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র নিহত রাঙ্গামাটিতে নির্বাচন নিয়ে রক্তপাতের আশঙ্কা আগে থেকেই ছিল ফরিদপুরে নৌকার চেয়ে বিদ্রোহীরাই বেশি জয়ী রাঙ্গামাটিতে এবার আওয়ামী লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা যে কারণে জনসভায় ক্রাইস্টচার্চ হামলার ভিডিও দেখিয়েছেন এরদোগান

সকল




iptv al Epoksi boya epoksi zemin kaplama Daftar Situs Agen Judi Bola Net Online Terpercaya Resmi

Hacklink

instagram takipçi satın al ofis taşıma Instagram Web Viewer

canli radyo dinle

Yabanci Dil Seslendirme

instagram takipçi satın al