১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

ভূরুঙ্গামারীতে লবণ কিনতে হুড়োহুড়ি, প্রশাসনের মাইকিং 

-

কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারীতে লবণ কিনতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন ক্রেতারা। দোকানে দোকানে উপচে পড়া ভিড়। মুহূর্তেই শেষ হয়ে যাচ্ছে বস্তা বস্তা লবণ। খোলা লবণ বিক্রি হচ্ছে দ্বিগুন দামে। গুজব রোধে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে করা হচ্ছে মাইকিং। নজরদারিতে নেমে পড়েছে পুলিশ।

দেশের বিভিন্ন জেলার ন্যায় ভূরুঙ্গামারীতেও লবণ নিয়ে গুজব ছড়িয়ে পড়েছে। উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের প্রতিটি মুদি দোকানে লবণ কিনতে ভিড় করছেন ক্রেতারা। লবণের দাম বেড়ে যাবে এমন ভিত্তিহীন খবরে আগে যারা ১ কেজি লবণ কিনতেন আজকে তারা ন্যুনতম ২/৩ কেজি লবণ কিনছেন। কেউ কেউ আরো বেশি পরিমাণে লবণ কিনে নিচ্ছেন। সোমবার কেজি প্রতি খোলা লবণ বিক্রি হয়েছে ২০/২৫ টাকা। মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজারে সেই লবণ ৪০/৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। প্যাকেটজাত লবনের দামও ৫/১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে।

উপজেলার পাগলা হাট বাজারে লবণ কিনতে আসা মিনহাজ, আঃ মালেক, আবু হানিফ জানান, পেঁয়াজের মতো লবণের দামও যদি বেড়ে যায় তাই একটু বেশি করে লবণ কিনে রাখছি। খোলা লবণ ৩০ টাকা আর প্যাকেট লবণ গায়ে লেখা মূল্যের চেয়ে ১০ টাকা বেশি নেয়া হচ্ছে। অপরদিকে ধামের হাট বাজার ও পাটেশ্বরী ব্রিজ পাড়ে খোলা লবণ ৪০ টাকা দরে বিক্রি হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

ভূরুঙ্গামারী বাজারের মুদি দোকানি কল্যাণ কুমার জানান, বিকেলে হঠাৎ করে লবণ ক্রেতাদের ভীড় বেড়ে যায়, কোনো কিছু বোঝার আগেই মুহুর্তেই দুই বস্তা লবণ শেষ হয়ে যায়।

ইউএনও এসএইচএম মাগফুরুল হাসান আব্বাসী জানান, লবণের মূল্য বৃদ্ধির বিষয়টি গুজব। বাজারে লবণের কোনো ঘাটতি বা সঙ্কট নেই। লবণের দাম বাড়ার কোনো সম্ভবনাও নেই। কেউ গুজব ছড়ালে, বেশি পরিমাণে মজুদ রাখলে বা অতিরিক্ত দামে লবণ বিক্রি করলে তার বিরুদ্ধে জেল জরিমানা আরোপ সহ কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। গুজব রোধে প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করা হচ্ছে। লবণ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই।


আরো সংবাদ




hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik