১৩ ডিসেম্বর ২০১৯

রংপুরের ৬টি আসন ৩ দলে ভাগাভাগির সম্ভাবনা

-

অবাধ ও সুষ্ঠু ভোট গ্রহণ, ভোট গননা এবং নির্বাচন ইঞ্জিনিয়ারিং না হলে কাল রোববার অনুষ্ঠিতব্য একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রংপুরের ৬টি আসন এবার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টি এবং বিরোধী জোটের বিএনপির মধ্যে ভাগাভাগি হয়ে যাবে বলে মনে করেন ভোট বিশ্লেষকরা। ইতোমধ্যেই এই ৬টি আসনে ভোট গ্রহণের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে নির্বাচন কমিশন।

ভোটার, রাজনীতি ও ভোট বিশ্লেষক, বিভিন্ন জরিপ সংগঠন এবং আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টির বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, এবার রংপুর-১ (গঙ্গাচড়া-১ থেকে ৮ নং রংপুর সিটি করপোরেশনের ওয়ার্ড) আসনে মহাজোটের একক প্রার্থী জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় থাকবেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নাগরিক ঐক্যের প্রার্থী ধানের শীষের শাহ রহমত উল্লাহ। এছাড়াও এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সিংহ প্রতীকের সিএম সাদিক, হাতপাখা প্রতীকের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মোক্তার হোসেন, আম প্রতীকের ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ইশা মোহাম্মদ সবুজ। এখানে মোট ২ লাখ ৮৭ হাজার ৯৮৪ ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৪৫ হাজার ১৩২ এবং নারী ১ লাখ ৪২ হাজার ৮৫২ জন।

অন্যদিকে রংপুর-২ (বদরগঞ্জ-তারাগঞ্জ) আসনে সব থেকে এগিয়ে আছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ও বিএনপি মনোনীত ধানের শীষের প্রার্থী মোহাম্মদ আলী সরকার। এখানে তার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলবেন বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের আবুল কালাম মো: আহসানুল হক চৌধুরী ডিউক, লাঙ্গল প্রতীকের জাতীয় পার্টির আসাদুজ্জামান চৌধুরী সাবলু ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সিংহ আনিছুর রহমান মন্ডল। এছাড়াও এখানে হাতপাখা প্রতীকের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো: আশরাফ আলী, মশাল প্রতীকের জাসদের কুমারেশ রায়, কুলা প্রতীকের বিকল্পধারার হারুন অর রশিদ, গোলাপ ফুল জাকের পার্টির আশরাফ-উজ-জামান ভোটের মাঠে আছেন। এখানে মোট ৩ লাখ ১২ হাজার ৮১৫ ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৫৫ হাজার ৯৪৮ এবং নারী ১ লাখ ৫৬ হাজার ৮৬৭ জন।

রংপুর-৩ (সদর ও রংপুর সিটি করপোরেশনের ৯ থেকে ৩৩ ওয়ার্ড) আসনে মহাজোটের একক প্রার্থী জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বর্তমান এমপি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে মাঠে আছেন। এই আসনে তিনি বিপুল ভোটে বিজয়ী হতে পারেন। এখানে তার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলবেন হাতপাখা প্রতীকের প্রার্থী ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমিরুজ্জামান পিয়াল। এছাড়াও এখানে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ধানের শীষ প্রতীকের রিটা রহমান, মশাল প্রতীকের জাসদের সাখাওয়াত রাঙ্গা, বাঘ প্রতীকের প্রগতিশীল ডেমোক্রেটিক পার্টির সাব্বির আহম্মেদ, কোদাল প্রতীকের বাসদের আনোয়ার হোসেন বাবলু, গোলাপফুল প্রতীকের জাকের পার্টির আলমগীর হোসেন আলম, দেয়াল ঘড়ি প্রতীকের খেলাফত মজলিশের তৌহিদুর রহমান মন্ডল, আম প্রতীকের ন্যাশনাল পিপলস পার্টির ছামসুল হক লড়ছেন। এখানে মোট ৪ লাখ ৪১ হাজার ৬৭৩ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ২১ হাজার ১০৯ ও নারী ২ লাখ ২০ হাজার ৫৬৪ জন।

রংপুর-৪ (পীরগাছা-কাউনিয়া) আসনে ভোটের মাঠে এগিয়ে আছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকের এমদাদুল হক ভরসা। এখানে তার শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের বর্তমান এমপি টিপু মুনশী। এছাড়াও এখানে লাঙ্গল প্রতীকের জাতীয় পার্টির মোস্তফা সেলিম বেঙ্গল, মই প্রতীকের বাসদের আব্দুস সাদেক মিয়া, হাতপাখা প্রতীকের ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা বদিউজ্জামান এবং জাকের পার্টির গোলাপ ফুল প্রতীকের লায়লা আনজুমান আরা মাঠে আছেন। এখানে মোট ৪ লাখ ১২ হাজার ৯৫৯ ভোটারের মধ্যে পুরুষ ২ লাখ ১ হাজার ৭০৮ এবং নারী ২ লাখ ১১ হাজার ২৫১ জন।

রংপুর-৫ (মিঠাপুকুর) আসনে জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী এসএম ফখর-উজ-জামান জাহাঙ্গীরের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির ধানের শীষের শাহ সোলায়ম আলম ফকির এবং বর্তমান এমপি আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের এইচএন আশিকুর রহমান। এছাড়াও গোলাপ ফুল প্রতীকের জাকের পার্টির শামীম মিয়া, মই প্রতীকের বাসদের মমিনুল ইসলাম, হাতপাখা প্রতীকের ইসলামী আন্দোলর বাংলাদেশের শফিকুল ইসলাম ভোলা মন্ডল মাঠে আছেন। এখানে মোট ৩ লাখ ৮৬ হাজার ৪১৪ জন ভোটারের মধ্যে পুরুষ ১ লাখ ৯০ হাজার ৯৭৬ ও নারী ১ লাখ ৯৫ হাজার ৪৩৮ জন।

রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসনে মহাজোটের একক প্রার্থী আওয়ামী লীগের বর্তমান এমপি জাতীয় সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ে তুলবেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিএনপির তরুণ প্রজন্মের নেতা ধানের শীষ প্রতীকের সাইফুল ইসলাম। এছাড়াও এখানে আম প্রতীকের ন্যাশনাল পিপলস পার্টির হুমায়ুন এজাজ লেভিন, কাস্তে প্রতীকের সিপিবি’র অধ্যাপক কামরুজ্জামান, টেলিভিশন প্রতীকের বিএনএফের এবিএম মাসুদ সরকার, হাতপাখা প্রতীকের ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের বেলাল হোসেন। এখানে মোট ২ লাখ ৯২ হাজার ৯৯৭ ভোটারের মধ্যে ১ লাখ ৪৫ হাজার ৩২৮ ও নারী ১ লাখ ৪৭ হাজার ৬৬৯ জন।


আরো সংবাদ




hacklink Paykwik Paykasa
Paykwik