২২ জুলাই ২০১৮

৬ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের সময় অাটক ২

৬ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের সময় অাটক ২। - নয়া দিগন্ত।

সোমবার ঠাকুরগাঁওয়ের রাণীশংকৈল উপজেলার মহারাজা হাট শাখা গ্রামীণ ব্যাংকের ব্যবস্থাপক হারুন অর রশিদ নেকমরদ সোনালী ব্যাংক থেকে ৬ লাখ টাকা উত্তোলন করে মটরসাইকেলযোগে অফিস যাওয়ার পথে দুর্লভপুর নামক স্থানে দুই ছিনতাইকারী পিস্তল দেখিয়ে ১ রাউন্ড গুলি ফুটিয়ে টাকার ব্যাগ ছিনতাই করে পালিয়ে যায়। পরে পুলিশ ৬ লাখ টাকা ও বিদেশী পিস্তলসহ ২ ছিনতাইকারীকে গ্রেফতার করে । মঙ্গলবার পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিং করে পুলিশ সুপার ফারহাত আহমেদ এসব কথা বলেন ।

চিৎকার শুনে বুঝতে পেরে নেকমরদ ইউপি সদস্য ইলিয়াস রাণীশংকৈল পুলিশকে জানালে ছিনতাইকালে পুলিশ
দ্রুত বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান নেয়। ছিনতাইকারীরা মহারাজা নামক স্থানে জনতা, পুলিশ ও রাস্তায় গাছের ব্যারিকেড দেখে আতঙ্কে ছিটকে পড়ে। এ সময় পুলিশ হরিপুর উপজেলার লোহুচাঁদ গ্রামের আমিন উদ্দিনের ছেলে আসাদুজ্জামান লিটন (৩৩) ও একই গ্রামের বদরুল ইসলামের ছেলে আবু সায়েদ (২৮) কে গ্রেফতার করে। তাদের তল্লাসী চালিয়ে একটি বিদেশী পিস্তল, দুই রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে। কাছে থাকা ছিনতাইয়ের ৬ লাখ টাকা ও তাদের ব্যবহৃত মটরসাইকেলও জব্দ করা হয়। পরে ছিনতাইকারীদের দেয়া তথ্য মতে ছিনতাইয়ের সাথে জড়িত থাকায় রাণীশংকৈল থানার ভবানন্দপুর (টাওয়ারপাড়া) গ্রামের আব্দুল কাইয়ুমের ছেলে তান্নু আনসারী (২১) কে গ্রেফতার করে পুলিশ। এ বিষয়ে তাদের বিরুদ্ধে রাণীশংকৈল থানায় দ্রুত বিচার আইনে ও অস্ত্র মামলায় পৃথক ২টি মামলা করা হয়েছে।

প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খায়রুল আলম, রানীশংকৈল সার্কেল এসপি হাবিবুল আলম হাবিব, ঠাকুরগাঁও সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল লতিফ মিঞা, ওসি অপারেশন কফিল উদ্দিন আহমেদ, রাণীশংকৈল থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল মান্নান, জেলায় কর্মরত বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।


আরো সংবাদ