২৩ অক্টোবর ২০১৮

জমে উঠেছে পীরগাছা

জমে উঠেছে পীরগাছা। ছবি - নয়া দিগন্ত।

ঈদকে সামনে রেখে জমে উঠেছে পীরগাছা উপজেলার ৯ ইউনিয়নের হাট বাজার। ঈদের কারণে কাপড়ের দোকান গুলোটে উপচেপড়া ভীড় লক্ষ করা যাচ্ছে। বিশেষ করে নারী এবং শিশু ক্রেতো বেশি। সবাই নিজ নিজ সামর্থ অনুযাযী পোশাক ক্রয় করছেন। নিম্ন আয়োর মানুষগুলোর নজর বাজারের ফুটপাত দিকে অন্য দিকে মধ্যবিত্তরা অভিজাত শপিংমল গুলোতে ভিড় করেছেন।

সরেজমিরন দেখা যায়, পীরগাছা বাজারের পূর্বদিকে রেল স্টেশন থেকে শুরু করে পশ্চিম দিকে শাপলা চত্বর পর্যন্ত পুরো এলাকা জুরে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের বিপণিবিতান ও শপিংমল। হাজারো ক্রেতার সমাগমে পা রাখবার যায়গাটুকু নেই। প্রতিটি শপিংমলে ক্রেতা-বিক্রেতারা তাদের নিজেদের দাম কশাকশি নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পরেছে। সেইসাথে জুতা ও প্রসাধনীর দোকানেও রয়েছে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভিড়। এদিকে বিপণিবিতানের পাশাপাশি ভিড় জমেছে বাজারের মুদি দোকানগুলিতে। দোকানগুলো সেমাই চিনিসহ বিভিন্ন ধরণের মশলায় টইটুম্বুর করে রেখেছে মুদি দোকানিরা।

সকাল থেকে শুরু করে মধ্যরাত পর্যন্ত কেনাবেচা চলছে। ঈদ যত ঘনিয়ে আসছে কেনাবেচাও ততো বাড়ছে বলে জানান বিক্রেতারা। তারা জানায় প্রতিবারের মতো এবারো ঈদে নতুন কালেকশন এসেছে। ছেলেদের জন্য বিভিন্ন ধরনের পাঞ্জাবিসহ শার্ট, প্যান্ট, টি-শার্ট এবং মেয়েদের পেশাকের মধ্যে সবথেকে বেশি জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ‘গাউন’ এছাড়াও শাড়ি, থ্রি-পিস অনেক বেশি বিক্রি হচ্ছে বলে জানায় শংশ্লিষ্ট দোকান মালিকরা।

‘ফ্যাসান পার্ক’ শপিংমলের মালিক আ. রহমান জানান, ক্রেতাসাধারণের চাপে দম নেবার সময় নেই তাদের। রেডিমেট শার্ট-প্যান্টের মধ্যে এবার বেশি চলছে ‘কাওয়ালি’ প্যান্ট, ‘আবার যদি এসো ফিরে’ শার্ট, এছাড়াও রয়েছে আকর্ষণীয় পাঞ্জাবির সমারোহ।

তবে এবার দাম বেশি হওয়ায় নিম্ন আয়ের মানুষজন কেনাকাটা করতে হিমশিম খাচ্ছেন বলে জানান ক্রেতা নাজমুল হক। স্বল্প আয়ের মানুষগুলি স্ত্রী-সন্তানদের জন্য চাহিদা মত জামা-কাপড় কিনতে ব্যর্থ হওয়ায় তাঁদের অনেকেই গরিবের মার্কেটে কম দামের দোকানগুলোতে যাচ্ছেন।


আরো সংবাদ