১৮ আগস্ট ২০১৯

আড়াই মাস পর কবর থেকে গৃহবধূ সারার লাশ উত্তোলন

বগুড়ার সান্তাহারে আনিকা নওশিন সারা (২৫) নামের দুই সন্তানের জননীর মৃতদেহ আড়াই মাস পর কবর থেকে উত্তোলন করা হয়েছে। আদালত তার মরদেহ কবর থেকে উত্তোলনের আদেশ দিলে মঙ্গলবার বেলা ১২টায় বগুড়ার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলাম ও মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা এবং ঢাকা গোয়েন্দা বিভাগের হেড কোয়াটারের উপ-পরিদর্শক দেলোয়ার হোসাইন উপস্থিতিতে মৃতদেহ উত্তোলন করে মর্গে প্রেরণ করেন।

মামলার তদন্তকারি কর্মকর্তা ও ঢাকা গোয়েন্দা বিভাগের হেড কোয়াটারের উপ-পরিদর্শক দেলোয়ার হোসাইন জানান, বগুড়ার সান্তাহার পৌর শহরের নতুন বাজার মহল্লার মৃত নজরুল ইসলামের মেয়ে আনিকা নওশিন ওরফে সারার সাথে আপন খালাতো ভাই সান্দিড়া গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে মেরিন ইঞ্জিনিয়ার শাকিল আদনানের প্রায় ১২ বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তারা ঢাকায় নিউ স্কাটন এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন। তাদের আরাফাত (৭) ও সাদাত (৪) বছরের দুইটি ছেলে সন্তান রয়েছে।

স্বামী স্ত্রীর মধ্যে বেশ কিছু দিন যাবৎ বনিবনা না হওয়ায় গত ২৬ মে রাতে ঢাকাস্থ বাসায় আনিকা নওশিন সারাকে গলায় ফাঁস দেয়া অবস্থায় তাকে স্বজনরা উদ্ধার করে ঢাকার স্থানীয় হাসপাতালে নেয়ার পর চিকৎসক মৃত ঘোষনা করেন। পরে লাশটি ময়না তদন্ত না করে সান্তাহার নতুন বাজার এলাকায় পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। এরপর নিহত আনিকা নওশিন সারার বড় বোন নাজমুন নাহার বাদি হয়ে গত ৩১ জুন ঢাকার হাতিরঝিল থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে শাকিল আদনানকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলাটি ঢাকায় সিআইডিতে স্থানান্তর করা হলে তদন্তকারি উপ-পরিদর্শক দেলোয়ার হোসাইন মামলাটি সুষ্ট তদন্তের স্বার্থে ও আনিকা নওশিনের মৃত্যুর সঠিক কারন জানার জন্য চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে লাশ উত্তোলনের আবেদন করেন।

সেই আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত আনিকা নওশিনের মরদেহ কবর থেকে উত্তোলনের আদেশ দিলে মঙ্গলবার কবর থেকে তার মরদেহ উত্তোলন করা হয়।


আরো সংবাদ




bedava internet