১৮ আগস্ট ২০১৯

কিশোরী ভাতিজিকে ধর্ষণ করে হত্যা করলো আপন চাচা

নিহত রেশমী খাতুনের স্বজনদের আহজারি। (ডানে) ঘাতক ও ধর্ষক শাহাদৎ হোসেন - নয়া দিগন্ত

নাটোরের সিংড়ায় রেশমী খাতুন (১৮) নামের এক কলেজ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে আপন চাচা। রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলার ইটালী ইউনিয়নের দেওগাছা গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। এদিকে এই ঘটনার মূল নায়ক নিহত কিশোরীর আপন চাচা শাহাদৎ হোসেনকে (৩১) গণধোলাই দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করেছে এলাকাবাসী। নিহত রেশমী খাতুন স্থানীয় বামিহাল অনার্স কলেজের এইচএসসি ২য় বর্ষের ছাত্রী ও দেওয়াগাছা গ্রামের দিনমজুর আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে।

পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, রোববার উপজেলার পাকুরিয়গ্রামে রেশমী খাতুনের বড় দাদা মারা যায়। রেশমীর বাবা-মাসহ বাড়ির সবাই সেই জানাযায় যায়। এসময় রেশমী খাতুন বাড়িতে একাই অবস্থান করছিল। এই সুযোগে আপন চাচা বখাটে শাহাদৎ হোসেন ভাতিজী রেশমী খাতুনকে ধর্ষণ করে মাটির ঘরের দোতলায় রেলিংয়ের ওপর শ্বাসরোধ করে হত্যা করে।

পরে রেশমীর ছোট বোন স্থানীয় দেওগাছা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির শিক্ষার্থী জান্নাতি খাতুন বাড়িতে এসে বড় বোনের লাশ দেখতে পায়। এসময় পাশেই বখাটে চাচাকে দেখে সে চিৎকার চেঁচামেচি শুরু করে। পরে এলাকাবাসীরা চাচা শাহাদৎ হোসেনকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। আটককৃত শাদাহৎ হোসেন মসলেম আলীর ছেলে।

নিহত রেশমী খাতুনের মা সোনাভান বেগম অভিযোগ করেন, আমার মেয়েকে ধর্ষণ করে হত্যা করেছে ঘাতক শাহাদৎ হোসেন।

সিংড়া থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, রেশমীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। ঘাতক শাহাদৎ হোসেকে আটক করা হয়েছে।


আরো সংবাদ




bedava internet